জোরপূর্বক ‘জয় শ্রীরাম’ বলানোর পর ‍মুসলিম যুবককে পিটিয়ে হত্যা

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১১:১৩, জুন ২৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১১:২৮, জুন ২৪, ২০১৯

ভারতে ঝাড়খণ্ডে ‘চোর সন্দেহে’ এক মুসলিম যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। ১৮ ঘণ্টা ধরে বেধড়ক মারধরের পর অচেতন হয়ে পড়লে তাকে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। এর আগে জোর করে ‘জয় শ্রীরাম’, ‘জয় হনুমান' বলতে বাধ্য করা হয় তাকে। 

নৃশংস হত্যাকাণ্ডের শিকার হওয়ার ২৪ বছরের ওই ব্যক্তির নাম তবরেজ আনসারি। ইতোমধ্যেই ঝাড়খণ্ডের খারসাওয়ান এলাকার ওই গণপিটুনির একাধিক ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে।

ভিডিওতে দেখা যায়, এক ব্যক্তি তবরেজকে একটি কাঠের লাঠি দিয়ে নৃশংসভাবে মারধর করছে। আক্রান্ত যুবক ছেড়ে দেওয়ার আকুতি নিয়ে হাত জোড় করলেও তাতে কোনও ভ্রুক্ষেপ নেই মারধরকারী উন্মত্ত ব্যক্তির।

আরেক ভিডিওতে দেখা গেছে, জোর করে তবরেজকে বলানো হচ্ছে 'জয় শ্রী রাম' ও 'জয় হনুমান'।

গত ১৮ জুন তবরেজকে বেধড়ক পেটানোর পর পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়। তখন থেকে সে বিচার বিভাগীয় হেফাজতে ছিল। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় ২২ জুন তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হলে সেদিনই তার মৃত্যু হয়। এই ঘটনায় অন্যতম অভিযুক্ত পাপ্পু মণ্ডলকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

পুনেতে দিনমজুরের কাজ করতেন তবরেজ। পরিবারের সঙ্গে ঈদ কাটাতে তিনি গ্রামে গিয়েছিলেন। সেই সময় তার বিয়ের আয়োজন করে পরিবারের সদস্যরা।

১৮ জুন তিনি দুই ব্যক্তির সঙ্গে জামশেদপুর রওনা দেন। ওই দুইজন তাকে ফুঁসলিয়ে নিয়ে যাচ্ছে, তা বুঝতে পারেনি তবরেজ। এক পর্যায়ে ভিড়ের মধ্যে ওই দুইজন পালিয়ে যায়। মাঝখানে পড়ে যায় তবরেজ। ভিডিওতে বলতে শোনা গেছে, 'তুই এই বাড়িতে ঢুকবি?' উত্তরে তবরেজ বলেন, তিনি এর কিছুই জানেন না। দুই ব্যক্তি তাকে সেখানে নিয়ে গিয়েছে।

ভিডিওতে দেখা গেছে, উন্মত্ত জনতা তাকে মারধর করছে। এরমধ্যেই তিনি কাতরে বলতে থাকেন, আমার মা মারা গেছেন। তার নামে শপথ করে বলছি, আমি এমন কাজ (চুরি) করিনি। তবে তবরেজের কথা কথা কেউ শুনতে চায়নি। সূত্র: দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া।

/এমপি/

লাইভ

টপ