তারা চাইলে ‘এলআরবি’ নামে গান করতে পারেন: তাজোয়ার আইয়ুব

Send
বিনোদন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২১:২৪, এপ্রিল ১৬, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:২৪, এপ্রিল ১৭, ২০১৯

তাজোয়ার (বামে), মাঝে তার বিবৃতি এবং ডানে আইয়ুব বাচ্চুদেশের শীর্ষ ব্যান্ড ‘এলআরবি’র সঙ্গে গত ৫ এপ্রিল যুক্ত হন সংগীতশিল্পী বালাম। তার এই অন্তর্ভুক্তি নিয়ে চলছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। আইয়ুব বাচ্চুর ভক্তরা কোনোভাবেই দলটির মূল ভোকাল হিসেবে মেনে নিতে পারছেন না বালামকে।
সেই আগুনের উত্তাপে ঘি ঢেলে দিলো গত ১৪ এপ্রিল মধ্যরাতে সংগীতভিত্তিক টিভি চ্যানেল গানবাংলার আয়োজনে ‘বালাম অ্যান্ড দ্য লিগ্যাসি’ ব্যান্ডের অভিষেক অনুষ্ঠান। সেখানে এলআরবি’র গিটারিস্ট আবদুল্লাহ আল মাসুদ জানালেন, ‘‘এখন থেকে ‘বালাম অ্যান্ড দ্য লিগ্যাসি’ নামে মঞ্চে আসবেন তারা! ব্যবহার করা হবে না ‘এলআরবি’ নামটি।’’
কারণটা মাসুদ ব্যাখ্যা করলেন এভাবে, ‘এলআরবি ব্যান্ডের প্রাণপুরুষ আইয়ুব বাচ্চুর প্রতি পূর্ণ শ্রদ্ধা ও সম্মান রেখে তার স্মৃতিকে অম্লান রাখতে আমরা কাজ করে যেতে চাই। তাই এতে বালামকে যুক্ত করা। কিন্তু প্রয়াত আইয়ুব বাচ্চুর পরিবারের সদস্যরা এলআরবি নামটি ব্যবহার না করার জন্য আমাদের কাছে বিশেষ অনুরোধ জানিয়েছেন। বসের পরিবারের প্রতি সম্মান জানিয়ে আমরা নামটি আর ব্যবহার করবো না। এখন থেকে আমরা বালাম অ্যান্ড দ্য লিগ্যাসি নামে সংগীত পরিবেশন করবো।’

