লালগালিচায় দাঁড়িয়ে বোমা নিক্ষেপ বন্ধ করার আহ্বান

Send
জনি হক, কান (ফ্রান্স) থেকে
প্রকাশিত : ২০:৪২, মে ১৬, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৫৮, মে ১৭, ২০১৯

কান উৎসবের পরিচালক থিয়েরি ফ্রেমোর পাশে (বাঁ থেকে) এডওয়ার্ড ওয়াটস, ওয়াদ আল কাতিব ও হামজা আল কাতিবকানে এখন সূর্য ডুবে রাত ৯টায়! বুধবারও (১৫ মে) ব্যতিক্রম হয়নি। পালে দে ফেস্তিভাল ভবনের গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে এদিন রাত ১০টায় ছিল ব্রাজিলিয়ান দুই নির্মাতা ক্লেবার মেনদোসা ফিলো ও জুলিয়ানো দোরনেলিস পরিচালিত ‘বাকুরাউ’।
এ উপলক্ষে ছিল লালগালিচা। অনেকে পা মাড়িয়েছেন সেখানে।
আলাদাভাবে দৃষ্টি কেড়েছেন সিরিয়ার নারী নির্মাতা ওয়াদ আল কাতিব, চিকিৎসক হামজা আল কাতিব ও ব্রিটিশ পরিচালক ‌এডওয়ার্ড ওয়াটস। তারা আলাদা তিনটি কাগজে একটি আহ্বান জানিয়েছেন।
এডওয়ার্ড ওয়াটসের হাতে ছিল ‘স্টপ’। ওয়াদ আল কাতিব দেখিয়েছেন ‘বোম্বিং’। তার স্বামী হামজার দুই হাত উঁচু করে দেখানো কাগজে লেখা ‘হসপিটালস’। তিনটি শব্দকে একত্র করলে দাঁড়ায় ‘স্টপ বোম্বিং হসপিটালস’, অর্থাৎ হাসপাতালে বোমা নিক্ষেপ বন্ধ করুন।
ফটোকলে ওয়াদ আল কাতিবসিরিয়ার আলেপ্পো শহরের হাসপাতালে বোমা নিক্ষেপের কারণে অসংখ্য প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। এর প্রতিবাদে তিনজন মিলে এই আহ্বান ছড়িয়ে দিলেন উৎসবের লালগালিচায় দাঁড়িয়ে।  
গালিচায় হাঁটার আগে বুধবার সন্ধ্যা পৌনে ৭টায় সাল দ্যু সোসানতিয়েমে ছিল স্পেশাল স্ক্রিনিং বিভাগে প্রদর্শিত ‘ফর সামা’। বৃহস্পতিবার (১৬ মে) দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে একই ভেন্যুতে আবারও এর প্রদর্শনী হয়েছে। এদিন ফটোকলে আসেন দুই পরিচালক ও চিকিৎসক।
প্রামাণ্যচিত্রটি মূলত সাংবাদিক মনোভাব নিয়ে চলা ওয়াদের নিজের জীবনের পাঁচ বছরের ঘটনার উল্লেখযোগ্য অংশ। শহরের শেষ কয়েকজন চিকিৎসকের মধ্যে একজনকে জীবনসঙ্গী করেন তিনি। সামা হলো তাদের মেয়ে। প্রামাণ্যচিত্রটি অনেকটা এই শিশুর চিঠি। যুদ্ধবিধ্বস্ত পরিবেশে সে কীভাবে জন্ম নিলো ও তার ঘরে কেমন পরিস্থিতি ছিল তা নিয়ে সাজানো হয়েছে ছবিটি।
এবারের উৎসবে সেরা পাঁচ উঠতি প্রতিভাবানের তালিকায় সবার ওপরে আছে ওয়াদের নাম। তিনি এখন লন্ডনে থাকেন। ২০১৭ সালে ব্রিটেনের চ্যানেল ফোর নিউজের জন্য তার বানানো একটি প্রতিবেদন এমি অ্যাওয়ার্ড জেতে। সিরিয়া যুদ্ধ নিয়ে সবচেয়ে বেশি দেখা প্রতিবেদন এটাই।
(বাঁ থেকে) এডওয়ার্ড ওয়াটস, ওয়াদ আল কাতিব ও হামজা আল কাতিব (2)আলেপ্পোর শেষ হাসপাতালে শিশু-কিশোরদের বাঁচাতে সংশ্লিষ্টদের লড়াই ক্যামেরায় ধারণ করেন ওয়াদ। তার এই প্রামাণ্যচিত্রকে সিরিয়ার সংকটকালীন গোপন ডায়েরি বলা যেতে পারে। যুদ্ধ ও মাতৃত্বের নিবিড় প্রতিকৃতি হিসেবে এটি সাজিয়েছেন তিনি। একসময় তার মনে হতো, বোমায় হয়তো বাঁচবেন না। তাই মেয়ের জন্য ভয়েস রেকর্ড করে রাখতেন। তার একটি কথা ছিল এমন, মেয়ের জীবন বাঁচাতে আলেপ্পো ছেড়ে দেবেন নাকি যে স্বাধীনতার জন্য অনেক ত্যাগ স্বীকার করেছেন সেই আশায় থাকবেন।
‘ফর সামা’ ওয়াদ আল কাতিব ও এডওয়ার্ড ওয়াটসের প্রথম প্রামাণ্যচিত্র। তাই প্রতিযোগিতা বিভাগের বাইরে প্রদর্শিত হলেও ক্যামেরা দ’র পুরস্কারের জন্য বিবেচিত হচ্ছেন এই দু’জন। যেকোনও পরিচালকের প্রথম নির্মাণের ওপর ভিত্তি করে এটি দেওয়া হয়।

/এমএম/এমওএফ/

লাইভ

টপ