প্রতিনিধি বিতর্কে স্থগিত তালেবান-আফগানিস্তান শান্তি আলোচনা

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০০:১৯, এপ্রিল ২০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০০:২২, এপ্রিল ২০, ২০১৯

আলোচনায় কে কে অংশ নেবেন তা নিয়ে বিতর্কের জেরে কাতারে অনুষ্ঠিতব্য তালেবান ও আফগানিস্তান সরকারের মধ্যকার শান্তি আলোচনা স্থগিত করা হয়েছে। আলোচনার আয়োজনকারী সংস্থা কাতারের সেন্টার ফর কনফ্লিক্ট অ্যান্ড হিউমানিটারিয়ান স্টাডিসের পরিচালক সুলতান বারাকাত এক টুইট বার্তায় আলোচনা স্থগিতের কথা জানিয়েছেন। শুক্রবার এই আলোচনা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল।এবছরের শুরুতে কাতারে আয়োজিত হয়েছে তালেবান ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার আলোচনা

শান্তি প্রতিষ্ঠায় আলোচনায় আগ্রহের কথা বলে আসলেও আফগানিস্তানেরি সরকারের সঙ্গে সরাসরি আলোচনায় বসতে অস্বীকার করে আসছিল তালেবান। ২০০১ সালে মার্কিন হামলায় ক্ষমতাচ্যুত এই গোষ্ঠীটি সরাসরি যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে আলোচনায় আগ্রহী ছিল। কাতারে কয়েক দফা মার্কিন প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনায় গুরুত্বপূর্ণ অগ্রগতির খবর আসার পর তালেবান সরকারের সঙ্গে বসতে সম্মত হয় তালেবান।  আফগানিস্তানে যুদ্ধ বন্ধের ক্ষেত্রে শুক্রবারের আলোচনাকে তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছিল।

বৃহস্পতিবার ওই আলোচনার জন্য ২৪৩ জনের নামের তালিকা ঘোষণা করে কাতার। তবে আফগান প্রেসিডেন্ট আশরাফ ঘানির পাঠানো ২৫০ জনের নামের তালিকা থেকে ঘোষিত তালিকায় পার্থক্য দেখা যায়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আফগান সরকারের এক কর্মকর্তা আল জাজিরাকে জানিয়েছেন, প্রেসিডেন্টের পাঠানো তালিকায় ৫০ জন নারী ছিলেন।

তালিকার বিষয়ে তাৎক্ষনিকভাবে কোনও মন্তব্য করেনি তালেবান। তবে বুধবার গোষ্ঠীটির মুখপাত্র জবিউল্লাহ মুজাহিদ আফগান সরকারের প্রতিনিধি দলের আকার নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। তিনি বলেন, এই প্রতিনিধি দলের আকার স্বাভাবিক নয় আর এত লোকের সঙ্গে বসার কোনও পরিকল্পনা তাদের নেই।

আফগানিস্তানের দীর্ঘমেয়াদী যুদ্ধ অবসানের উপায় খুঁজতে গত নভেম্বরে শান্তি দূত হিসেবে জালমাই খলিলজাদকে নিয়োগ দেয় যুক্তরাষ্ট্র। তালেবানের সঙ্গে এরইমধ্যে বেশ কয়েক দফা আলোচনা করেছেন তিনি। শুক্রবারের আলোচনা স্থগিত প্রসঙ্গে খলিলজাদ বলেছেন কাতারে আফগানিস্তানের অভ্যন্তরীণ আলোচনা বিলম্বিত হওয়ায় হতাশ হয়েছেন তিনি। এক টুইটবার্তায় তিনি বলেন, আমরা সব পক্ষের সঙ্গে ঘনিষ্ট রয়েছি আর আলোচনায় প্রতিশ্রুতিশীল থাকতে উভয় পক্ষকে উৎসাহিত করে যাচ্ছি।

/জেজে/

লাইভ

টপ