ডাকযোগে আসা চিঠিতে ‘সাদা পাউডার’, খুলেই অসুস্থ ট্রাম্পের পুত্রবধূ

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১০:১৫, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:০৭, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৮

ডাকযোগে আসা সাদা পাউডারযুক্ত একটি চিঠি খোলার সঙ্গে সঙ্গে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন ডোনাল্ড ট্রাম্পের পুত্রবধূ ভেনেসা ট্রাম্প। অবশ্য খামে থাকা পাউডার পরীক্ষা করে আইনশৃঙ্খলা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, এতে বিপজ্জনক কিছু নেই। তা সত্ত্বেও পূর্ব-সতর্কতা হিসেবে ভানেসাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
ট্রাম্পের পুত্রবধূ ভেনেসা

নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটনের একটি অ্যাপার্টমেন্টে থাকেন ট্রাম্পের বড় ছেলে ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়র এবং তার স্ত্রী ভানেসা। ওই বাসার ঠিকানায় একটি চিঠি আসে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ইন্ডিপেনডেন্ট জানিয়েছে, সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) সকাল ১০টার দিকে চিঠির খামটি খোলেন ভানেসা ট্রাম্প। এরপর তার কাশি শুরু হওয়ায় এবং বমির ভাব দেখা দেওয়ায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

২০০১ সাল থেকে সাদা পাউডারযুক্ত খামের ব্যাপারে সতর্ক থাকছে মার্কিন কর্তৃপক্ষ। ২০০১ সালে বিভিন্ন মিডিয়ায় ও মার্কিন আইন প্রণেতাদের কাছে অ্যানথ্রাক্সযুক্ত খাম পাঠানো হয়েছিল। ওই ঘটনায় ৫ জনের প্রাণহানি হয়। তবে নিউ ইয়র্ক পুলিশ বিভাগকে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানায়, খামে থাকা সাদা পাউডারগুলো পরীক্ষা করা হয়েছে এবং সেগুলো বিপজ্জনক নয়। ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়রের স্ত্রী, শাশুড়ি এবং আরও এক ব্যক্তিকে পূর্ব সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিউ ইয়র্ক পুলিশ বিভাগের মুখপাত্র কার্লোস নিয়েবসকে উদ্ধৃত করে ইন্ডিপেনডেন্ট জানায়, ‘ডাকযোগে আসা চিঠিটি ডোনাল্ড ট্রাম্প জুনিয়রের উদ্দেশে পাঠানো হয়েছে।’ এদিকে এবিসি নিউজ নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক পুলিশ সূত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, ওই চিঠিটি পাঠানো হয়েছে বোস্টন থেকে। ওই সূত্র এবিসি নিউজকে বলেছেন, এটি পড়ে তার মনে হয়েছে, যাকে চিঠিটি পাঠানো হয়েছে, তার ‌ওপর প্রেরণকারী খুবই বিরক্ত। পরে ট্রাম্প জুনিয়র এ সংক্রান্ত একটি টুইট করেছেন। তিনি লিখেছেন: ‘অশেষ কৃতজ্ঞতা, আজ সকালের ভয়াবহ ওই পরিস্থিতির পর ভানেসা ও আমার সন্তানেরা নিরাপদ ও অক্ষত আছে। কোনও ব্যক্তি তাদের বিরোধী দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশের জন্য যদি এ ধরনের বিরক্তিকর আচরণের কায়দা বেছে নেয় তবে সত্যিই তা জঘন্য।’

ভেনেসা ট্রাম্প

হোয়াইট হাউসের মুখপাত্র সারাহ স্যান্ডার্স জানিয়েছেন, সোমবার দুপুরে ডোনাল্ড ট্রাম্পও তার পুত্রবধূর সঙ্গে কথা বলেছেন। তবে সারাহর কাছে থেকে তদন্তের ব্যাপারে বিস্তারিত জানা যায়নি। বাবা ডোনাল্ড ট্রাম্পের ব্যবসায় দেখাশোনা করেন ট্রাম্প জুনিয়র। ২০০৫ সালের নভেম্বরে ভানেসার সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হন। গত বছরের সেপ্টেম্বরে ৪০ বছর বয়সী ট্রাম্প জুনিয়র নিজের ও স্ত্রী-সন্তানদের জন্য নির্ধারিত সিক্রেট সার্ভিসের সুরক্ষার আওতা থেকে সরে আসেন। তবে এক সপ্তাহ পরই আবার সিক্রেট সার্ভিসের সুরক্ষার আওতায় চলে আসেন তিনি।

সোমবারের ঘটনা নিয়ে সিক্রেট সার্ভিস জানিয়েছে, তাদের সুরক্ষার আওতায় থাকা ব্যক্তির কাছে এ ধরনের সন্দেহজনক পদার্থ পাঠানোর কারণ অনুসন্ধান করছেন তারা। 

/এফইউ/বিএ/এমওএফ/

লাইভ

টপ