পোল্যান্ডে হুয়াওয়ের বিপণন ও এক গোয়েন্দা কর্মকর্তা আটক

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:১৮, জানুয়ারি ১১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:১৯, জানুয়ারি ১১, ২০১৯

পোল্যান্ডে হুয়াওয়ের একজন উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এবং পোল্যান্ডের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা সংস্থা এডব্লিউবির সাবেক এক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে রয়েছে গোয়েন্দাবৃত্তির অভিযোগ। সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানিয়েছে, হুয়াওয়ের স্থানীয় কার্যালয় ও সাবেক গোয়েন্দা কর্মকর্তার বর্তমান কর্মক্ষেত্র অরেঞ্জ পোলাস্কাতে তল্লাশি চালানো হয়েছে।

হুয়াওয়ের বিষয়ে আন্তর্জাতিক মহলে শঙ্কা রয়েছে গুপ্তচরবৃত্তি নিয়ে। নিউ জিল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়াও তাদের ফাইভ জি মোবাইল নেটওয়ার্ক তৈরির প্রকল্পে হুয়াওয়েকে যুক্ত না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির পণ্যে যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে গোয়েন্দা নজরদারি করার ব্যবস্থা থাকার আশঙ্কা তো আগে থেকেই ছিল, আর তারপর ইরানের বিরুদ্ধে থাকা মার্কিন নিষেধাজ্ঞা ভঙ্গ করে আর্থিক লেনদেনের প্রকল্প তৈরিতে যুক্ত থাকার অভিযোগে অভিযুক্ত হয় হুয়াওয়ে।

সেই সূত্রে গত পয়লা ডিসেম্বর মার্কিন অনুরোধে কানাডায় গ্রেফতার করা হয় প্রতিষ্ঠানটির সিএফও মেং ওয়ানঝুকে। তিনি হুয়াওয়ের প্রতিষ্ঠাতার মেয়ে এবং তার উত্তরাধিকারী। এর জবাবে চীন হুঁশিয়ারি দেয়, কানাডাকে চরম মূল্য দিতে হবে। তারা চীনে থাকা কানাডার অন্তত ১৩ জনকে আটক করেছে। কানাডায় ওয়ানঝু এখন জামিনে আছেন। কিন্তু তাকে পায়ে নজরদারি বেল্ট পরে থাকতে হয়। তার চলাচলের ওপরও আছে বিধিনিষেধ।

পোল্যান্ডের স্থানীয় একটি টেলিভিশন চ্যানেল জানিয়েছে, গ্রেফতারকৃত চীনা নাগরিক পোল্যান্ডে হুয়াওয়ের বিপণন বিভাগের পরিচালক। অন্যদিকে ‘পিওতর ডি’ নামের যে পোলিশ নাগরিককে গ্রেফতার করা হয়েছে তিনি দেশটির অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা সংস্থা এডব্লিউবির সাবেক উচ্চপদস্থ সদস্য। তার বিরুদ্ধে একসময় দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল। তবে আনুষ্ঠানিক কোনওন অভিযোগ গঠন করা হয়নি। তদন্তকারীদের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, তাদের দুইজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য মাসখানেক হেফাজতে রাখা হবে।

তদন্তকারীরা সংশ্লিষ্ট দুইজনের কর্মস্থলেই তল্লাশি চালিয়েছেন; হুয়াওয়ে এবং অরেঞ্জ পোলস্কা। এক বিবৃতিতে হুয়াওয়ে দাবি করেছে, তারা যে দেশে ব্যবসা করে সে দেশের আইন মেনে চলে এবং কর্মীদেরও আইন মেনে চলতে পরামর্শ দেয়। অন্যদিকে অরেঞ্জ বলেছে, তদন্তকারীরা একজন কর্মকর্তার বিষয়ে প্রমাণ সংগ্রহ করেছে। তবে ঠিক কোন কাজের পরিপ্রেক্ষিতে তদন্ত চলছে তা তাদের জানা নেই।

/এএমএ/

লাইভ

টপ