তৈরি হলো ‘একজন লাকী আখন্দ’

Send
বিনোদন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৪:২৪, এপ্রিল ২১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৫৮, এপ্রিল ২১, ২০১৯

রেকর্ডিংয়ে শিল্পীরা২০১৭ সালের এই দিনে (২১ এপ্রিল) নন্দিত সংগীতশিল্পী-মুক্তিযোদ্ধা লাকী আখন্দ না ফেরার দেশে চলে যান। তাঁকে স্মরণ করে কিংবা ভালোবাসার দায় মেটাতে বিশেষ একটি উদ্যোগ নিয়েছেন পার্থিব ব্যান্ডের আশফাকুল বারী রুমন। তৈরি করেছেন গান।
‘একজন লাকী আখন্দ’ নামের এই গানটিতে রুমন ছাড়াও কণ্ঠ দিয়েছেন ফিডব্যাকের ফোয়াদ নাসের বাবু, লাবু রহমান ও লুমিন। আরও দিয়েছেন পার্থিব ব্যান্ডের রনি, পেন্টাগনের সুমন এবং একক শিল্পী সুজন আরিফ, রমা ও আর্নিক।
শেখ রানার কথায়, রুমনের সুরে গানটির সংগীতায়োজন করেছেন ফোয়াদ নাসের বাবু।
গানটির উদ্যোক্তা আশফাকুল বারী রুমন জানান, গত দুইদিন ধরে রেকর্ডিং ও ভিডিও ধারণের কাজ চলছে ফোয়াদ নাসের বাবুর স্টুডিওতে।
লাকী আখন্দের সৃষ্টি কিছু গানের রেশ ধরে লেখা হয়েছে গানটি। কথাগুলো এমন—

আবার কোনও সন্ধ্যা হাওয়ায় দুজন
অজানাতে ঘুরে আসার সুরে
ভালোবাসার সহস্র সব কথালাকী আখন্দ
পিয়ানোতে বাঁধছে ঘুরে ঘুরে।
নীল মণিহার তোমার জন্য বন্ধু
স্বর্ণালি দিন, মনে রাখার দুপুর
স্বাধীনতার গান, বেঁধেছ মনে
বাংলাদেশের বৃষ্টি আকাশ উপুড়।।
প্রহরগুলো কবিতাতে আঁকা
রাতের আছে নীরবতা, ছায়া
একটা মানুষ,  সুর ধরছে একা
অলক্ষ্যে তার অপরূপ মায়া।
নীল মণিহার তোমার জন্য বন্ধু
স্বর্ণালি দিন, মনে রাখার দুপুর
স্বাধীনতার গান, বেঁধেছ মনে
বাংলাদেশের বৃষ্টি আকাশ উপুড়।।
কিংবা ধরো, মামনিয়ার খুশি
ছুঁয়ে গেল সবার হৃদয় কোণে
লাকী আখন্দ, সেই মানুষের নাম
সুরের খেয়ায় আনন্দ বিজনে।
নীল মণিহার তোমার জন্য বন্ধু
স্বর্ণালি দিন, মনে রাখার দুপুর
স্বাধীনতার গান, বেঁধেছ মনে
বাংলাদেশের বৃষ্টি আকাশ উপুড়।।

গানটি তৈরি প্রসঙ্গে রুমন বাংলা ট্রিবিউনের কাছে বলেন, ‘আসলে লাকী ভাইয়ের প্রতি আমাদের প্রেম কিংবা সম্মানের বিষয়টিও তো নতুন করে প্রকাশের কিছু নেই। তাঁদের গড়ে দেওয়া পথটাতেই আমরা হাঁটছি। আফসোস শুধু এটুকু, এই গানটি লাকী ভাই শুনে যেতে পারেননি।’
রুমন জানান, ২০১৭ সালে লাকী আখন্দ যখন বেশ অসুস্থ তখন গীতিকার শেখ রানা গানের লাইনগুলো ফেসবুকে পোস্ট করেন। সেটি দেখে গান তৈরির আগ্রহ দেখান রুমন। সুরও করেন। একদিন লাকী আখন্দকে হাসপাতালে দেখতে গিয়ে গানটি প্রসঙ্গে বলেও আসেন। যদিও গানটি পূর্ণ প্রাণ পাওয়ার আগেই বিদায় নেন লাকী আখন্দ।রেকর্ডিংয়ে শিল্পীরামূলত ২০১৭ সালে উদ্যোগ নেওয়া সেই গানটি এবার প্রাণ পাচ্ছে। আজ (২১ এপ্রিল) পবিত্র শবে বরাতের কারণে এটি প্রকাশ করছেন না সংশ্লিষ্টরা। রুমন জানান, কাল ২২ এপ্রিল গান-ভিডিওটি প্রকাশ করা হবে অন্তর্জালের বিভিন্ন মাধ্যমে।  
এদিকে গানটি প্রসঙ্গে এর অন্যতম শিল্পী সুজন আরিফ বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘লাকী ভাইয়ের প্রতি শ্রদ্ধা আর ভালোবাসা প্রকাশের একটা সুযোগ পেলাম এই গানটির অংশ হয়ে। গানটিতে কণ্ঠ দিতে হবে—এমন প্রস্তাব পাওয়ার পর আমরা প্রত্যেকেই বিনাবাক্যে ছুটে যাই। অসাধারণ একটা কাজ হয়েছে। সিনিয়রদের প্রতি আমাদের এই শ্রদ্ধা আর মমত্ববোধ বেঁচে থাক।’
লাকী আখন্দ আধুনিক বাংলা সংগীতের খ্যাতিমান শিল্পী, সুরকার ও সংগীত পরিচালক। তাঁর জন্ম ১৯৫৬ সালের ১৮ জুন। ৫ বছর বয়সেই তিনি তার বাবার কাছ থেকে সংগীত বিষয়ে হাতেখড়ি নেন। শৈশব কেটেছে ঐতিহ্যবাহী পুরান ঢাকার পাতলা খান লেনে। মাত্র চৌদ্দ বছর বয়সে এইচএমভি পাকিস্তানে সুরকার হিসেবে তালিকাভুক্ত হন। সুরকার হিসেবে আরও কাজ করেছেন এইচএমভি ভারত এবং স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রেও।
রেকর্ডিংয়ে শিল্পীরাস্বাধীনতার পর পর নতুন উদ্যমে বাংলা গান নিয়ে কাজ শুরু করেন। তার নিজের সুর করা গানের সংখ্যা দেড় হাজারেরও বেশি। শিল্পীর সহোদর ক্ষণজন্মা হ্যাপী আখন্দের সাথে ছিল তার আত্মার সম্পর্ক। দুজনের যৌথ প্রয়াসে সূচিত হয়েছিলো বাংলা গানের এক নতুন ধারা।
লাকী আখন্দের উল্লেখযোগ্য গানের মধ্যে রয়েছে—‘এই নীল মণিহার’, ‘আমায় ডেকো না’, ‘কবিতা পড়ার প্রহর এসেছে’, ‘যেখানে সীমান্ত তোমার’, ‘মামনিয়া, ‘বিতৃষ্ণা জীবনে আমার’, ‘কি করে বললে তুমি’, ‘লিখতে পারি না কোনও গান’, ‘ভালোবেসে চলে যেও না’ প্রভৃতি।

/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