কানসৈকতে প্রতিবাদের মিছিল

Send
বিনোদন রিপোর্ট, কান (ফ্রান্স) থেকে
প্রকাশিত : ১৯:২৪, মে ১৮, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৩৯, মে ১৮, ২০১৯

কলম্বিয়ান নির্মাতা মরিসিও লেজামাকে খুনের প্রতিবাদকান চলচ্চিত্র উৎসবের দিকে তামাম দুনিয়ার নজর থাকে। তাই এই আয়োজনকে প্রতিবাদ জানানোর হাতিয়ার হিসেবেও বেছে নেওয়া হয়। যেমন ইউক্রেনের চলচ্চিত্রকার ওলেগ সেন্তসভ রাশিয়ায় বন্দিজীবন কাটাচ্ছেন। তার মুক্তির দাবি জানিয়েছে দেশটির সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়। কান উৎসবের বাণিজ্যিক শাখা ভিলেজ ইন্টারন্যাশনালে ইউক্রেনিয়ান পার্টির সময় এই আহ্বান জানানো হয়।
ওলেগ সেন্তসেভকে মুক্তির দেওয়া আহ্বানলালগালিচায় কলম্বিয়ায় প্রামাণ্যচিত্র নির্মাতা মরিসিও লেজামাকে খুনের প্রতিবাদ জানান দেশটির নির্মাতা সিরো গুয়েরা ও ফ্রাঙ্কো ললি, চিত্রনাট্যকার ক্যারোলিনা স্যানিন। স্প্যানিশ ভাষায় প্ল্যাকার্ডে প্রতিবাদের কথা লিখে তুলে ধরেন তারা। একইসঙ্গে বিচার ও শান্তি চেয়েছেন মরিসিওর সতীর্থরা। তাদের হাতে আরও ছিল নিহতের ছবি।
এদিকে শুক্রবার (১৭ মে) উৎসবের চতুর্থ দিনেও সকাল থেকে মাঝরাত অবধি বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের নতুন নতুন ছবির প্রদর্শনী হয়েছে।
লিটল জোপ্রতিযোগিতা বিভাগ
গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে বিকাল সাড়ে ৪টায় অস্ট্রিয়ান নারী নির্মাতা জেসিকা হজনারের ‘লিটল জো’। এর গল্পে দেখা যায়, একাকী মা অ্যালিস একটি সংস্থার উদ্ভিদ বিভাগে কাজ করে। তার তত্ত্বাবধানে একটি বিশেষ ফুলের চারা আবিষ্কার হয়। প্রতিষ্ঠানের নীতিবিরোধী হলেও নিজের ছেলে জো’র জন্য একটি চারা উপহার হিসেবে নিয়ে যায় অ্যালিস। তারা এর নাম রাখে ‘লিটল জো’। কিন্তু এটি বেড়ে ওঠার সঙ্গে অ্যালিসের মধ্যে সংশয় হতে থাকে, তার নতুন সৃষ্টি না আবার ক্ষতিকর হয়ে ওঠে। বিকাল পৌনে ৫টা ও রাত ১০টায় সাল বাজিনে সাংবাদিকদের দেখানো হয় ছবিটি।
গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়ের ও সাল বাজিনে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় ছিল পেদ্রো আলমোদোভারের ‘পেইন অ্যান্ড গ্লোরি’র উদ্বোধনী প্রদর্শনী। এতে অভিনয় করেছেন অ্যান্টোনিও ব্যান্ডেরাস ও পেনেলোপি ক্রুজ। এর আগে সাল দুবুসিতে বিকাল সাড়ে ৫টায় সাংবাদিকদের দেখানো হয় ছবিটি।
আগের দিন প্রতিযোগিতা বিভাগে প্রিমিয়ার হওয়া ব্রিটিশ নির্মাতা কেন লোচের ‘সরি উই মিসড ইউ’ সকাল সাড়ে ৮টায় গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে ও রাত ১০টায় সাল দ্যু সোসানতিয়েমে, সেনেগালিজ বংশোদ্ভুত ফরাসি নারী নির্মাতা মাটি ডিওপের ‘আটলান্টিক’ সকাল সাড়ে ৮টায় সাল দ্যু সোসানতিয়েমে, দুপুর পৌনে ২টায় গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে ও রাত ১০টায় পালে দে ফেস্তিভাল ভবনের বাইরে অলিম্পিয়া প্রেক্ষাগৃহে আবারও দেখানো হয়।  
