বিবিসির বিদেশি শ্রোতা-দর্শকের শীর্ষ পাঁচে বাংলাদেশ

Send
অদিতি খান্না, যুক্তরাজ্য
প্রকাশিত : ০০:১৫, জুন ১৯, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ০০:১৫, জুন ১৯, ২০১৯

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির বিদেশি শ্রোতা-দর্শকদের তালিকায় শীর্ষ পাঁচে জায়গা করে নিয়েছে বাংলাদেশ। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ থেকে সপ্তাহে ১ কোটি ২০ লাখ গ্রাহক বিবিসির সংবাদ দেখেছেন বা শুনেছেন। মঙ্গলবার লন্ডনে প্রকাশিত দ্য গ্লোবাল অডিয়েন্স মেজারের প্রতিবেদনে এসব তথ্য উঠে আসে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রীয় অর্থায়নে পরিচালিত বিবিসির সাপ্তাহিক দর্শক ও শ্রোতা সংখ্যা ৪২ কোটি ৬০ লাখ। গত বছরের চেয়ে যা ৫ কোটি বেশি। এই তালিকার শীর্ষে ভারত। দেশটির ৫ কোটি মানুষ বিবিসির সংবাদ দেখেন কিংবা শুনে থাকেন। বাংলাদেশের সঙ্গে যৌথভাবে পঞ্চমস্থানে আফগানিস্তানও রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র রয়েছে তালিকার তৃতীয় স্থানে তাদের শ্রোতা-দর্শক সংখ্যা ৩ কোটি ৮০ লাখ। ৪ কোটি ১০ লাখ শ্রোতা-দর্শক নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে নাইজেরিয়া। আর চতুর্থস্থানে থাকা কেনিয়ায় ১ কোটি ৫০ লাখ মানুষ সপ্তাহে বিবিসি দেখেন কিংবা পড়েন।

বিবিসির মহাপরিচালক টনি হল বলেছেন, প্রতিদিনই আমাদের টিম বিশ্বের সবার কাছে স্বাধীন ও নিরপেক্ষ সংবাদ পৌঁছে দিতে দারুণ কাজ করে থাকে। আজ আমরা বুঝতে পারছি মানুষ বিবিসিকে কতটা মূল্য দেয়। তিনি বলেন, বিনিয়োগের জন্য সরকারকে ধন্যবাদ। তাদের জন্যই আমরা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিস আজকের এই অবস্থানে এসেছে।

বিশ্বজুড়ে বিবিসি নিউজের দর্শক সংখ্যা ৩৯ কোটি ৪০ লাখ। যা গতবারের ৪ কোটি ৭০ লাখ। আর ৪২টি ভাষায় বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিস রেডিওর শ্রোতা সংখ্যা ৩১ কোটি ৯০ লাখ। যা গতবারের তুলনায় ৪ কোটি ১০ লাখ বেশি। ইংরেজি ভাষায় বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিস রেডিও ও টিভি চ্যানেলে দর্শক সংখ্যা যথাক্রমে ৯ কোটি ৭০ লাখ ও ১০ কোটি ১০ লাখ। আর ওয়াল্ড সার্ভিসের বাংলাসহ ৪২টি ভাষায় শ্রোতা সংখ্যা ২৫ কোটি ৯০ লাখ।

বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিসের পরিচালক জেমি আর্গাস বলেন, বিবিসির সাপ্তাহিক শ্রোতা সংখ্যা ৫০ কোটি। বিবিসি ওয়ার্ল্ড সার্ভিস রেডিও এবং ওয়ার্ল্ড নিউজেও আগের সব রেকর্ড ভেঙে ফেলেছি আমরা। তিনি বলেন, সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো আমরা এখনও দুর্দান্ত সাংবাদিকতা করে যাচ্ছি যা দর্শক আকৃষ্ট করছে। এখানেই সর্বোচ্চ প্রভাব পড়ছে। আফ্রিকা আইয়ের মতো অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা যেমন করছি তেমনি ফেক নিউজ ও ভুল তথ্যের বিরুদ্ধে আমাদের অবস্থান শক্ত। বিবিসি দেখিয়ে দিচ্ছে কেন এটি বিশ্বের সবচেয়ে বিশ্বাসযোগ্য সম্প্রচারমাধ্যম।

/এমএইচ/

লাইভ

টপ