‘মহরত’ নাকি ‘ডুব-কথা’র আসর?

Send
রূপক জামান
প্রকাশিত : ১৪:২৯, মার্চ ১৯, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:১২, মার্চ ১৯, ২০১৬

বিমানবন্দরের কাছাকাছি নতুন পাঁচ তারকা হোটেল লা ম্যারিডিয়ান। গেল ক’দিন ধরে এটি যেনো সেজে আছে ঢাকার মাঝে এক টুকরো ‘ভারত’ রূপে। কারণ, প্রথমে কলকাতার শ্রাবন্তী, পরে জিৎ এবং সবশেষে এখানে অস্থায়ী বাসা বেঁধেছেন ইরফান খান, পার্ণো মিত্র এবং তাদের সহযোগিরা।

ডুব-কথার আসরে ইরফান খানের সঙ্গে রোকেয়া প্রাচী, তিশা ও পার্ণো মিত্র।শুক্রবার (১৮ মার্চ) রাতে সেই এক টুকরো ভারতে ডাক পড়েছে দেশীয় গণমাধ্যমের। ডেকেছেন নির্মাতা মোস্তফা সরয়ার ফারুকী। উদ্দেশ্য, ২০ তারিখ থেকে শুরু হতে যাওয়া ‘ডুব’ ছবির মহরত এবং সেই ফাঁকে ছবি সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে ঘরোয়া আলাপচারিতা। যদিও সব শেষে ফিরতি পথে অনেকেরই আনমনে মনের কাছে প্রশ্ন ছিল এমন, এটা কি ‘মহরত’ ছিল, না ‘ডুব-কথা’র অন্যরকম আসর?

রাত আটটার একটু পরে শরীরে সাদা শার্ট ঝুলিয়ে নিজের রূম ছেড়ে অনুষ্ঠানস্থলে খুব নীরবে আসলেন ইরফান খান, যার জন্য উপস্থিত সবার অস্থির অপেক্ষা। অনেকটা বাধাহীনভাবে হেঁটে গিয়ে মঞ্চের সামনের টেবিলে গিয়ে বসলেন ইরফান। অথচ তার উপস্থিতি টেরই পেলেন না গণমাধ্যমকর্মীরা! খানিক পরে টের পেয়ে মৌচাক বনে গেলেন তিনি আর মৌমাছি সংবাদকর্মীরা। স্বাভাবিক। তেমটাই তো ঘটার কথা।

ডুব-কথায় মজেছেন ছবির প্রধান দুই নায়ক। অভিনেতা ইরফান ও নির্মাতা ফারুকী।এদিকে জটলা ভাঙ্গার অপেক্ষা না করে মহরত অনুষ্ঠানের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়ে গেল।

‘মহরত’ এর ছোট্ট পর্ব শেষে বক্তব্য পর্বের শুরুটা করে দিলেন ছবিটির অন্যতম প্রযোজক আব্দুল আজিজ। বললেন, ‘আমাদের (জাজ মাল্টিমিডিয়া) প্রথম টার্গেট ছিল বাংলাদেশের মার্কেট। তা আমরা পেয়েছি। এরপর কলকাতার মার্কেট। সেটাও পাওয়ার পথে এখন। আমাদের তৃতীয় টার্গেট ছিল বলিউড। আশা করি ওটাও আগামী দু’বছরের মধ্যে পেয়ে যাবো। এবং আগামী পাঁচ বছরের ভেতরে আমরা হলিউডের মার্কেটে প্রবেশ করব।’

লাইভ

টপ