ওহাইও'র হামলাকারী ছিল বর্ম পরা

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:১২, আগস্ট ০৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:০৯, আগস্ট ০৪, ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্রের ওহাইও অঙ্গরাজ্যের দায়টোন শহরের হামলাকারী ছিল বর্ম পরা। রবিবার ভোরে চালানো ওই বন্দুক হামলায় অন্তত নয় জন নিহত এবং ১৬ জন আহত হয়। টেক্সাসে বন্দুক হামলায় ২০ জন নিহত হওয়ার ১৩ ঘণ্টার মধ্যে এ হামলা চালানো হয়। পরে স্থানীয় সময় রাত একটার দিকে শহরের ওরেগন জেলার একটি বারের বাইরে সন্দেহভাজন হামলাকারীকে হত্যার কথা নিশ্চিত করে পুলিশ।
মন্টগোমেরি কাউন্টি ইমার্জেন্সি সার্ভিসের মুখপাত্র ডেব ডেকার বলেন, ওহাইওর হামলাকারী ছিল বর্ম পরা।

দায়টোনের উপ-পরিচালক ও সহকারী পুলিশ প্রধান লেফটেন্যান্ট কর্নেল ম্যাট কার্পার জানান, হামলাকারীকে নিবৃত্ত করতে গিয়ে কোনও কর্মকর্তা আহত হননি।

স্থানীয় নেড পিপারস বার সংলগ্ন এলাকায় এ হামলা চালানো হয়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে পোস্ট করা ভিডিওতে দেখা গেছে, রাস্তায় বন্দুকের শব্দের মধ্যেই মানুষ দৌড়ে পালাচ্ছে। বার কর্তৃপক্ষের এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, তাদের সব স্টাফ নিরাপদ আছেন।

রবিবার ভোরে দায়টোন পুলিশ বিভাগের এক টুইট বার্তায় লেখা হয়, ‘হামলা শুরুর সময়ে কাছাকাছি স্থানে আমাদের কর্মকর্তারা ছিলেন। তারা শিগগিরই এর অবসান ঘটান।’
সহকারী পুলিশ প্রধান ম্যাট কারপার সাংবাদিকদের বলেন, টহলে থাকা পুলিশ কর্মকর্তারা সন্দেহভাজন হামলাকারীকে হত্যা করতে সমর্থ হয়েছে। এ ধরনের পরিস্থিতির জন্য আমাদের কর্মকর্তারা খুব ভালোভাবে প্রশিক্ষিত। হামলার সময়ে কাছাকাছি পুলিশ কর্মকর্তাদের উপস্থিত থাকার ঘটনাকে খুবই সৌভাগ্যজনক বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সন্দেহভাজন ওই হামলাকারীর পরিচয় প্রকাশ করা হয়নি। পুলিশ কর্মকর্তা ম্যাট কারপার বলেন, হামলার উদ্দেশ্য উদঘাটনে তারা তৎপর রয়েছেন।

এর আগে শনিবার টেক্সাসের এল পাসো শহরের ওয়ালমার্ট স্টোরে হামলা চালায় সন্দেহভাজন এক বন্দুকধারী। ওই হামলায় ২০ জন নিহত ও ২৬ জন আহত হয়েছেন। ওই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ২১ বছর বয়সী প্যাট্রিক ক্রসিয়াস নামের এক তরুণকে আটক করেছে মার্কিন কর্তৃপক্ষ। সিসিটিভি ফুটেজে কালো রঙের টি-শার্ট পরা ওই তরুণকে অ্যাসল্ট ধরনের রাইফেল হাতে হামলা চালাতে দেখা গেছে। এর ১৩ ঘণ্টার মাথায় রবিবার ভোরে ওহাইওতে বন্দুক হামলার ঘটনা ঘটে।

/এমপি/এমওএফ/

লাইভ

টপ