পুলিশের ধাওয়ায় পানিতে ডুবে কাশ্মিরি শিক্ষার্থীর মৃত্যু

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২১:২৩, আগস্ট ২২, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:৪২, আগস্ট ২২, ২০১৯

কাশ্মিরের স্বায়ত্তশাসন বাতিলের সিদ্ধান্ত ঘোষণার দিনেই পুলিশের ধাওয়ায় পানিতে ডুবে মৃত্যু হয়েছে ১৫ বছরের কাশ্মিরি শিক্ষার্থী উসাইব আহমাদের। তার পরিবারের সদস্যরা ফরাসি বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, ওই শিক্ষার্থীর দাফনের সময়েও পুলিশি হামলার মুখে পড়েছিলেন তারা।

গত ৫ আগস্ট (সোমবার) ভারতীয় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের মধ্য দিয়ে কাশ্মিরের স্বায়ত্তশাসনের অধিকার কেড়ে নেওয়া হয়। এর আগ মুহূর্তে জম্মু-কাশ্মিরে আধাসামরিক বাহিনীর অতিরিক্ত ৩৫ হাজার সদস্য মোতায়েন করা হয়। পরে নতুন করে সেখানে নিয়োজিত হয় আধাসামরিক বাহিনীর আরও ৮ হাজার সদস্য। উপত্যকায় কারফিউ জারির পাশাপাশি টেলিফোন-ইন্টারনেট সেবাও বন্ধ রাখা হয়েছে। এতসব সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়ার পরেও সেখানে বিক্ষোভ ঠেকাতে পারছে না ভারতীয় কর্তৃপক্ষ।

ভারত সরকারের সিদ্ধান্ত ঘোষণার পর শ্রীনগরে নিজ বাড়ির কাছেই ছিল উসাইব আহমাদ। তার পরিবারের দাবি, সেদিন কাছাকাছি বিক্ষোভ শুরু হলে পুলিশ তাজা গুলি ও টিয়ারশেল ছুড়ে বিক্ষোভকারীদের নদীর তীরের দিকে ধাওয়া দেয়। আর সেখানে ডুবে মারা যায় উসাইব।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তার এক আত্মীয় বলেন, ‘পাঁচ ঘণ্টা পর পানি থেকে তার মৃতদেহ তোলা হয়। তার দাফনের সময়েও হামলা চালায় পুলিশ’। তিনি বলেন, তারা মৃতদেহ কেড়ে নিতে চাইছিল। কারণ, আরও বিক্ষোভের আশঙ্কা ছিল তাদের।

ভারতীয় কর্তৃপক্ষ বলছে, অচলাবস্থা আরোপের কারণে কাশ্মিরে কারও মারা যাওয়ার বিশ্বাসযোগ্য কোনও প্রমাণ নেই। কেবল আট জন আহত হয়েছে বলে স্বীকার করেছে তারা। তবে একাধিক হাসপাতাল সূত্র এএফপিকে জানিয়েছে, অন্তত একশো মানুষ আহত হয়েছে। এদের কেউ কেউ আগ্নেয়াস্ত্রে আহত হয়েছে। ছররা গুলিতে আহত ব্যক্তিরা বার্তা সংস্থাটিকে বলেছেন, হাসপাতালে গেলে আটক করা হতে পারে এই আশঙ্কায় আহত অনেকেই বাড়িতে চিকিৎসা নিয়েছেন।

/জেজে/বিএ/এমওএফ/

লাইভ

টপ