বাবা-মায়ের কবরের পাশে শায়িত হলেন টেলি সামাদ

Send
মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি
প্রকাশিত : ১৯:০৪, এপ্রিল ০৭, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:২০, এপ্রিল ০৭, ২০১৯

টেলি সাদাদ ও কবরমুন্সীগঞ্জের নয়াগাঁওয়ে পারিবারিক কবরস্থানে বাবা-মায়ের কবরের পাশেই চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন অভিনেতা টেলি সামাদ। আজ (৭ এপ্রিল) বিকাল ৫টা ৪০ মিনিটে তার দাফন সম্পন্ন হয়েছে।



তার আগে ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ প্রাঙ্গণে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এতে অংশ নেন মরহুমের আত্মীয়-স্বজনসহ এলাকার স্থানীয় জনগণ। বিকাল সাড়ে ৩টায় লাশ বহনকারী প্রতিষ্ঠান প্রাঙ্গণে প্রবেশ করে। টেলি সামাদের মরদেহ দেখতে তখন স্কুলের শিক্ষার্থীরাসহ স্থানীয়রা ভিড় করেন।

টেলি সামাদকে শ্রদ্ধা জানাতে আসেন- জেলা প্রশাসক সায়লা ফারজানা, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগ সভাপতি মোহাম্মদ মহিউদ্দিন, সরকারি হরগঙ্গা কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল হাই তালুকদার, প্রেসিডেন্ট প্রফেসর ড. ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল অ্যান্ড কলেজ অধ্যক্ষ মেজর মোঃ শরীফ উজ্জামান, সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আনিস উজ্জামান আনিস, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি মতিউল ইসলাম হিরু, সভ্যতার আলো পত্রিকার সম্পাদক মীর নাসির উদ্দিন উজ্জ্বল, মুন্সীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি রাসেল মাহমুদ, সাধারণ সম্পাদক ভবতোষ চৌধুরী নূপুর প্রমুখ।মুন্সীগঞ্জের জানাজা। ছবি- তানজিল হাসান

এর আগে বিএফডিসিসহ ঢাকায় চারটি জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।
প্রসঙ্গত, চার দশকের জনপ্রিয় অভিনেতা টেলি সামাদ ৬ এপ্রিল বেলা ১টা ৩০ মিনিটের দিকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।
মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। টেলি সামাদের চার ছেলেমেয়ে। দুই মেয়ের নাম কাকলি ও বিন্দু। দুই ছেলে সুমন ও দিগন্ত। এরমধ্যে বড় ছেলে সুমন থাকেন যুক্তরাষ্ট্রে।
টেলি সামাদের জন্ম ১৯৪৫ সালের ৮ জানুয়ারি মুন্সীগঞ্জের নয়াগাঁও গ্রামে। তার আসল নাম আবদুস সামাদ হলেও সিনেমায় এসে হয়ে যান টেলি সামাদ।
তিনি পড়াশোনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলায়। সংগীতেও রয়েছে এই গুণী অভিনেতার পারদর্শিতা। ‘মনা পাগলা’ ছবির সংগীত পরিচালনা করেছেন তিনি। নজরুল ইসলামের পরিচালনায় ১৯৭৩ সালের দিকে ‘কার বৌ’ চলচ্চিত্রের মধ্য দিয়ে এই অঙ্গনে পা রাখেন তিনি। তবে দর্শকের কাছে যে ছবিটির মাধ্যমে সর্বাধিক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন সেটি হলো ‘পায়ে চলার পথ’।
অভিনয়ের বাইরে ৫০টির বেশি চলচ্চিত্রে তিনি গানও গেয়েছেন। অভিনয় করেছেন প্রায় ছয়শ চলচ্চিত্রে। যদিও এই অভিনেতার আজীবন আক্ষেপ ছিল জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার না পাওয়ার কারণে। ২০১৫ সালে টেলি সামাদ অভিনীত সর্বশেষ ছবি মুক্তি পায় অনিমেষ আইচের ‘জিরো ডিগ্রী’।

 

/এম/

লাইভ

টপ