উইসকনসিনে ভোট পুনর্গণনা শুরু

বিদেশ ডেস্ক১৭:৩০, ডিসেম্বর ০২, ২০১৬

সদ্য সমাপ্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে উইসকনসিন অঙ্গরাজ্যে ভোট পুনর্গণনা শুরু হয়েছে। বৃহস্পতিবার এ ভোট গণনা শুরু হয়। গ্রিন পার্টির প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জিল স্টেইনের আবেদনের প্রেক্ষিতে এ ভোট গণনা হচ্ছে। স্টেইনের এ পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছে নির্বাচনে ট্রাম্পের কাছে পরাজিত হিলারি ক্লিনটনের দল রিপাবলিকান পার্টি।

উইসকনসিনে মাত্র ১ শতাংশ ভোটের ব্যবধানে জয়ী হয়েছিলেন ট্রাম্প। ভোটের আগে জনমত জরিপগুলোতে এই অঙ্গরাজ্যে এগিয়ে ছিলেন হিলারি।

জিল স্টেইনের দাবি, উইসকনসিনে ভোট গণনা মানুষ বা যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে প্রভাবিত হয়ে থাকতে পারে। স্টেইনের ওই আবেদনে, উইসকনসিনে গত বছরের চেয়ে এ বছর ভোটদান থেকে বিরত থাকা ভোটারের সংখ্যা বেশি হওয়া নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে।

কারচুপির অভিযোগ ওঠা অপর দুই অঙ্গরাজ্য মিশিগান ও পেনসিলভানিয়ায়ও শিগগিরই ভোট পুনর্গণনার আবেদন করার কথা স্টেইনের।

তিনটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গরাজ্যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ভোটের ফলাফলে হ্যাকিংজনিত কারচুপির অভিযোগ ক্রমেই জোরালো হয়ে ওঠার পর জিল স্টেইন এ পদক্ষেপ নেন। বিপুল সংখ্যক অ্যাকটিভিস্ট এবং অ্যাকাডেমিশিয়ান এই দাবি তুলেছেন। তারা মনে করছেন, বিদেশি হ্যাকাররা পেনসিলভানিয়া, উইসকনসিন ও মিশিগান এ তিন অঙ্গরাজ্যের ফলাফল প্রভাবিত করতে সমর্থ হয়েছিলেন। তিন অঙ্গরাজ্যের নির্বাচনি ফলাফলকে চ্যালেঞ্জ করার জন্য হিলারির প্রতিও আহ্বান জানিয়েছিলেন তারা।তবে এখনও কারচুপির অকাট্য প্রমাণ পায়নি ডেমোক্র্যাটরা। তাই ফলাফল চ্যালেঞ্জের ব্যাপারেও কোনও সিদ্ধান্ত নেননি হিলারি। 

ভোট পুনর্গণনার আবেদনের প্রস্তুতি নেওয়ার কথা জানিয়ে সম্প্রতি এক বিবৃতিতে স্টেইন বলেন, ‘ভোটে অনিয়ম হওয়ার ব্যাপারে প্রমাণ থাকার দাবি ওঠায়’ আমি এ পদক্ষেপ নিয়েছি। মোট ভোটের হিসেবে যে উল্লেখযোগ্য অসামঞ্জস্য রয়েছে তা ডাটা বিশ্লেষণ থেকে ইঙ্গিত মিলেছে।’

স্টেইন আরও বলেন, ‘২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে স্বীকৃতি দেওয়ার আগে এ উদ্বেগগুলোর বিষয়ে তদন্ত হওয়া প্রয়োজন। আমরা এমন নির্বাচন চাই যার ওপর আমাদের আস্থা থাকবে।’ সূত্র: আল-জাজিরা।

/টিএম/এএ/

লাইভ

টপ