গানবাংলার অনুষ্ঠানে এলআরবি’র গানগুলোই পরিবেশন করেন তারা। এ সময় তাদের সামনে অতিথি হিসেবে হাজির ছিলেন দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পীরা।
‘এলআরবি’র নাম পাল্টে ‘বালাম অ্যান্ড দ্য লিগ্যাসি’ নামে সামনে আসার পর থেকেই যেন গোটা দেশের সংগীতপ্রিয়রা ফুঁসে ওঠেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় এর প্রতিবাদে ঝড় ওঠে। অনেকেই এজন্য আইয়ুব বাচ্চুর স্ত্রী ও দুই সন্তানকে দোষারোপ করেন।
বালাম অ্যান্ড দ্য লিগ্যাসিতবে এমন ঘটনার একদিনের মাথায় আইয়ুব বাচ্চুর একমাত্র ছেলে আহনাফ তাজোয়ার আইয়ুব স্পষ্ট ভাষায় জানালেন, এলআরবি নাম নিয়ে তার ও তার পরিবারের কোনও আপত্তি নেই।
তার ভাষ্যটি বেশ পরিষ্কার, ‘এলআরবি অথবা বালাম অ্যান্ড দ্য লিগ্যাসি (তারা এখন এই নামে গান করতে চাইছেন) সদস্যদের বলতে চাই, তারা চাইলে এলআরবি নামে গান করতে পারেন। এ নিয়ে আমাদের কোনও বাধা নেই। প্রাথমিকভাবে (গত ৫ এপ্রিল) তারা যেভাবে এলআরবি নামে গান করতে চেয়েছিলেন, সেভাবেই গান-বাজনা চালিয়ে যেতে পারেন। তাদের জন্য শুভকামনা রইলো। আশা করি তারা সফল হবেন ও বাবার সংগীতকে নিয়ে এগিয়ে যাবেন। আমার চাওয়া, এলআরবি সব সাফল্য অর্জন করবে।’
ব্যান্ডের দুই সদস্য ড্রামার রোমেল ও গিটারিস্ট মাসুদকে ট্যাগ করে লেখা বিস্তারিত এই বিবৃতিতে আইয়ুব বাচ্চুর ভক্তদের উদ্দেশে কানাডা প্রবাসী তাজোয়ার বলেন, ‘জানি, বাবা আমার ব্যক্তিগত সম্পত্তি না। জানি, তিনি আমার বোনেরও ব্যক্তিগত সম্পত্তি নন। তিনি দেশের সম্পদ ছিলেন, আছেন ও থাকবেন। প্রত্যেকে তাকে গানের মাধ্যমে মনে রাখবেন।
আমার পরিবার ও আমি এলআরবি সদস্যদের শুধু বলেছিলাম, তারা চাইলে অন্য ব্যান্ডের হয়ে গান করে যেতে পারেন। সেক্ষেত্রে বাবার সারা জীবনের কাজগুলো বেঁচে থাকবে। তিনি এ পৃথিবী ছেড়ে যাওয়ার দিন থেকে আমার কাছে এলআরবি বলে কিছু নেই। তার মানে এই নয় যে, তার সংগীতের গুরুত্বও আমার কাছে ফুরিয়ে গেছে।’
আইয়ুব বাচ্চুর পরিবারের আপত্তির কারণে ‘এলআরবি’ নাম বদলে ‘বালাম অ্যান্ড দ্য লিগ্যাসি’ হয়ে গেছে! এমন অভিযোগের জবাবে তাজোয়ার বলেন, ‘এক হাতে তিনি (আইয়ুব বাচ্চু) ব্যান্ডটি গড়ে তুলেছিলেন। শিল্পী হিসেবে তার কোনও বিকল্প হয় না। তার ১০০ ভাগের ১ ভাগ মানুষও যদি হতে পারতাম তাহলে নিজেকে ভাগ্যবান মনে হতো। তাই তার জায়গায় কাউকে বসানো আমার পক্ষে খুব কঠিন। আমরা সবাই (পরিবারের সদস্যরা) এটাই বলতে চেয়েছি। কিন্তু আমাদের অনুরোধ পুরোপুরি অন্যকিছুতে রূপ নিয়েছে!’
আইয়ুব বাচ্চুর ভক্তদের কটু মন্তব্যের জবাবে তাজোয়ার বললেন, ‘‘আমি দেখছি, মানুষ আমার মা ও বোনকে মৃত্যুর হুমকি পর্যন্ত দিচ্ছেন। মানুষের হাজারও মন্তব্যের মধ্যে অন্যতম, ‘আইয়ুব বাচ্চু আমার সম্পত্তি নয়, বরং তিনি দেশের সম্পদ।’ অবশ্যই। কিন্তু দিনশেষে তিনি আমার বাবা। তারা যদি তা মানতে নাও চান, তবুও এটাই সত্যি। আমি তারই রক্ত।’’
তাজোয়ারের প্রত্যাশা, ‘আশা করি তাদের মন থেকে আমাদের নিয়ে ঘৃণা কমে আসবে। আপনারা চাইলে আমাকে আরও গাল দিতে পারেন, এটা কোনও ব্যাপার না। কারণ, এসবের মধ্যে মূল কষ্টটা হলো, যখন বুঝি আমার পাশে দাঁড়ানোর জন্য বাবা এখন আর নেই।’
সবশেষে তাজোয়ার কথা বলেন আইয়ুব বাচ্চুর ফেসবুক প্রোফাইল নিয়ে। যেটি সম্প্রতি ডিঅ্যাক্টিভেট হয়েছে। এ নিয়েও ভক্তদের তোপের মুখে পড়তে হয়েছে তাজোয়ার ও তার পরিবারের সদস্যদের। এ প্রসঙ্গে তাজোয়ার সমালোচকদের প্রতি একটা প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন, ‘বাবার ফেসবুক প্রোফাইল শাটডাউন করায় যারা আমার বোন ও আমাকে দোষারোপ করছেন, তাদের কাছে এটুকই জানতে চাই—প্রতি রাতে ঘুমানোর আগে আপনার বাবার ভয়েস মেসেজ শোনা যায় যে মাধ্যমে সেটা কি শাটডাউন করতে পারতেন?’
জানা গেছে, আইয়ুব বাচ্চুর ফেসবুক প্রোফাইলটি সম্প্রতি হ্যাক হয়েছে।
এদিকে মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) দুপুরে দেওয়া তাজোয়ারের এই বিবৃতির প্রতিক্রিয়ায় এলআরবি’র সবচেয়ে পুরনো সদস্য সাইদুল হাসান স্বপন বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘আমার আসলে বলার কিছু নেই। গত বছরের ১৮ অক্টোবর (আইয়ুব বাচ্চুর মৃত্যুর দিন) থেকে আমি দর্শকের ভূমিকা পালন করছি। সব উপরওয়ালার ইচ্ছে।’
আইয়ুব বাচ্চু ও এলআরবি’র সদস্যরাঅন্যদিকে তাজোয়ারের এমন স্পষ্ট বিবৃতির পর এলআরবি নামে ব্যান্ড পরিচালনায় আর কোনও বাধা থাকলো না। তবে কি ‘বালাম অ্যান্ড দ্য লিগ্যাসি’ নামটি থেকে সরে আসবেন সংশ্লিষ্টরা? এমন প্রশ্নের জবাব পাওয়া যায়নি গানবাংলা টিভির প্রধান কর্তা সংগীতশিল্পী কৌশিক হোসেন তাপসের কাছেও। বলে রাখা সঙ্গত, আইয়ুব বাচ্চুর অকাল প্রস্থানের পর এলআরবি’কে মঞ্চে সচল করার জন্য বেশ কয়েকবার উদ্যোগ নিয়েছেন তিনি। যার সর্বশেষ সংস্করণ বালাম অ্যান্ড দ্য লিগ্যাসি।
প্রসঙ্গত, উচ্চশিক্ষার জন্য আহনাফ তাজোয়ার আইয়ুব এখন কানাডায় অবস্থান করছেন। ইউনিভার্সিটি অব ব্রিটিশ কলাম্বিয়ায় পড়াশোনা করছেন তিনি।

/জেএইচ/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