প্রেসিডেন্টের বেতন-ছুটি কিছুই নেবেন না ট্রাম্প

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:২৬, নভেম্বর ১৪, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:২৭, নভেম্বর ১৪, ২০১৬

দায়িত্ব পালনের জন্য কোনও বেতন গ্রহণ করবেন না নব-নির্বাচিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নেবেন না কোনও ছুটিও। রোববার যুক্তরাষ্টের সিবিএস টেলিভিশন চ্যানেলের ‘সিক্সটি মিনিট’ অনুষ্ঠানে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি এসব অঙ্গীকারের কথা জানান। তবে আইন রক্ষায় বছরে এক ডলার করে বেতন গ্রহণ করবেন তিনি। এটি নিছক আনুষ্ঠানিকতা।
উল্লেখ্য, সেপ্টেম্বরে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারণা চলাকালে প্রচারণামূলক এক ভিডিওতে তিনি বেতন নিবেন না বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। বরিবার প্রেসিডেন্ট হিসেবে বেতন গ্রহণ করবেন কিনা; সিবিএস টেলিভিশনের এমন প্রশ্নের জবাবে ৭০ বছর বয়সী ট্রাম্প বলেন, ‘না, আমি বেতন নিবো না। আমি এটি নিচ্ছি না।’
তিনি বলেন, ‘আমার ধারণা আইন অনুযায়ী আমার এক ডলার নেওয়া উচিত, তাই আমি বছরে এক ডলার নিব।’  ট্রাম্প জানান, যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের বেতন কত তা তিনি জানেন না। তিনি আরও জানান, প্রেসিডেন্টের দায়িত্বপালনকালে তিনি কোনো ছুটি গ্রহণ করবেন না।
‘আমাদের অনেক কাজ আছে। করার মতো অনেক কাজ বাকী আছে’, বলেন তিনি। ‘আমি এগুলো করতে চাই। আমরা কর হ্রাস করছি, আমরা স্বাস্থ্যসেবা দেখভালের দায়িত্ব নিচ্ছি। আমি বোঝাতে চাচ্ছি, করার মতো অনেক কাজ বাকী। ‘তাই আমার মনে হয় না যে, আমি বড় কোনো ছুটি নেব’ নিজের ছুটির বিষয়টি বাতিল করে বলেন তিনি।

গত মঙ্গলবার ডেমোক্র্যাটিক প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনকে পরাজিত করে যুক্তরাষ্ট্রের ৪৫তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ট্রাম্প।

‘মেক আমেরিকা গ্রেট এগেইন’ স্লোগানকে নির্বাচনি প্রচারণার অস্ত্র করেছিলেন ট্রাম্প। তার এই মহান আমেরিকা দিয়ে তিনি সেই কলম্বাসের আবিষ্কৃত আমেরিকাকে বুঝিয়ে থাকেন; যা শ্বেতাঙ্গ আাধিপত্যেরই নামান্তর। কালজয়ী ঐতিহাসিক হাওয়ার্ড জিন তার ‘পিপলস হিস্টরি অব আমেরিকা’য় লিখেছেন কিভাবে আদিবাসীদের ওপর হত্যা-নির্যাতন চালিয়ে, তাদের সম্পদ লুণ্ঠন করে এই কথিত আমেরিকায় শ্বেতাঙ্গ আধিপত্য কায়েম করা হয়েছিল আর তার নাম দেওয়া হয়েছিল আমেরিকা আবিষ্কার।

সেই শ্বেতাঙ্গ আধিপত্যের রাজনীতির বিপরীতে বিভিন্ন জাতি-গোষ্ঠী ও শ্রেণি-পেশার মানুষকে স্থাপন করেছেন ট্রাম্প। তাদের মধ্যকার বিভক্তিকে সামনে আনতে চেয়েছেন। মেক্সিকোর সীমান্ত নয় কেবল, মানুষের মনের মধ্যে থাকা বিভক্তির দেয়ালকে উসকে দিতে চেয়েছেন তিনি। আর তাতে সফল হয়েছেন। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে সংখ্যাগরিষ্ঠ ইলেক্টোরাল ভোট নিয়ে জয় নিশ্চিত করেছেন ট্রাম্প। তবে  নির্বাচনে ট্রাম্পের জয়ের খবর প্রকাশের পরপরই বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঞ্চলে। বিভিন্ন স্থানে ‘নট মাই প্রেসিডেন্ট’, ‘টাইম টু রিভল্ট’, ‘ফ্যাসিস্ট ট্রাম্প’, ‘রেজিস্ট রেসিজম’, ‘নো ট্রাম্প’ ইত্যাদি লেখা প্ল্যাকার্ড হাতে বিক্ষোভকারীরা প্রতিবাদ জানিয়েছেন। দেশের বিভিন্ন স্থানে মানুষজন বিক্ষোভে নেমেছেন, যা সাম্প্রতিক মার্কিন ইতিহাসে নজিরবিহীন।
/বিএ/

লাইভ

টপ