ইইউ-তুর্কি অভিবাসন চুক্তি কার্যকর হচ্ছে না: ম্যার্কেল

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৮:৪০, জানুয়ারি ১২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:৪১, জানুয়ারি ১২, ২০১৯

ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) ও তুরস্কের মধ্যে স্বাক্ষরিত অভিবাসন চুক্তি ঠিকমতো কাজ করছে না বলে মন্তব্য করেছেন জার্মানির চ্যান্সেলর অ্যাঙ্গেলা ম্যার্কেল। শুক্রবার তিনি এই মন্তব্য করেন। ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স এখবর জানিয়েছে।

জার্মান চ্যান্সেলর বলেছেন, অভিবাসীদের ঢল থামাতে চুক্তিটি স্বাক্ষর হলেও তা অকার্যকর। তিনি বলেন, দুর্ভাগ্যজনক হলো এই চুক্তি কাজ করছে না। চুক্তিটি কাজ না করায় গ্রিক দ্বিপে আমাদের চাপে পড়তে হচ্ছে।

২০১৬ সালে ইইউ ও তুরস্কের মধ্যে এই চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তি অনুসারে তুরস্ক থেকে গ্রিস যাওয়া অভিবাসীদের মধ্যে যারা শরণার্থী হিসেবে আশ্রয় পাওয়ার উপযুক্ত নয় তাদের ফেরত পাঠানো হবে। সিরীয় শরণার্থীদের গ্রিস থেকে তুরস্ক ফেরত এবং বাকিদের ইইউতে পুনর্বাসন করা হবে।

অভিবাসন সংকট মোকাবিলায় ২৮ দেশের এই জোটের ঐক্যে ফাটল ধরে। ভূমধ্যসাগরীয় দেশগুলোতেই অধিকাংশ অভিবাসী পা রাখছিলেন। একই সময়ে উত্তর ইউরোপের বিত্তশালী দেশগুলো অভিবাসী গ্রহণ না করায় এসব দেশ বিপদে পড়ছিল। এছাড়া পূর্ব ইউরোপের দেশগুলোও অভিবাসী গ্রহণে অস্বীকৃতি জানায়।

দুই দিনের গ্রিস সফরে জার্মান চ্যান্সেলর গ্রিক প্রধানমন্ত্রী আলেক্সিস সাইপ্রাসের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে ম্যার্কেল বলেন, গ্রিসের আইনি ব্যবস্থা অনেক জটিল। যে কোনও কারণেই হোক অভিবাসীদের ফেরত পাঠানোর বিষয়টি কাজ করছে না। সবাই জানে, একবার যদি গ্রিসে পা রাখা যায় তাহলে যে কোনও ভাবে জার্মানি, সুইডেন, অস্ট্রিয়া বা অন্যত্র যাওয়া সম্ভব। ফলে আমরা অবৈধ অভিবাসনকে সমর্থন জানাচ্ছি।

ম্যার্কেল জানান, গ্রিস প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে তিনি কথা বলেছেন। তিনি বলেন, অভিবাসীদের মধ্যে অনেকেই ইরাকি, আফগান। আরও অনেকেই রয়েছে যাদের বিষয়ে চুক্তিতে কোনও সমাধান নেই। ইউরোপের বিষয়টি চিহ্নিত করা দরকার। এটা একটু জটিল কিন্তু কয়েকটি ইউরোপীয় দেশ যে মনে করে সংকটটির কারণে তাদের কিছু যায় আসে না তা দীর্ঘমেয়াদে মেনে নেওয়া যায় না।

 

/এএ/

লাইভ

টপ