টু ওল্ড টু ডাই ইয়াং-নর্থ অব হলিউড, ওয়েস্ট অব হেলপ্রতিযোগিতা বিভাগের বাইরে
আউট অব কম্পিটিশনে শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টায় ছিল ডেনিশ নির্মাতা নিকোলাস উইন্ডিং রেফনের ‘টু ওল্ড টু ডাই ইয়াং-নর্থ অব হলিউড, ওয়েস্ট অব হেল’। এর গল্পে দেখা যায়, গোয়েন্দা মার্টিন জোন্স দ্বৈত জীবন কাটান। লস অ্যাঞ্জেলেসের মৃত্যুপুরীতে তাকে খুনি হিসেবে ভাড়া করা হয়। কিন্তু ভিগোর কারণে অস্তিত্ব সংকটে পড়ে সে। এই পরিস্থিতি তাকে নিয়ে যায় নিউ মেক্সিকোর মরুভূমিতে।
এর আগে রাত পৌনে ৮টায় সাল দ্যু সোসানতিয়েমে প্রদর্শিত হয়েছে চিলির পাত্রিসিও গাজম্যানের পরিবেশ বিষয়ক প্রামাণ্যচিত্র ‘দ্য করডিলেরা অব ড্রিমস’। আউট অব কম্পিটিশনে আগের দিন প্রিমিয়ার হওয়া ব্রিটিশ পরিচালক ডেক্সটার ফ্লেচারের ‘রকেটম্যান’ সকাল ১১টায় গ্র্যান্ড থিয়েটার লুমিয়েরে ও দুপুর ২টায় সাল দ্যু সোসানতিয়েমে আবারও প্রদর্শিত হয়। সাল বুনুয়েলে সকাল সোয়া ১১টায় সাংবাদিকদের দেখানো হয় বৃহস্পতিবার স্পেশাল স্ক্রিনিং হিসেবে প্রদর্শিত আলেন ক্যাভালিয়েরের প্রামাণ্যচিত্র ‘লিভিং অ্যান্ড নোইং ইউ আর অ্যালাইভ’।
দ্য ক্লাইম্বআঁ সার্তে রিগার
মার্কিন নির্মাতা মাইকেল অ্যাঞ্জেলো কভিনোর প্রথম ছবি ‘দ্য ক্লাইম্ব’ সকাল সাড়ে ৮টা ও রাত ৮টায় প্রদর্শিত হয়েছে। এর গল্প দুই বন্ধু কাইল ও মাইককে ঘিরে। কিন্তু কাইলের বাগদত্তার সঙ্গে মাইক রাত্রিযাপনের পর থেকে দৃশ্যপট বদলে যায়। পরিচালক নিজেই মাইক চরিত্রে অভিনয় করেছেন এতে।
ফরাসি নারী নির্মাতা মুনিয়া মেদুরের ‘পাপিশা’ ছিল সকাল ১১টা ও দুপুর ২টায়। এর প্রেক্ষাপট নব্বই দশকের আলজেরিয়া। অষ্টাদশী শিক্ষার্থী নেজমার আবেগ ফ্যাশন ডিজাইনিংয়ে। কিন্তু আলজেরিয়ান গৃহযুদ্ধের কারণে স্বাভাবিক জীবনযাপন করা হয় না তার। দেশটিতে সামাজিক পরিস্থিতি বেশ রক্ষণশীল হয়ে ওঠে। এ কারণে রাতে বন্ধু ওয়াসিলার সঙ্গে বাইরে যেতে পারে না মেয়েটি। স্বাধীনতার জন্য মুখিয়ে থাকা নেজমা সব নিষেধাজ্ঞাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে একটি ফ্যাশন শো আয়োজনের সিদ্ধান্ত নেয়। এ দুটি ছবির প্রদর্শনী হয় পালে দে ফেস্তিভাল ভবনের সাল দুবুসি থিয়েটারে।
পাপিশাএ বিভাগে উৎসবের তৃতীয় দিন প্রিমিয়ার হওয়া ফরাসি দুই নারী নির্মাতা জেবু ব্রেতমান ও ইলিয়া গোবি ম্যাভেলেকের অ্যানিমেটেড ছবি ‘দ্য শোয়ালোজ অব কাবুল’ দুপুর ২টায় সাল বাজিনে ও আর রুশ নির্মাতা কান্তেমির বালাগভের ‘বিনপোল’ সাল দ্যু সোসানতিয়েমে বিকাল পৌনে ৫টায় আবারও দেখানো হয়।
কান ক্ল্যাসিকস
পালে দে ফেস্তিভাল ভবনের সাল বুনুয়েল থিয়েটারে ধ্রুপদী ছবির এই আয়োজনে শুক্রবার দুপুর ২টায় হাঙ্গেরির পিটার বাচোর ‘দ্য উইটনেস’ (১৯৬৯), বিকাল সোয়া ৪টায় তিয়ান জুয়াঙজুয়াঙের ‘দ্য হর্স থিফ’ (১৯৮৬) ও দেখানো হয় সন্ধ্যা সোয়া ৬টায় জর্জিয়ার এলডার শেঙ্গেলায়ার ‘দ্য হোয়াইট ক্যারাভান’ (১৯৬৪)।
