চিকিৎসাজনিত কারণ দেখিয়ে আবারও জামিন চাইলেন নওয়াজ

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১২:৫০, মে ২১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:৫৫, মে ২১, ২০১৯

চিকিৎসাজনিত কারণ দেখিয়ে কোট লাখপাত জেল থেকে সাময়িক ছাড়া পেতে আদালতে নতুন করে আবেদন করেছেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। সোমবার (২০ মে) ইসলামাবাদ হাইকোর্টে আল আজিজিয়া স্টিল মিল দুর্নীতি মামলার সাজা স্থগিত করে জামিনের আবেদন জানানো হয়েছে। ইসলামাবাদ হাইকোর্টের দুই বিচারপতি আমির ফারুক ও মিয়ানগুল হাসান আওরঙ্গজেবের বেঞ্চ মঙ্গলবার (২১ মে) এ আবেদন মূল্যায়ন করবেন।

নওয়াজ শরিফ
গত বছরের ডিসেম্বরে আল আজিজিয়া দুর্নীতি মামলায় পাকিস্তানের ক্ষমতাচ্যুত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে সাত বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়। মার্চে চিকিৎসাজনিত কারণ দেখিয়ে নওয়াজকে আট সপ্তাহের জন্য জামিন দেওয়ার আবেদন করে তার আইনজীবী। সুপ্রিম কোর্ট ছয় সপ্তাহের জন্য জামিন আবেদন মঞ্জুর করে। সংক্ষিপ্ত আদেশে বলা হয়, জামিনের সময়সীমা শেষ হওয়ার পর নওয়াজকে কারা কর্তৃপক্ষের কাছে আত্মসমর্পণ করতে হবে। আত্মসমর্পণে ব্যর্থ হলে তাকে গ্রেফতার করা হবে। ওই জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই মে মাসের শুরুর দিকে চিকিৎসাজনিত কারণে জামিন ও বিদেশ যাওয়ার অনুমতি চেয়ে সর্বোচ্চ আদালতে রিভিউ আবেদন করেছিলেন নওয়াজ। সেই আবেদন প্রত্যাখ্যাত হওয়ায় নওয়াজ আবারও কোট লাখপাত জেলে সাজা ভোগ করতে শুরু করেন।

মার্চে আদালতের আদেশে বলা হয়েছিল, জামিনের মেয়াদ শেষে নওয়াজ যদি আবারও চিকিৎসাজনিত কারণ দেখিয়ে ছাড়া পাওয়ার আবেদন করতে চান, তবে তাকে হাইকোর্টের শরণাপন্ন হতে হবে। সেই আদেশের ধারাবাহিকতায় সোমবার (২০ মে) ইসলামাবাদ হাইকোর্টে নতুন করে আবেদন করেছেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী। সোমবারের আবেদনে নওয়াজ শরিফের সাত বছরের কারাদণ্ড স্থগিতের পাশাপাশি চিকিৎসাজনিত কারণ বিবেচনায় নিয়ে গ্রেফতার পরবর্তী জামিনের আবেদনও জানানো হয়েছে। মেডিক্যাল রিপোর্টকে উদ্ধৃত করে পিটিশনে বলা হয়, নওয়াজের শারীরিক অবস্থা সংকটপূর্ণ এবং হৃদরোগজনিত চিকিৎসা করতে তার জন্য একটি চাপমুক্ত পরিবেশ প্রয়োজন। চিকিৎসকরা বলেছেন, নওয়াজ বিভিন্ন ধরনের রোগে ভুগছেন যা তার জীবনের জন্য হুমকি তৈরি করতে পারে।

মে মাসের শুরুর দিকে চিকিৎসাজনিত কারণে জামিন ও বিদেশ যাওয়ার অনুমতি চেয়ে নওয়াজ শরিফের করা রিভিউ পিটিশন প্রত্যাখ্যান করেছিল সুপ্রিম কোর্ট। পূর্ববর্তী জামিনের মেয়াদ শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাকে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেওয়া হয়। শীর্ষ আদালতের পক্ষ থেকে নওয়াজের আইনজীবীদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, যেকোনও ধরনের পরিত্রাণের জন্য তারা যেন যথাযথ ফোরামের কাছে যায়।

নতুন পিটিশনে উল্লেখ করা হয়েছে, সুপ্রিম কোর্ট আগেই ছয় সপ্তাহের সাজা স্থগিত করে নওয়াজকে তার পছন্দমতো চিকিৎসকের কাছ থেকে চিকিৎসা নেওয়ার অনুমতি দিয়েছে। আর এ জামিনের সময় করা তার স্বাস্থ্য পরীক্ষায় তার যেসব রোগ ধরা পড়েছে তা জীবনের জন্য হুমকিমূলক। পিটিশনে আরও বলা হয়, হৃদরোগের চিকিৎসার জন্য নওয়াজকে আগের চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া জরুরি। এর আগে নওয়াজ যুক্তরাজ্যে হৃদরোগের চিকিৎসা করিয়েছিলেন।

/এফইউ/বিএ/

লাইভ

টপ