থাইল্যান্ডে আটকে পড়া রোহিঙ্গাবাহী নৌকার নাবিকদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:৩০, জুন ১২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:১১, জুন ১২, ২০১৯

থাইল্যান্ডের দ্বীপ থেকে ৬৫ রোহিঙ্গাসহ উদ্ধার হওয়া সে বিকল নৌকাটির ক্যাপ্টেন ও ক্রু এর বিরুদ্ধে অবৈধ অভিবাসনে সহায়তার অভিযোগ দায়ের করেছে থাই কর্তৃপক্ষ। বুধবার (১২ জুন) তাদেরকে অভিযুক্ত করা হয়। থাই পুলিশকে উদ্ধৃত করে ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্স খবরটি জানিয়েছে।

উদ্ধার হওয়া রোহিঙ্গারা

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইনের কয়েকটি নিরাপত্তা চৌকিতে হামলার পর পূর্ব-পরিকল্পিত ও কাঠামোবদ্ধ সহিংসতা জোরালো করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধারার সহিংসতা ও নিপীড়ন থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর প্রায় ৭ লাখ মানুষ। মিয়ানমারে জাতিগত নিধনের শিকার রোহিঙ্গাদের কেউ কেউ উন্নত জীবনের আশায় থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়ায়ও পাড়ি দেওয়ার চেষ্টা করে থাকে। মঙ্গলবার থাইল্যান্ডের সাতুন প্রদেশের তারুতাও ন্যাশনাল মেরিন পার্কের রায়ি দ্বীপ থেকে ৬৫ জন রোহিঙ্গাকে উদ্ধার করে দেশটির কর্তৃপক্ষ। উদ্ধারকৃতদের মধ্যে ২৮ জন পুরুষ, ৩১ জন নারী ও পাঁচ শিশু রয়েছে। ওই রোহিঙ্গাদের বহনকারী মাছ ধরার নৌকাটি যান্ত্রিক গোলযোগে পড়ার পর তারা রায়ি দ্বীপে আটকে পড়েছিল।

বুধবার থাই পুলিশ জানায়, বিদেশি নাগরিকদের অবৈধভাবে থাইল্যান্ডে প্রবেশে সহায়তার অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে নৌকাটির ক্যাপ্টেন ও পাঁচ ক্রু-এর বিরুদ্ধে। ক্যাপ্টেন থাই নাগরিক আর পাঁচ ক্রু মিয়ানমারের নাগরিক। অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাদের ১০ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড হতে পারে।

থাই পুলিশ জেনারেল সুচার্ট থিরাসাওয়াত রয়টার্সকে জানান, উদ্ধার হওয়া রোহিঙ্গারা মানব পাচারের শিকার হয়েছিলেন কিনা তা জানার চেষ্টা চলছে। তাদের বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।

সাতুন প্রদেশের গভর্নর জারুয়াত ক্লিয়াংক্লাও বলেন, ‘এ পর্যন্ত আমরা যা জেনেছি তাতে বলতে পারে এ রোহিঙ্গারা মিয়ানমার-বাংলাদেশ সীমান্ত থেকে এসেছে এবং তারা মালয়েশিয়া যেতে চেয়েছিল।’

/এফইউ/

লাইভ

টপ