স্ট্যানলি কুব্রিকের ‘দ্য শাইনিং’ (১৯৮০) রাত পৌনে ১১টায় মিডনাইট স্ক্রিনিংয়ে উপস্থাপন করেন অস্কারজয়ী মেক্সিকান নির্মাতা আলফনসো কুয়ারন। এছাড়া রাত সোয়া ৮টায় ছিল আমেরিকার মিজ কস্টিনের প্রামাণ্যচিত্র ‘মেকিং ওয়েভস: দ্য আর্ট অব সিনেম্যাটিক সাউন্ড’। স্টিভেন স্পিলবার্গ, জর্জ লুকাস, রবার্ট রেডফোর্ড, ডেভিড লিঞ্চ, ক্রিস্টোফার নোলানসহ বিখ্যাত পরিচালকদের কাজ নিয়ে সাজানো হয়েছে এটি।  
জম্বি চাইল্ডডিরেক্টরস ফোর্টনাইট
ফরাসি চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি আয়োজিত ডিরেক্টরস ফোর্টনাইট কানের প্যারালাল বিভাগ। এতে উৎসবের চতুর্থ দিন সকাল পৌনে ৯টা ও রাত পৌনে ৮টায় প্রদর্শিত হয় ফরাসি নির্মাতা বার্ট্রান্ড বোনেলোর ‘জম্বি চাইল্ড’। দুপুর পৌনে ১২টা ও রাত সাড়ে ১০টায় ছিল তাকাশি মিকের ‘ফার্স্ট লাভ’। এছাড়া বিকাল পৌনে ৩টায় দেখানো হয় জারিস কারসাইটিস পরিচালিত ‘ওলেগ’। এছাড়া সন্ধ্যা পৌনে ৬টায় ছিল লুকা গুয়াদানিনোর ‘দ্য স্ট্যাগারিং গার্ল’ ছবির স্পেশাল স্ক্রিনিং। এসব ছবির প্রদর্শনী হয়েছে জেডব্লিউ ম্যারিয়ট হোটেলের থিয়েটার ক্রজেতে।
হিরোস ডোন্ট ডাইস্যুমেন দ্যু লা ক্রিতিক
চলচ্চিত্র সমালোচকদের আয়োজনে কানের এই প্যারালাল বিভাগে শুক্রবার পালে দে ফেস্তিভাল ভবনের সাল বুনুয়েলে সকাল সাড়ে ৮টায় ও হোটেল মিরামারে দুপুর আড়াইটা ও রাত ৮টায় ছিল ফরাসি নারী নির্মাতা অঁদ লেয়া রাপার ‘হিরোস ডোন্ট ডাই’। এর গল্পে দেখা যায়, প্যারিসের এক রাস্তায় এক আগন্তুকের মনে হতে থাকে, বসনিয়ায় মারা যাওয়া সৈনিক জোয়াকিম মনে করা হচ্ছে তাকে। সে ধরে নেয়, তার মধ্য দিয়ে জোয়াকিমের পুনর্জন্ম হয়েছে! তাই লোকটা দুই বন্ধু অ্যালিস ও ভার্জিনিকে নিয়ে যুদ্ধবিধ্বস্ত সারায়েভো যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। সেখানে তারা জোয়াকিমের অতীত জীবন আবিষ্কারের জন্য মনপ্রাণ ঢেলে দেয় তিনজন। এতে অভিনয় করেছেন ফরাসি অভিনেত্রী আদেল এনেল।
আই লস্ট মাই বডিহোটেল মিরামারে সকাল সাড়ে ১১টা, বিকাল সোয়া ৫টা ও রাত সোয়া ১০টায় ছিল ফরাসি নির্মাতা জেরেমি ক্ল্যাপার অ্যানিমেটেড ছবি ‘আই লস্ট মাই বডি’। একই ভেন্যুতে আগের দিন প্রিমিয়ার হওয়া হিনার পালমাসন পরিচালিত ‘অ্যা হোয়াইট, হোয়াইট ডে’ শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮টায় আবারও দেখানো হয়।
এসিড
কান উৎসবের আরেক প্যারালাল বিভাগ এসিডে আলেকসঁন্দ থ্রি থিয়েটারে শুক্রবার সকাল সাড়ে ১১টায় ‘সলো’, স্টুডিও থার্টিনে সকাল সাড়ে ১১টায় ও আর্কেডস প্রেক্ষাগৃহে রাত ৮টায় ‘বার্নিং গোস্ট’, আলেকসঁন্দ থ্রি থিয়েটারে দুপুর ২টায় ‘লাস ভেগাস’ ও বিকাল সাড়ে ৪টায় ছিল ‘ব্লাইন্ড স্পট’।

/জেএইচ/এমএম/

লাইভ

টপ