রাশিয়া সফরে মোদি, সামরিক সহযোগিতা জোরদারের তাগিদ

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৪:৩৯, সেপ্টেম্বর ০৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৪:৫৫, সেপ্টেম্বর ০৪, ২০১৯

দুই দিনের সফরে বুধবার রাশিয়া পৌঁছেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সফরে দুই দেশের মধ্যে সামরিক সহযোগিতা জোরদারের তাগিদ দিয়েছেন তিনি। রুশ সংবাদমাধ্যম তাস-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে নরেন্দ্র মোদি বলেন, কম দামে সামরিক সরঞ্জাম উৎপাদনের জন্য দিল্লি ও মস্কোর মধ্যে পারস্পরিক সমঝোতার মাধ্যমে ভারতে স্বল্প উৎপাদন ব্যয়ের সুবিধা নেওয়া দরকার। প্রযুক্তি স্থানান্তর করা হলে সস্তা শ্রমের ভারতে উৎপাদনের মাধ্যমে সামরিক সরঞ্জামের উৎপাদন খরচ কমানো যেতে পারে। এতে করে এসব সমরাস্ত্র খুব কম দামে তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলোতে সরবরাহ করা সম্ভব হবে। ভারত ও রাশিয়ার এই সুযোগটি কাজে লাগানো দরকার।
এমন সময়ে মোদি-র এ সফর অনুষ্ঠিত হচ্ছে যখন কাশ্মিরে ভয়াবহ মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং আসামের প্রায় ১৯ লাখ বাসিন্দাকে ‘রাষ্ট্রহীন মানুষে’ পরিণত করেছে ভারত। সফরে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে তার বৈঠকের কর্মসূচি রয়েছে। যোগ দেবেন ইস্টার্ন ইকোনমিক ফোরামের বৈঠকেও।

ভারতের প্রধানমন্ত্রীর প্রত্যাশা তার এ সফরের মধ্য দিয়ে দুই দেশের সম্পর্কে একটি নতুন গতি সঞ্চার করবে। রুশ সংবাদমাধ্যম তাস-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘আমার কাছে তো মনে হয় প্রকৃতি নিজেই এ দুটি দেশকে পরস্পরের সঙ্গে সংযুক্ত করেছে। উদাহরণ হিসেবে বলতে পারি, প্রতি ডিসেম্বর মাসে সাইবেরিয়ান সারসগুলো আমার জন্মস্থান গুজরাটে উড়ে যায়। তাদের কাছে এ যেন এক বেড়ানোর জায়গা। সাইবেরিয়ান সারস এখান থেকে গুজরাটে উড়ে যায়, আবার বহু ভারতীয়ও সুদূর প্রাচ্যে যান। এ যেন এক প্রাকৃতিক সংযোগ।’

নরেন্দ্র মোদি বলেন, ভারত ও রাশিয়ার মধ্যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক সামরিক ও প্রযুক্তিগত সহযোগিতার বাইরেও প্রসারিত হয়েছে। ভারতের প্রথম মানবিক মিশন, গগনায়ন প্রকল্পের জন্য নভোচারীদের প্রশিক্ষণে মস্কোর সহায়তার প্রতি ইঙ্গিত করেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘ভারতে তথ্যপ্রযুক্তির যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে। আমরা মহাকাশ গবেষণা ক্ষেত্রেও সাফল্য অর্জন করছি। বর্তমানে যেমন আমরা গগনায়ন প্রকল্পের বিকাশ সাধনে কাজ করছি। রাশিয়া আমাদের নভোচারীদের প্রশিক্ষণে সহায়তা করছে। এই সহযোগিতা কেবল সামরিক ও প্রযুক্তিগত ক্ষেত্রে আর সীমাবদ্ধ নেই। এটি ওই নির্দিষ্ট কাঠামো ছাড়িয়ে আরও বেড়েছে।

অন্য এক সাক্ষাৎকারে মোদি বলেন, তিনি বাঘপ্রেমী ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে বাঘ সংরক্ষণ নিয়ে আলোচনার পরিকল্পনা করছেন। তার ভাষায়, ‘আমাদের সম্পর্কের একটা বিশেষ রসায়ন রয়েছে, বিশেষ স্বাচ্ছন্দ্য রয়েছে। প্রতিটি দ্বিপাক্ষিক বৈঠকের পর আমরা আরও ঘনিষ্ঠ হয়েছি। আমাদের সম্পর্ক ক্রমশই গাঢ় হচ্ছে।’ সূত্র: এনডিটিভি।

/এমপি/

লাইভ

টপ