ইভিএমের পরে ভিভিপ্যাট গণনার ঘোষণা নির্বাচন কমিশনের

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২৩:১৪, মে ২২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:১৫, মে ২২, ২০১৯

কংগ্রেস-তৃণমূলসহ বাইশটি বিরোধী দলের নেতাদের দাবি খারিজ করে ভারতের নির্বাচন কমিশন জানিয়ে দিয়েছে ইভিএমের গণনা হবে আগে, পরে ভিভিপ্যাট। বুধবার এই ঘোষণা দিয়েছে কমিশন।

সাত দফায় অনুষ্ঠিত লোকসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে ১৯ মে। গণনা থেকে শুরু করে ফল ঘোষণা করা হবে বৃহস্পতিবার। এরই মধ্যে কমিশনের বিরুদ্ধে ইভিএমের অস্বচ্ছতা ও সুষ্ঠুভাবে নির্বাচন পরিচালনা করতে না পারার ব্যর্থতার অভিযোগ তুলেছে বিরোধীরা। কমিশনকে পক্ষপাতদুষ্ট আখ্যাও দিয়েছে বিরোধী শিবির। তবে দেশটির নির্বাচন কমিশনের দাবি, কোনও কারসাজি করা হয়নি।

মঙ্গলবার প্রধান নির্বাচন কমিশনার সুনীল অরোরার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বিরোধীরা  দাবি জানিয়েছিলেন, গণনার সময় আগে ভিভিপ্যাটের ভোট গুণতে হবে। পরে যেনও ইভিএমের ভোট গোণা হয়।  কিন্তু বিরোধীদের সেই দাবি বুধবার খারিজ করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

বিরোধীদের দাবির প্রেক্ষিতে বুধবার সকালে কমিশনের ফুল বেঞ্চ নয়া দিল্লিতে নির্বাচন সচিবালয়ে বৈঠকে বসে। পরে কমিশন সূত্রে বলা হয়,  এ ব্যাপারে নির্বাচন কমিশন আগে যা সিদ্ধান্ত নিয়েছিল তাই বহাল থাকবে। আগে ইভিএম মেশিনের ভোট গোণা হবে। তা শেষ হয়ে গেলে লোকসভা আসনের মধ্যে থেকে এলোপাথাড়ি বেছে নেওয়া পাঁচটি বুথের ভিভিপ্যাটের ভোট গোণা হবে এবং তার ফলাফল সংশ্লিষ্ট ইভিএম মেশিনের সঙ্গে মিলিয়ে দেখা হবে।

কমিশন সূত্র জানায়,  আগে ভিভিপ্যাট গোনা হলে গোটা গণনা প্রক্রিয়া বিলম্বিত হয়ে যাবে। তা ছাড়া ভিভিপ্যাট রাখা হয়েছে ‘চেক অ্যান্ড ব্যালেন্সের’ জন্য। ইভিএমে কোনও গরমিল হচ্ছে কিনা ধরার জন্য। আসল ভোট গণনা তো হবে ইভিএমের ভোট নিয়েই।

তবে বিরোধীদের দাবি ছিল, ইভিএম মেশিনে কোনও গরমিল হয়েছে কিনা তা দেখার জন্য আগে ভিভিপ্যাট গোণা হোক। তাতে গরমিল দেখা গেলে ওই আসনে সব ভিভিপ্যাট গণনা করে দেখতে হবে। গণনা প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা রাখার জন্য এটাই সেরা উপায় হতে পারে।

বিরোধীদের এই দাবি যুক্তি সঙ্গত মনে হয়নি কমিশনের। কমিশন সূত্রে বলা হচ্ছে, অযথা প্রক্রিয়া জটিল করার দাবি করা হচ্ছে। সম্প্রতি পাঁচ রাজ্যে বিধানসভা ভোটের সময়েও আগে ইভিএমের ভোট গোণা হয়েছিল। পরে ভিভিপ্যাটের ভোট গোণা হলেও সেখানে কোনও গরমিল পাওয়া যায়নি। সূত্র: দ্য ওয়াল।

 

/এএ/

লাইভ

টপ