জনসনের বিরুদ্ধে ভোট দিয়ে দল থেকে বহিষ্কৃত হচ্ছেন চার্চিলের নাতি

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৭:৪১, সেপ্টেম্বর ০৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৭:৪৮, সেপ্টেম্বর ০৪, ২০১৯

ব্রেক্সিট ইস্যুতে যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের বিরুদ্ধে ভোট দেওয়ার পর কনজারভেটিভ পার্টি থেকে বহিষ্কৃত হতে যাচ্ছেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী উইন্সটন চার্চিলের নাতি নিকোলাস সোমস। ব্রেক্সিট ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী জনসনের বিরুদ্ধে ভোট দেওয়া কনজারভেটিভ পার্টির ২১ আইনপ্রণেতার একজন হলেন নিকোলাস সোমস। তাকে বহিষ্কার করা হবে বলে নিশ্চিত করেছেন তিনি। তবে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় দশ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটের মুখপাত্র জানিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে ভোট দেওয়া সব আইনপ্রণেতাকেই বহিষ্কার করা হবে। এই পদক্ষেপকে ব্রেক্সিট সংকটের তিন বছরের মধ্যে অদ্ভূত ঘটনাগুলোর মধ্য একটি বলে আখ্যা দিয়েছে দেশটির বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

ব্রেক্সিট ইস্যুতে সমঝোতায় পৌঁছাতে ব্যর্থ হয়ে গত মে মাসে পদত্যাগের ঘোষণা দেন যুক্তরাজ্যের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। তিনি সরে দাঁড়ানোর পর  ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হন কট্টর ব্রেক্সিটপন্থী বরিস জনসন। নির্বাচিত হওয়ার পর আগামী ৩১ অক্টোবর নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ব্রেক্সিট বাস্তবায়নের ঘোষণা দিয়েছেন তিনি। প্রয়োজনে চুক্তিহীন ব্রেক্সিট বাস্তবায়নেরও ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি।  চুক্তিবিহীন ব্রেক্সিট বাস্তবায়নে পার্লামেন্টের সেশন সংক্ষিপ্ত করেছেন তিনি। মঙ্গলবার জনসন সরকারের ব্রেক্সিটনীতির বিরোধীরা পার্লামেন্টে একটি প্রস্তাব তোলেন। এই প্রস্তাবে যুক্তরাজ্যের স্বার্থ রক্ষায় চুক্তি চূড়ান্ত করতে ব্রেক্সিট আরও পিছিয়ে দেওয়ার কথা বলা হয়। ওই প্রস্তাব পাশ হলে হেরে যান ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী।

জনসন সরকারের বিরুদ্ধে এই উদ্যোগে শামিল হন কনজারভেটিভ পার্টির ২১ ২১ আইনপ্রণেতা।এদের মধ্যে চার্চিলের নাতি ছাড়াও রয়েছেন পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষের সবচেয়ে বেশি সময় ধরে থাকা আইনপ্রণেতা কেন ক্লার্ক ও সাবেক অর্থমন্ত্রী ফিলিপ হ্যামন্ড। তারাও বহিষ্কৃত হবেন বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

ডাউনিং স্ট্রিটের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, নিজ দলের বিদ্রোহী ও বিরোধীদের কাছে পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারানোর পর দলের যারা তার আদেশ অস্বীকার করেছেন, তাদের বহিষ্কার করবেন।

উইন্সটন চার্চিলের নাতি ও কনজারভেটিভ পার্টির আইনপ্রণেতা নিকোলাস সোমস জানান পার্লামেন্টে চিফ হুইপ তাকে বহিষ্কারের কথা নিশ্চিত করেছেন। চিফ হুইপকে নিজের বন্ধু ও পছন্দের মানুষ আখ্যা দিয়ে তিনি বলেন, পার্লামেন্টে ৩৭ বছর কনজারভেটিভ পার্টির সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালনের পর আমার সদস্যপদ অপসারণ করার চিঠি লেখা তার জন্য দুঃখজনক হবে।

প্রসঙ্গত, ১৯৮৩ সাল থেকে পার্লামেন্টের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন ৭১ বছর বয়সী নিকোলাস হোমস। উইন্সটন চার্চিলের বড় ছেলে ম্যারি সোমসের ছেলে হলেন সাবেক এই জুনিয়র প্রতিরক্ষামন্ত্রী। ২০১৪ সালে তাকে নাইটহুড উপাধি দিয়েছিলেন রাণী এলিজাবেথ।

/এইচকে/জেজে/

লাইভ

টপ