ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎকারে হোয়াইট হাউসের ভিত কেঁপে উঠেছে: রুহানি

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২০:২০, আগস্ট ০১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২২:৪১, আগস্ট ০১, ২০১৯

ইরানি পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফের বিরুদ্ধে আরোপিত মার্কিন নিষেধাজ্ঞাকে ‘শিশুসুলভ আচরণ’ আখ্যা দিয়েছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত এক ভাষণে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের নামোল্লেখ না করে বলেছেন, একটি দেশ তাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎকারে ভীত হয়ে পড়েছে। জাভেদের সুদক্ষ কূটনীতিকে হোয়াইট হাউজের ভিত কেঁপে উঠেছে বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।

বিগত কয়েক মাস ধরে তেহরান ও ওয়াশিংটনের ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যে বুধবার ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ মন্ত্রণালয়। মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রে থাকা ও সে দেশের কোনও সংস্থা কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত জাভেদ জারিফের যে কোনও সম্পদ বাজেয়াপ্ত করা হবে। তবে জারিফ দাবি করেছেন যুক্তরাষ্ট্রে তার কোনও সম্পদ নেই।

বৃহস্পতিবার ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেন,  ‘তারা (আমেরিকানরা) এখন শিশুসুলভ আচরণ শুরু করেছে। ... প্রতিদিনই তারা দাবি করছে কোনও পূর্বশর্ত ছাড়াই আলোচনা করতে চাই... আর তারপরেই তারা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে।’

২০১৫ সালে ইরানের সঙ্গে ছয় বিশ্বশক্তির স্বাক্ষরিত পারমাণবিক চুক্তি থেকে গত বছর যুক্তরাষ্ট্রের বের হয়ে যাওয়ার ঘোষণা দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ওই ঘোষণার পর থেকে  ইরানের বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল শুরু করে ট্রাম্প প্রশাসন। তখন থেকেই দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা চলে আসছে। গত কয়েক মাসে উপসাগরীয় এলাকায় কয়েকটি তেলবাহী ট্যাংকারে বিস্ফোরণের ঘটনায় ইরানকে দায়ী করেছে যুক্তরাষ্ট্র। তবে তেহরান এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। আবার মার্কিন একটি ড্রোন ভূপাতিত করেছে ইরান। এসব ঘটনার জেরে দুই দেশের সম্পর্কের আরও অবনতি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার হাসান রুহানি বলেন, ‘নিজেদের ক্ষমতাবান ও সুপার পাওয়ার মনে করা একটি দেশ আমাদের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎকারে ভীত হয়ে পড়েছে।’ বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে, গত জুলাইতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ নিউ ইয়র্ক সফরে বেশ কয়েকটি মার্কিন সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দেন। প্রেসিডেন্ট রুহানি ওই সাক্ষাৎকারগুলোর দিকে এক ইঙ্গিত করে এই মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেছেন, ‘জারিফ যখন নিউ ইয়র্কে একটি সাক্ষাৎকার দেন... তারা (আমেরিকানরা) বললো ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জনমতকে বিভ্রান্ত করছেন। তখন তোমাদের স্বাধীনতা, মত প্রকাশের স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের দাবি কোথায় গেল?’  রুহানির দাবি, 'একজন জ্ঞানী, আত্মনিবেদিত কূটনীতিকের যুক্তিপূর্ণ কথায় হোয়াইট হাউসের ভিত কেঁপে উঠেছে'।

১৭ বছর বয়স থেকে যুক্তরাষ্ট্রে বসবাস করেছেন ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাভেদ জারিফ। সান ফ্রান্সিসকো ও ডেনভারে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের শিক্ষার্থী ছিলেন তিনি। পরে তিনি জাতিসংঘের কূটনীতিক হিসেবে নিউ ইয়র্কে ছিলেন। ২০০২ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত জাতিসংঘে ইরানের রাষ্ট্রদূত ছিলেন তিনি।

 

/জেজে/বিএ/

লাইভ

টপ