নিউ জিল্যান্ডের হামলাকারী ট্রাম্প সমর্থক, যুক্তরাষ্ট্রে গৃহযুদ্ধ লাগাতে চায়!

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২২:২৫, মার্চ ১৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:৩১, মার্চ ১৫, ২০১৯

নিউ জিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে হামলাকারী ব্রেন্টন ট্যারান্ট মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থক। তার প্রকাশিত তথাকথিত উগ্র জাতীয়তাবাদী ইশতেহারে বলা হয়েছে, ‘শ্বেতাঙ্গরা গণহত্যার’ এবং সে ‘যুক্তরাষ্ট্রে গৃহযুদ্ধ ছড়িয়ে চায়’। এতে শ্বেতাঙ্গা আধিপত্যবাদী ট্যারান্ট ট্রাম্পকে ‘শ্বেতাঙ্গ পরিচয়ের নতুন প্রতীক’ হিসেবে উল্লেখ করেছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল অনলাইনের এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানা গেছে।

শুক্রবার (১৫ মার্চ) নিউ জিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ এলাকার দুইটি মসজিদে বন্দুকধারীর হামলা হয়। এদের একটি শহরের হাগলি পার্কমুখী সড়ক দীন অ্যাভিনিউতে অবস্থিত আল নূর মসজিদ। আরেকটি মসজিদ লিনউডে অবস্থিত। হামলায় নিহতের সংখ্যা ৪৯ জনে পৌঁছানোর কথা জানিয়েছেন দেশটির পুলিশ কমিশনার মাইক বুশ।  

প্রধান সন্দেহভাজন হামলাকারী ব্রেন্টন ট্যারান্টের (২৮) জন্ম অস্ট্রেলিয়ায়। মসজিদের হামলার সেই ভয়াবহ দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ১৭ মিনিট ধরে লাইভ স্ট্রিম (সরাসরি সম্প্রচার) করেছে বন্দুকধারী। সেখানে নিজের পরিচয়ও দিয়েছে সে। এছাড়া মসজিদে হামলা উপলক্ষে সে ৭৪ পাতার একটি তথাকথিত ইশতেহার ‘দ্য গ্রেট রিপ্লেসমেন্ট’ নামে তুলে ধরেছে। তথাকথিত এই ইশতেহারটিতে যেমন রয়েছে শ্বেতাঙ্গদের গণহত্যার শিকার হওয়ার মতো ‘উদ্ভট’ দাবি, তেমনি রয়েছে মুসলিমদের জন্য ভীতিকর পরিবেশ তৈরির প্রস্তাব।

তথাকথিত এই ইশতেহারে হামলার কারণ জানিয়েছে। এতে সে বলেছে, ট্রাম্পকে সে ‘শ্বেতাঙ্গ পরিচিতির নতুন প্রতীক’ মনে করে সমর্থন জানায় কিন্তু সাধারণভাবে ‘একজন নীতি নির্ধারক হিসেবে’ সমর্থন করে না।

২৮ বছরের এই ব্যক্তি দাবি করেছে, অস্ত্র হিসেবে বন্দুক নির্বাচনের কারণ হলো এতে করে দ্বিতীয় সংশোধনী ঘিরে যুক্তরাষ্ট্রে বিতর্ক শুরু হবে। একই সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ বিতর্ক জন্ম নেবে এবং তা নিষিদ্ধ হবে। সে বলেছে,  ‘ব্যাপক চাপ তৈরি হলে যুক্তরাষ্ট্রের বামপন্থীরা দ্বিতীয় সংশোধনী বাতিল করতে চাইবে। এতে করে যুক্তরাষ্ট্রের ডানপন্থীরা এটাকে নিজেদের মুক্তি ও স্বাধীনতার ওপর আক্রমণ হিসেবে বিবেচনা করবে।’ 

ইশতেহারে ট্যারান্ট আশা প্রকাশ করেছে, এতে করে যুক্তরাষ্ট্রে গৃহযুদ্ধ ছড়িয়ে পড়বে এবং যুক্তরাষ্ট্রের বলকানীকরণ শুরু হবে।

ট্যারান্ট আরও বলেছে, বামপন্থীদের দ্বারা ডানপন্থীদের বিলুপ্ত করার প্রয়াস যুক্তরাষ্ট্রের জনগণের মধ্যে নাটকীয় মেরুকরণ সৃষ্টি করবে এবং তা যুক্তরাষ্ট্রকে সাংস্কৃতিক ও বর্ণগতভাবে বিভক্ত করবে।’

এতে সে আরও উল্লেখ করেছে, উজবেকিস্তানের শরণার্থী আশ্রয় প্রত্যাশী রাখমাত আকিলভের হামলার প্রতিশোধ নিতেই মসজিদে গুলিবর্ষণ করেছে।

/এএ/

লাইভ

টপ