কুর্দিরা হয়তো আইএস জঙ্গিদের ছেড়ে দিচ্ছে: ট্রাম্প

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২১:১৮, অক্টোবর ১৪, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:১৯, অক্টোবর ১৪, ২০১৯

সিরিয়ার কুর্দি বিদ্রোহীরা হয়তো তাদের হাতে বন্দি কিছু আইএস জঙ্গিকে ছেড়ে দিচ্ছে। এমন আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সোমবার টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে তিনি এমন আশঙ্কার কথা জানান।
ট্রাম্প বলেন, তুর্কি অভিযান শুরুর পর কুর্দিরা হয়তো আইএসের কিছু বন্দিকে মুক্তি দিয়েছে; যাতে যুক্তরাষ্ট্র এই সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে। এ অবস্থায় তুরস্কের এবং ইউরোপের দেশগুলো সহজেই তাদের পুনরায় বন্দি করতে পারতো। তারা তা করলো না। কিন্তু আমরা আরও একটি যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ছি না, যেখানে ২০০ বছর ধরে লোকজন পরস্পরের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করছে।

ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, তুরস্কের বিরুদ্ধে বড় ধরনের নিষেধাজ্ঞা আসছে। লোকজন কি সত্যিই এটা ভাবে যে, ন্যাটো জোটের সদস্য তুরস্কের সঙ্গে আমাদের যুদ্ধ করা উচিত? তাতে সীমাহীন যুদ্ধের অবসান হবে!

এদিকে তুরস্ক জানিয়েছে, আন্তর্জাতিক আইন মেনেই তারা সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে সামরিক অভিযান পরিচালনা করছে। সোমবার ফ্রান্স সফররত তুর্কি বিচারমন্ত্রী আবদুলহামিত গুল বলেছেন, তুরস্ক অন্য কোনও দেশের ভূখণ্ডে নজর দিচ্ছে না। সেখানে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াই করাই আমাদের লক্ষ্য। আর আন্তর্জাতিক আইনের কাঠামোর আওতার মধ্যেই এ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে।

২০১৯ সালের ৯ অক্টোবর তুর্কি সীমান্তবর্তী সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে ‘অপারেশন পিস স্প্রিং’ নামে সামরিক অভিযান শুরু করে তুরস্ক। এ অভিযানের মাধ্যমে অঞ্চলটি থেকে আইএস জঙ্গি ও কুর্দি বিদ্রোহীদের বিতাড়িত করে সেখানে একটি সেফ জোন প্রতিষ্ঠা করতে আগ্রহী আঙ্কারা। এ সেফ জোনে দীর্ঘদিন ধরে তুরস্কে বসবাসরত সিরীয় শরণার্থীদের বসবাসের ব্যবস্থা করতে চায় আঙ্কারা।

অভিযানের অংশ হিসেবে তুরস্ক সমর্থিত সিরিয়ান ন্যাশনাল আর্মি ইউফ্রেতাসের পূর্বদিকে প্রবেশ করেছে। তুর্কি অভিযানে সহযোগিতার জন্য তারা অগ্রসর হচ্ছে। পরে কুর্দি নিয়ন্ত্রিত সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলীয় অভিযানে বিমান হামলা ও স্থল অভিযান জোরালো করে তুরস্ক। এতে পাঁচ শতাধিক ‘জঙ্গি’ নিহত হয়েছে বলে দাবি করেছে আঙ্কারা। মানবাধিকার সংগঠনগুলো জানিয়েছে, এ অভিযানে ৩৮ বেসামরিক ব্যক্তি নিহত হয়েছে। এ সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা তাদের। তবে বিদেশি সংবাদমাধ্যমের সমালোচনা করে তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোয়ান বলেছেন, ‘তারা (বিদেশি সংবাদমাধ্যম) সবসময় একই কৌশল ব্যবহার করে। আমরা সত্য বলার চেষ্টা করবো।’

সোমবার সকালে সীমান্তবর্তী শহর তেল তামেরে সিরিয়ার সেনাবাহিনী প্রবেশের বিষয়ে তুর্কি প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘কোবানিতে সিরিয়ার সেনাবাহিনীতে আমি কোনও সমস্যা দেখিনি। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনও এ ব্যাপারে ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি প্রকাশ করেছেন।’ এর আগে কুর্দি নেতৃত্বাধীন প্রশাসনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, সিরিয়ার উত্তরে তুরস্কের অভিযান প্রতিরোধ করতে কুর্দি যোদ্ধাদের সহায়তায় সীমান্তে সরকারি সেনা মোতায়েন করছে দামেস্কো। সিরিয়া সরকারের সঙ্গে তাদের একটি সমঝোতা চুক্তির পর ওই সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সূত্র: রয়টার্স, আনাদোলু এজেন্সি।

/এমপি/

লাইভ

টপ