পোর্টল্যান্ডের ট্রাম্পবিরোধী মিছিলে গুলিবিদ্ধ এক মার্কিনি

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৬:৫৮, নভেম্বর ১২, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:৫৮, নভেম্বর ১২, ২০১৬

অরিগন অঙ্গরাজ্যের পোর্টল্যান্ডে ট্রাম্পবিরোধী মিছিলে এক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হয়েছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট খবরটি নিশ্চিত করেছে। উল্লেখ্য, গতকাল শুক্রবারই অরিগনে ট্রাম্পবিরোধী বিক্ষোভ সহিংস হয়ে ওঠে। পুলিশের পক্ষ থেকে সেখানকার পরিস্থিতিকে দাঙ্গা বলে দাবি করা হয়।

ইন্ডিপেনডেন্টের খবরে বলা হয়, পোর্টল্যান্ডের মরিসন সেতুর কাছাকাছি গুলিবিদ্ধ হন একজন তরুণ মার্কিনি।  পোর্টল্যান্ড পুলিশের পক্ষ থেকে ওই ব্যক্তির গুলিবিদ্ধ হওয়ার খবর নিশ্চিত করা হয়েছে। এক বিবৃতিতে তারা দাবি করেছে, হামলার শিকার হওয়া ব্যক্তি শঙ্কামুক্ত।

ক্যামেরন হাইটেন নামের এক প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয় সংবাদমাধ্যম অরিগন.কমকে জানান, তিনি ওই গুলিবিদ্ধ হওয়ার ঘটনাটি দেখেছেন। তিনি বলেন, বিক্ষোভকারীরা যখন সেতুর চারপাশজুড়ে বিক্ষোভ চালিয়ে যাচ্ছিল, সে সময় পূর্বদিক থেকে বেশকিছু মানুষ নিয়ে একটি গাড়ি আসছিলো। ওই গাড়িতে  এক বন্দুকধারী ছিলেন। তিনিই মিছিলে গুলি চালিয়ে এক ব্যক্তিকে গুলিবিদ্ধ করেন।

ক্যামেরন হাইটেন জানান, ওই বন্দুকধারী প্রথমে খোলা আকাশে গুলি চালিয়ে মিছিলে থাকা ব্যক্তির শরীরের নিচের অংশে গুলি করেন।

এ ঘটনায় পুলিশ কাউকে গ্রেফতার করেছে কিনা, তা জানা যায়নি।

উল্লেখ্য ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর মঙ্গলবার রাত থেকে যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে বিক্ষোভ শুরু হয়। বুধবার থেকে তা ক্রমশ তীব্র হয়ে সহিংসতায় রূপ নিচ্ছে। ট্রাম্পের বিরোধিতাকারীরা বিক্ষোভকে আরও ছড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা করছেন। টানা বিক্ষোভে বৃহস্পতিবার পোর্টল্যান্ড ছাড়াও ডেনভার, মিনিয়াপোলিস, মিলওয়াউকি, পোর্টল্যান্ড, ওকল্যান্ডসহ বেশ কয়েকটি শহরে বিক্ষোভ হয়েছে। শতাধিক বিক্ষোভকারীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটেছে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুরের ঘটনা। ট্রাম্প এসব বিক্ষোভকে ভাড়াটে বিক্ষোভকারীদের কাজ ও মিডিয়ার সৃষ্টি বলে উল্লেখ করে পরে আবার বিক্ষোভকারীদের প্রশংসাও করেছেন। 

সাম্প্রতিক মার্কিন ইতিহাসে নজিরবিহীনভাবে দেশের বিভিন্ন স্থানে মানুষজন বিক্ষোভে নেমেছেন। এমনকি মার্কিন প্রশাসনের কেন্দ্র হোয়াইট হাউসের সামনেও বিক্ষোভ করেন ট্রাম্পবিরোধীরা। ওয়াশিংটন ডিসিসহ অন্য অঙ্গরাজ্যতেও এ বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে। বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে ওয়েস্ট কোস্ট, নিউ ইয়র্ক, বোস্টন, অস্টিন, সিয়াটল, ওকল্যান্ড, কালিফ, ফিলাডেলফিয়াসহ বিভিন্ন শহর। মঙ্গলবারের বিক্ষোভটি তীব্র হয়ে এখন তা অন্তত ২৫টি শহরে ছড়িয়ে পড়েছে।

/বিএ/

লাইভ

টপ