মিসির আলি ফসকে গেল, হিমুকে হয়তো পাবো: সৃজিত

Send
আগন্তুক আলেয়া
প্রকাশিত : ১৪:০১, অক্টোবর ১১, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৫২, অক্টোবর ১১, ২০১৮

সৃজিত মুখোপাধ্যায়ভারতের নন্দিত নির্মাতা সৃজিত মুখোপাধ্যায়ের কণ্ঠে ঝরলো মিসির আলিকে নিয়ে আক্ষেপের সুর। এই আক্ষেপ চরিত্রটিকে নিয়ে সিনেমা না বানাতে পারার। তবে হুমায়ূন আহমেদের সৃষ্টি আরেক চরিত্র হিমুকে নিয়ে তিনি পরিকল্পনার ছক আঁকা শুরু করেছেন।
আশা নিয়ে বলছেন, ‘মিসির আলি আমার হাত থেকে ফসকে গেলেও হিমুকে নিয়ে হয়তো সিনেমা বানাতে পারবো।’
মুক্তি প্রতীক্ষিত চঞ্চল চৌধুরী-জয়া আহসানের ‘দেবী’র জন্য শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে এসব কথা বলে ফেললেন সৃজিত।  
ফেসবুকে প্রকাশ করা ১০ অক্টোবরের ওই ভিডিও বার্তায় তিনি আরও বলেন, ‘‘মিসির আলি প্রথমবার পর্দায় আসছে, এটা বাংলা সাহিত্যের যারা গুণমুগ্ধ পাঠক, যেমন আমি, তাদের জন্য বিশাল এক সুখবর। হিমু আর মিসির আলি- এই দুটি চরিত্র নিয়ে বরাবরই আমার কাজ করার খুবই ইচ্ছে ছিল। মিসির আলিটা ফসকে গেল! কারণ, প্রথম কাজটি অলরেডি হয়ে গেল। জয়ার ‘সি-তে সিনেমা’ এই দুর্দান্ত কাজটি করেছে। ‘দেবী’র টিজারটা আমি দেখেছি। মনে হলো নিস্তব্ধতার খুবই ভালো প্রয়োগ হয়েছে এখানে। সত্যি আমি উন্মুখ হয়ে আছি কখন সিনেমাটা দেখতে পারবো।’’
এদিকে ছবিটির প্রযোজক-অভিনেত্রী জয়া আহসান প্রসঙ্গে সৃজিতের মন্তব্য ছিল এমন, ‘‘জয়া আমার এক বিশেষ বন্ধু। তার সঙ্গে আপাতত দুটি কাজ করেছি। ‘রাজকাহিনী’ আর ‘এক যে ছিল রাজা’। আমরা সামনে চেষ্টা করবো দুজনে মিলে যৌথ কোনও প্রযোজনা করা যায় কিনা। কিন্তু আপাতত আমি অপেক্ষায় আছি ‘দেবী’র জন্য।’’
দেবী’তে চঞ্চল, জয়া ও শবনম ফারিয়াসৃজিত শুধু তার বিশেষ বন্ধু জয়া আহসানের কথা বলেই থামেননি এই বার্তায়। বলেছেন ‘দেবী’র পরিচালক অনম বিশ্বাস আর মিসির আলি চরিত্রে অভিনয় করা চঞ্চল চৌধুরীকে নিয়েও। অনম বিশ্বাসকে শুভেচ্ছা জানিয়ে তিনি বললেন, ‘অনম বিশ্বাসকে শুভেচ্ছা জানাই। একটু ঈর্ষাও প্রকাশ করছি তার প্রতি। কারণ, মিসির আলিকে নিয়ে প্রথম কাজটা তিনি করে ফেলেছেন। অথচ আমি করতে পারিনি। আশা করি হিমুটা আমি করতে পারবো।’
চঞ্চল চৌধুরী প্রসঙ্গে সৃজিত বললেন, ‘‘অতি অবশ্যই আমি চঞ্চল বাবুর কথা বলতে চাই। উনার কাজ ‘আয়নাবাজি’তে আমি দেখেছি। মুগ্ধ হয়েছি। এবং ‘দেবী’তে তিনি মিসির আলির ভূমিকায় আছেন। ফলে আমার মতো বাংলা সিনেমাপ্রেমীর জন্য এটা দারুণ সুখবর। মোট মিলিয়ে দেবী রমরমিয়ে চলুক, সবার প্রশংসা পাক। জয়া, অল দ্য ভেরি বেস্ট।’


সৃজিত মুখোপাধ্যায় একাধারে একজন চলচ্চিত্র পরিচালক, চিত্রনাট্যকার, অভিনেতা, গীতিকার ও অনুষ্ঠান সঞ্চালক। সেই সাথে অর্থনীতিবিদ কিংবা পরিসংখ্যানবিদ বললেও ভুল হবে না। অর্থনীতিতে এম.ফিল ও পিএইচডি করা সৃজিত মুখোপাধ্যায় এ মুহূর্তে পশ্চিমবঙ্গের সেরা পরিচালকদের একজন।
২০১০ সালে বাণিজ্যিকভাবে সফল ও সমালোচকদের কাছে প্রশংসিত ‘অটোগ্রাফ’ চলচ্চিত্রের মাধ্যমে তার সাথে সবার পরিচিতি হয়। এরপর ৮ বছরে ১২টি চলচ্চিত্র নির্মাণ করেন, যার মধ্যে ‘বাইশে শ্রাবণ’, ‘হেমলক সোসাইটি’, ‘জাতিস্মর’, ‘চতুষ্কোণ’, ‘রাজকাহিনী’, ‘উমা’ মুগ্ধ করে দুই বাংলার চলচ্চিত্রপ্রেমীদের। তিনি পরিচালনা করেন বিদ্যা বালানকে নিয়ে ‘রাজকাহিনী’র হিন্দি রিমেক ‘বেগম জান’ও। ‘চতুষ্কোণ’-এর জন্য সেরা পরিচালক এবং চিত্রনাট্যকার হিসেবে ভারতের রাষ্ট্রীয় পুরস্কার জেতা এই গুণী নির্মাতার ‘রাজকাহিনী’ এবং মুক্তি প্রতীক্ষিত ‘এক যে ছিল রাজা’ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন বাংলাদেশের জয়া আহসান।
আসছে ১২ অক্টোবর পশ্চিমবঙ্গে মুক্তি পাবে সৃজিত-জয়ার ‘এক যে ছিল রাজা’। আর তার পরের সপ্তাহে ১৯ অক্টোবর বাংলাদেশে মুক্তি পাচ্ছে চঞ্চল চৌধুরী-জয়া আহসানের ‘দেবী’।
এদিকে ‘দেবী’ নিয়ে সৃজিতের এই ভিডিও বার্তার জবাবে জয়া আহসান ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘‘নিশ্চয়ই ‘এক যে ছিল রাজা’ নতুন করে আমাদের মুগ্ধ করবে। ভাওয়াল রাজার পর্দা চিত্রায়ণ আমাদের ভাবিয়ে তুলবে। আপনার জন্য, আপনার চলচ্চিত্রের জন্য, ‘দেবী’ পরিবারের পক্ষ থেকে রইলো অনেক অনেক ভালোবাসা, শুভেচ্ছা।’’

/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