ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে গোপন আলোচনার স্বীকারোক্তি দিলেন মাদুরো

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২০:০২, আগস্ট ২১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:২৫, আগস্ট ২১, ২০১৯

ভেনেজুলেয়ার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো স্বীকার করেছেন, ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে তার দেশের শীর্ষ কর্মকর্তাদের গোপন আলোচনা হয়েছে। দেশের দ্বিতীয় শীর্ষ ব্যক্তি তার পতনের ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে গোপন আলাপ চালিয়ে যাচ্ছেন; এমন খবর সামনে আসার পর এই স্বীকারোক্তি দিলেন মাদুরো। তবে তিনি দাবি করেছেন, তার নির্দেশনা মেনেই ওই গোপন আলোচনা হয়েছে।  

মঙ্গলবার রাতে টেলিভিশন ভাষণে ভেনেজুয়েলার এই নেতা বলেন, ‘আমি নিশ্চিত করছি যে আমার নির্দেশনা ও মতামত নিয়ে কয়েক মাস ধরে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প প্রশাসন ও আমাদের সরকারের মধ্যে যোগাযোগ হয়েছে।’ মাদুরো আরও বলেন, ‘বিভিন্ন চ্যানেলের মাধ্যমে বিভিন্ন যোগাযোগ হয়েছে।’

নির্বাচনি কারচুপির অভিযোগ আর অর্থনৈতিক সংকটের বিরুদ্ধে এ বছরের শুরুতে ভেনেজুয়েলায় বিক্ষোভ শুরু হয়। বিক্ষোভের সুযোগে ২৩ জানুয়ারি নিজেকে অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন বিরোধীদলীয় নেতা হুয়ান গুইদো। প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরোর সরকারকে অবৈধ দাবি করে নিজেকে বৈধ অন্তর্বর্তী প্রেসিডেন্ট ঘোষণা করেন তিনি। এক ভিডিও বার্তায় আকস্মিক অভ্যুত্থানের ঘোষণা দেন গুইদো। ভিডিওতে তার সঙ্গে বেশ কয়েকজন সামরিক সদস্যকেও দেখা যায়। এই অভ্যুত্থানে সমর্থন ঘোষণা করে যুক্তরাষ্ট্র। পরে ওই অভ্যুত্থান প্রচেষ্টা নস্যাতের দাবি করেন প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো। তিনি বলেন, ভেনেজুয়েলা কখনোই সাম্রাজ্যবাদী শক্তির কাছে নত হবে না। তখন থেকে এই বিষয়টি নিয়ে বিরোধ চলছে যুক্তরাষ্ট্র ও ভেনেজুয়েলার মধ্যে।

ভেনেজুয়েলার সবচেয়ে ক্ষমতাবান ব্যক্তিদের একজন ডায়োসাদো ক্যাবেলো ট্রাম্প প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে ‘গোপন যোগাযোগে’ যুক্ত আছেন; মার্কিন সংবাদমাধ্যমের দুটি প্রতিবেদনে এমন তথ্য উঠে আসার পর মাদুরো এই মন্তব্য করলেন।

রবিবার সংবাদমাধ্যম এক্সিওস দাবি করেছে, মাদুরোপন্থী গণপরিষদের প্রধান ৫৬ বছর বয়সী ক্যাবেলো ট্রাম্পের লাটিন আমেরিকা বিষয়ক উপদেষ্টা মরিসিও ক্ল্যাভার-ক্যারোনের সঙ্গে যোগাযোগ করেছেন। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মাদুরোর সার্কেলে ‘ধীরে ধীরে ফাটল ধরছে’- এটা ইতিবাচক ইঙ্গিত হিসেবে বিবেচনা করছেন ট্রাম্প প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তা।

এদিকে মার্কিন বার্তা সংস্থা এপি দাবি করেছে, গত মাসে কারাকাসে ‘ট্রাম্প প্রশাসনের ঘনিষ্ঠ সূত্রের’ কারও সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন ক্যাবেলো। ধারণা করা হচ্ছে, এটা দুই পক্ষের মধ্যে দ্বিতীয় সাক্ষাৎ। প্রতিবেদন অনুযায়ী, এই যোগাযোগে ক্যাবেলোর সংশ্লিষ্টতা থাকার কারণে মাদুরো প্রশাসনের শীর্ষস্তরে সম্ভবত একটি অভ্যন্তরীণ কোন্দল তীব্র হবে।

লন্ডনের চাথাম হাউস থিঙ্কট্যাংকের লাটিন আমেরিকা বিষয়ক সিনিয়র ফেলো ক্রিস্টফার স্যাবাটিনি বলেন, ‘আমি মনে করি যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মানসিক অপারেশন ধরনের কিছু করার চেষ্টা করছে, মাদুরো প্রশাসনের লোককে বিড়ম্বনা দেওয়ার চেষ্টা করছে।’

/এইচকে/বিএ/এমওএফ/

লাইভ

টপ