আপাতত হৃদি হয়েই থাকতে চাই: নাবিলা (ভিডিও)

Send
বিনোদন ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:৩১, ডিসেম্বর ০৪, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:৫২, ডিসেম্বর ০৫, ২০১৬

বন্যা মির্জা ও নাবিলা। ছবি: সাজ্জাদ হোসেনউপস্থাপিকা নাবিলাকে সবাই চিনতেন। তবে সেই চেনাজানাকে ভিন্ন আদল দিয়েছেন ‘নতুন’ নাবিলা। দেশীয় চলচ্চিত্রের সর্বশেষ উজ্জ্বল অভিনেত্রী কিংবা নায়িকা এখন তিনিই। নাম মাসুমা রহমান নাবিলা।
‘আয়নাবাজি’র অভিনেত্রী হৃদি হিসেবেই এখন তার নাম ডাক।
এই অভিনেত্রী এবার এসেছিলেন বাংলা ট্রিবিউন ফেসবুক লাইভে। রবিবার (৪ ডিসেম্বর) বিকাল চারটায় প্রতিষ্ঠানের  ব্র্যান্ড কনসালটেন্ট ও অভিনেত্রী বন্যা মির্জার সঙ্গে এক আড্ডায় বসেছিলেন তিনি।
বন্যা মির্জার উপস্থাপনায় ‘বাংলা ট্রিবিউন সেলেব্রিটি লাইভ উইথ বন্যা মির্জা’ শো-তে কথা বললেন নানা প্রসঙ্গে।
যার বেশিরভাগই গিয়ে ঠেকেছে ‘আয়নাবাজি’ চলচ্চিত্রকে ঘিরে।
অমিতাভ রেজা চৌধুরী পরিচালিত অনবদ্য এ ছবিটির নানা প্রসঙ্গে কথা বলেছেন নাবিলা। বলা যায়, ফেসবুক লাইভের কমেন্ট বক্সে জমা হয়েছিল এ প্রশ্নগুলো।   
কেন তিনি আগে অভিনয় করতেন না- এমন অভিমানের প্রশ্নও ছিল। এর উত্তরে নাবিলা বলেন, ‘সবসময় আমাকে উপস্থানাতেই দেখা গেছে। উপস্থাপনা করছি অনেকদিন। অনেকে প্রশ্ন করেছেন, কেন আমি অভিনয় করছি না। আমাদের সময়ের অনেকে মডেলিং বা অন্য কাজ করলেও অভিনয়েও যুক্ত হয়েছেন। আসলে নিজেকে শুধু দেখানোর জন্য এত বড় শিল্পের সঙ্গে জড়ানোর সাহস পেতাম না। কারণ, অভিনয়টাকে আমি এখনও শিখে আসার বিষয় বলে মানি। তাই আয়নাবাজি'র আগে অভিনয়ের অনেক অফার থাকলেও সেটি বিনয়ের সঙ্গে ফিরিয়ে দিয়েছি।’
নাবিলা। ছবি: সাজ্জাদ হোসেনকিন্তু অভিনয়ে যুক্ত হলে কীভাবে- বন্য মির্জার এমন প্রশ্নে নাবিলার জবাব, ‘আমি অভিনয় করতে চেয়েছি। তবে ঐ যে একটু ভাবতাম। অভিনয়ে ভয় ভয় হতো। এরপর ছবিটির প্রস্তাব এলো। তাও আবার এর পরিচালক অমিতাভ রেজা চৌধুরী। যখন প্রস্তাব পেলাম, তখন যেন মিলে গেল। মনে মনে এমন প্রস্তাবের জন্যই বুঝি অপেক্ষায় ছিলাম। তাছাড়া এই ছবির পাণ্ডুলিপি নিয়ে টানা প্রায় পাঁচ মাস ভাবনার সময় পেয়েছি। এভাবেই করে ফেললাম।’
নতুন ছবিতে আবার কবে পাওয়া যাবে- এমন কথায় নাবিলা দর্শকদের একটু সবুর করতে বললেন। কারণ তিনি আরও কিছুদিন ‘আয়নাবাজি’র অভিমত উপভোগ করতে চান।

নাবিলার ভাষ্য, ‘‘নিশ্চই আরও ছবি হয়তো করবো। তবে সেটি এখনই নয়। কারণ আপাতত ‘আয়নাবাজি’র হৃদি হয়েই থাকতে চাই।’’
লাইভে সিলেটের এক দর্শকের আমন্ত্রণে সেই শহরে যাওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন নাবিলা। কেন? কারণটা তার মুখেই শোনা যাক। ‌‌‘‘আমি সিলটে যেতে চাই। এটি আমার খুব পছন্দের একটি শহর। এছাড়া সেখানে অনেক দেরিতে ‘আয়নাবাজি’ মুক্তি পেয়েছিল। দর্শকরা ছবি মুক্তির প্রথমদিকেই খুব করে চাইছিলেন, যেন সিলেটে ছবিটি যায়। যাবো শিগগিরই।’’
প্রসঙ্গক্রমে নাবিলা জানান, ‘আয়নাবাজি’র সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিতে বেশ সময় ব্যয় করেছেন তিনি। শুটিং শুরুর আগে পুরাতন ঢাকায় ‘হৃদি’ ও ‘আয়না’র বাসাতেও থেকেছেন কয়েকদিন। এমনকি পাণ্ডুলিপি হাতে পাওয়ার পাঁচ মাস তিনি অন্য কিছুতে মনোযোগ দেননি। সে জন্যই ছবিতে তার অভিনয় সবার এতটা নজর কেড়েছে বলে মনে করেন তিনি।
ছবিটি নিয়ে বেশ প্রশংসা করেন অনেক দর্শক। একজন বলেন ‘কখনও হলে ছবি দেখিনি কিন্তু আপনাদের ছবি বের হওয়ার পরে আর বাসায় বসে থাকতে পারিনি। আপনারা আমাদের হলে যেতে বাধ্য করেছেন।’
নাবিলার সাক্ষাৎকারের বিস্তারিত জানতে পারবেন ফেসবুক লাইভ সাক্ষাৎকারে।
লাইভের সেই ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন এখানে:


/এম/এমএম/

লাইভ

টপ