২০১৯: প্রত্যাশা ও ইশতেহার ‘নাটকের ন্যূনতম বাজেট ঘোষণা করা হোক’

Send
ওয়ালিউল বিশ্বাস
প্রকাশিত : ১৪:৪০, জানুয়ারি ০১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:০০, জানুয়ারি ০১, ২০১৯

চঞ্চল চৌধুরী। ছবি- সংগৃহীতনতুন সরকারের কাছে তারকাদের কিছু প্রত্যাশা থাকা দরকার। একইভাবে শিল্পী হিসেবে তাদের ভক্তদের কাছেও নতুন বছরের একটা ইশতেহার দেওয়া দরকার। দুটো বিষয় নিয়ে বাংলা ট্রিবিউন আলাপ করার চেষ্টা করেছে অনেকের সঙ্গে।

চঞ্চল চৌধুরী; দেশের সবচেয়ে প্রশংসিত চিত্র অভিনেতা। বহু জনপ্রিয় নাটকেও অভিনয় করে আসছেন। নতুন বছরের এই দুই শিল্প মাধ্যম নিয়ে কথা বললেন তিনি।

চাইলেন, টেলিভিশনের জন্য সুনির্দিষ্ট নীতিমালা। এই দুটি মাধ্যমে যোগ্যরা কাজের সুযোগ পাক- এই আশাবাদ তার।

চঞ্চল চৌধুরীর ভাষ্য, ‘এই মিডিয়াতে (টেলিভিশন-সিনে ইন্ডাস্ট্রি) একটা পেশাদারিত্বের জায়গা চাই। যেটুকু ছিল তাও নষ্ট হয়ে গেছে। আমাদের টেলিভিশনে কোনও নীতিমালা নেই। এটা দরকার। আমরা যেভাবে খুশি নাটক বানাচ্ছি, যেভাবে খুশি তা প্রচারের ব্যবস্থা করছি।
কোন কোয়ালিটির নির্মাণ প্রচার উচিত বা উচিত নয়, তার বাছ-বিচার না করেই প্রচার করছি। আবার ভালো নির্মাতা কাজ পচ্ছেন না। অথচ অযোগ্য কিছু কিছু লোক জায়গা দখল করছেন। আর দর্শকেদের দিনকে দিন টেলিভিশন থেকে সরিয়ে দিচ্ছে। এর মধ্যে মধ্যস্বত্বভোগী কিছু লোক ঢুকে নাটকের বরাদ্দ যা থাকে কমিয়ে দেয়। সরাসরি নাটকের জন্য যা বরাদ্দ থাকে ফাইনালি পরিচালক তা পায় না। এত অল্প টাকা নির্মাতা তখন পায় যা, দিয়ে ভালো কিছু নির্মাণ করা সম্ভব নয়।’
তিনি আরও যোগ করে বলেন, ‘এই সমস্যাগুলো আমরা বছরের পর বছর ফেস করছি। এবং তা ক্রমাগত বাড়ছে। আমি চাই, নতুন বছরে নীতিমালার মাধ্যমে কাজ হয়। অভিজ্ঞ, দক্ষ নির্মাতা ও শিল্পীরা যেন এখানে কাজ করার সুযোগ পায়। এবং নাটকের জন্য যেন বাজেট নির্ধারণ করা হয়। যেন ন্যূনতম একটা বাজেটের নিচে নাটক নির্মাণের টাকা না দেওয়া হয়। ইতোমধ্যে আমাদের নাট্য সংগঠনগুলো এটা নিয়ে কাজ করছে। আশা করি, এগুলো প্রতিষ্ঠিত হবে। আমি চাই, এই নীতিমালাগুলো সরকার দ্রুত বাস্তবায়ন করুক।’

/এম/

লাইভ

টপ