behind the news
IPDC  ad on bangla Tribune
Vision  ad on bangla Tribune

আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদন‘তিস্তা চুক্তি নিয়ে নয়াদিল্লির বার্তা’

বিদেশ ডেস্ক১২:৪৩, ডিসেম্বর ০২, ২০১৬







আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আসন্ন ভারত সফরের আগে তিস্তা চুক্তি নিয়ে ঢাকাকে বার্তা দিয়েছে নয়াদিল্লি। কেন্দ্রিয় পানিসম্পদ মন্ত্রী সঞ্জীবকুমার বালিয়ান-এর এক বিবৃতির সূত্রে এই দাবি করেছে আনন্দবাজার। তবে সেই বিবৃতিতে কেবল গ্রহণযোগ্য সমাধান খোঁজার চেষ্টা চলছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। আনন্দবাজার পত্রিকা ওই বিবৃতির পাশাপাশি ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয় বলছে, সেই চেষ্টাকেই ঢাকার প্রতি বার্তা বলছে আনন্দবাজার পত্রিকা।


আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এ মাসের ১৭ তারিখ নয়াদিল্লি আসছেন হাসিনা। পাকিস্তানের সঙ্গে ধারাবাহিক সংঘাতের প্রক্ষাপটে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর সফরকে বাড়তি গুরুত্ব দিচ্ছে ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়। আনন্দবাজার লিখেছে, ঢাকা সফরে আসা ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শুক্রবারও জানিয়েছেন, সন্ত্রাস প্রশ্নে দিল্লির পাশেই থাকবে ঢাকা। আনন্দবাজার লিখেছে, একইভাবে ভবিষ্যতে কৌশলগত প্রশ্নে হাসিনাকে পাশে পাওয়া প্রয়োজন মোদি সরকারের। আনন্দবাজারের ভাষ্য অনুযায়ী, এ কারণেই তিস্তা চুক্তি রূপায়ণ করতে ভারত যে কোমর বেঁধে নেমেছে এবং দিল্লি সেই বার্তা দিতে চাইছে।
এ দিন কেন্দ্রীয় পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী সঞ্জীবকুমার বালিয়ান লোকসভায় একটি বিবৃতিতে জানিয়েছেন, ‘তিস্তা চুক্তি রূপায়ণের বিষয়ে ভারত সরকার উদ্যোগী। সব পক্ষের স্বার্থ রক্ষা করে সবার কাছে গ্রহণযোগ্য একটি সমাধান সূত্র খুঁজে বের করার চেষ্টা হচ্ছে।‘
আনন্দবাজারের প্রতিবেদন অনুযায়ী, লোকসভায় প্রতিমন্ত্রীর এই ঘোষণার মাধ্যমে মমতা সরকারকেও বার্তা দিতে চাইছে মোদি সরকার। নোট বাতিল-সহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কেন্দ্র-রাজ্য যতই দ্বৈরথ চলুক না কেন, তিস্তা প্রশ্নে কিন্তু মমতার সঙ্গে সমন্বয় রেখেই এগোতে চাইছে কেন্দ্রীয় সরকার।
আনন্দবাজারের ভাষ্য, মোদীর সঙ্গে ঢাকা সফর এবং স্থলসীমান্ত চুক্তির সফল রূপায়ণের পরে বাংলাদেশ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মনোভাব এখন অনেক নমনীয়। এ মাসের ১৫ তারিখ থেকে কলকাতার নেতাজী ইন্ডোর স্টেডিয়ামে ‘বিজয় দিবস’ উপলক্ষে পাঁচ দিনের বাংলাদেশ উৎসব শুরু হবে, যার উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্য সরকার এই উৎসবের অন্যতম সহযোগী। ঢাকাও মমতার এই মনোভাবকে আশাপ্রদ বলেই মনে করছে।
/বিএ/

Global Brand  ad on Bangla Tribune

লাইভ

IPDC  ad on bangla Tribune
টপ