কাবুলে মার্কিন দূতাবাসের কাছে তালেবান হামলা, নিহত অন্তত ১০

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৯:৪৭, সেপ্টেম্বর ০৫, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৫২, সেপ্টেম্বর ০৫, ২০১৯

আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের কঠোর নিরাপত্তাবেষ্টিত কূটনৈতিক এলাকা শাশ দারকে গাড়িবোমা হামলায় অন্তত ১০জন  নিহত হয়েছেন। এ বোমা হামলায় আহত হয়েছেন আরও বেশ কয়েকজন। এই এলাকাতেই যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস ও অন্যান্য কূটনীতিক মিশন অবস্থিত। বৃহস্পতিবারের এ বোমা হামলার দ্বায় স্বীকার করেছে সশস্ত্রগোষ্ঠী তালেবান। কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা এ তথ্য জানায়।

টুইন টাওয়ার হামলার পর আফগানিস্তানে মার্কিন আগ্রাসনের অংশ হিসেবে সামরিক জোট ন্যাটো হামলা চালিয়ে তালেবান সরকারকে ক্ষমতা থেকে উৎখাত করে। তখন থেকেই যুক্তরাষ্ট্র ও তাদের মিত্রদের বিরুদ্ধে সশস্ত্র লড়াই করে যাচ্ছে গোষ্ঠীটি। দীর্ঘ ১৮ বছরের যুদ্ধ অবসানের লক্ষ্যে গত বছরের জুন থেকে কাতারের রাজধানী দোহায় মার্কিন কর্মকর্তাদের সঙ্গে ধারাবাহিক আলোচনা শুরু করেন তালেবান কর্মকর্তারা। তারই ধারাবাহিকতায় চলতি সপ্তাহেই আফগান ও মার্কিন কর্মকর্তারা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ মধ্যস্থতাকারী জালমে খলিলজাদ জানিয়েছেন, আফগানিস্তানের ৫টি সেনাঘাঁটি থেকে মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহারের একটি খসড়া কাঠামো নিয়ে সমঝোতায় পৌঁছেছে তারা।

যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে তালেবানদের শান্তি আলোচনা চলাকালেই বৃহস্পতিবার সকাল ১০টার দিকে কাবুলের গ্রিন জোন সংলগ্ন কূটনৈতিক এলাকায় এই গাড়িবোমা হামলা চালানো হয়। এই এলাকাতে আগফানিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার অধিদপ্তরও রয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, সকাল ১০টা ১০ মিনিটে একটি ধূসর মিনিভ্যান বিস্ফোরতি হয়। আত্মঘাতী গাড়িটি চেকপোস্ট অতিক্রম করার সময় বিস্ফোরিত হয় এবং পরে সেখানে এক পথচারী দৌঁড়ে পালিয়ে যাওয়ার আগে দ্বিতীয় গাড়ির বিস্ফোরণ হয়। এ ছবি ও ভিডিও ফুটেজে বেশ কয়েকটি গাড়ি ও দোকানের ছিন্নভিন্ন অবস্থা এবং পুলিশের ঘটনাস্থল ঘিরে রাখার দৃশ্য দেখা গেছে।

আফগানিস্তানের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র নাসরাত রাহিমি বলেন, ‘এ হামলায় ১০ জন নিহত হয়েছেন। এ হামলার দায় স্বীকার করেছে তালেবান গোষ্ঠী। কাতারের দোহায় যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যাদের শান্তি আলোচনা চলছে।’

বিস্ফোরণস্থলের কাছের ওয়াজির আকবর খান হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদ আহমদ করিমি ফ্রান্সের বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছেন, আহত ও নিহতদের মধ্যে বেসামরিক নাগরিক ও নিরাপত্তা বাহিনীর কর্মকর্তা রয়েছেন।

সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইসরায়েলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তালেবান বলছে যে তারা ‘বিদেশিদের’ যানবাহন টার্গেট করেছিল। তাই কঠোর নিরাপত্তাবেষ্টিত শাশ দারক এলাকায় প্রবেশের চেষ্টা করেছিল তারা।

এর আগে সোমবার কাবুলের পূর্বাঞ্চলে তালেবানদের বড় ধরনের দ্বিতীয় হামলার পর এলাকাটি সিলগালা করে দিয়েছে পুলিশ। সোমবারের ওই আত্মঘাতী হামলায় ১৬ জন নিহত হয় ও আহত হয় শতাধিক।

সম্প্রতি তালেবানরা প্রায় প্রতিদিন আফগানিস্তানের নিরাপত্তাবাহিনীকে লক্ষ্য করে হামলা চালাচ্ছে। এসব হামলা মূলত নিরাপত্তাবাহিনীর গ্রামীণ ফাঁড়িগুলোতে চালানো হচ্ছে।

 

/এইচকে/এএ/

লাইভ

টপ