behind the news
Rehab ad on bangla tribune
Vision Refrigerator ad on bangla Tribune

ঢাকা ছাড়লেন আঁচল: আমি নোংরা রাজনীতির শিকার

মাহমুদ মানজুর১১:৩৫, জানুয়ারি ১২, ২০১৬

ঢাকার বনশ্রীর বাসা ছেড়ে গ্রামের বাড়ী খুলনার ডুমুরিয়ায় ফিরে গেছেন চিত্রনায়িকা আঁচল। ২০১১ সালে রাজু আহম্মেদ এর ‘ভুল’ এবং মাসুদ কায়নাতের ‘বেইলি রোড’ দিয়ে ভালোই চলচ্চিত্র যাত্রা হয় খুলনার এ অমিত সম্ভাবনাময়ীর। গেল পাঁচ বছরে প্রায় দেড় ডজন ছবিতে অভিনয় করেছেন তিনি। ঢাকাই ছবির ফিট নায়িকা হিসেবেও সফলতা কম নয় তার। বিশেষ করে বাপ্পীর সঙ্গে জুটি বেঁধে হাফ ডজন ছবিতে অভিনয় করেছেন আঁচল। এ জুটির ‘জটিল প্রেম’ ছবিটি বানিজ্যিক ভাবে দারুণ সফলতা পায় ২০১৩ সালে।

আঁচলআঁচলের সফলতা এবং সম্ভাবনায় তেমন কোনও ঘাটতি না থাকলেও অভিনয় ক্যারিয়ার নিয়ে হতাশায় ভুগছিলেন তিনি। জানা গেছে, চুক্তিবদ্ধ হওয়ার পরও ‘রাজাবাবু’, ‘বাদশা’ ও ‘মিশন আমেরিকা’ নামের পর পর তিনটি ছবি থেকে বাদ পড়েছেন আঁচল। শুধু বাদই পড়েননি, জানতে পারেননি এর কারণ, ফেরত দিতে হয়েছে তিন ছবি থেকে পাওয়া চুক্তি স্বাক্ষরের অগ্রিম টাকাও।    

খুলনা থেকে মুঠোফোনে আঁচল বলেন, ‘আমি আসলে গেল ছমাস ধরে প্রচন্ড হতাশায় ভুগছিলাম। কারণ, গেল ছমাসে নতুন কোনও ছবিতেই চুক্তিবদ্ধ হতে পারিনি। যে তিনটি ছবি হাতে ছিল, সেগুলোও হাতছাড়া হলো। ঢাকায় বেকার বসে বাসা ভাড়া দেওয়ার অবস্থাও নেই। ছোট ভাই এর পড়াশুনার খরচও মেটাতে পারছিলাম না। তাই মা ও ভাইকে নিয়ে গ্রামের বাড়ী ফিরে এলাম। এ ছাড়া আমার আর কোনও পথ খোলা ছিল না।’
নিজেকে নিয়ে প্রচন্ড হতাশ এবং ফিল্ম ইন্ডাষ্ট্রি নিয়ে ক্ষুব্ধ এ অভিনেত্রী আরও বলেন, ‘আমি ফিল্মের নোংরা রাজনীতির শিকার হয়েছি। একের পর এক ছবিতে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি; কিন্তু শ্যুটিংয়ের আগেই খবর আসে, আমার জায়গায় অন্য কাউকে নেওয়া হয়েছে। ফেরত দিতে হয়েছে সাইনিং মানিও। এসব মেনে নিতে পারছিলাম না। তাই নীরবে চলে এলাম। জানি না আর ফেরা হবে কি না।’
আঁচল

/এমএম/

Ifad ad on bangla tribune

লাইভ

Nitol ad on bangla Tribune
টপ