রাখাইনে মানবাধিকার লঙ্ঘনকারীদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে সু চিকে অ্যাবের আহ্বান

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২০:৫৪, অক্টোবর ২১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:৫৬, অক্টোবর ২১, ২০১৯

রাখাইনের মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে মিয়ানমারের সরকার ও সেনাবাহিনীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো অ্যাবে। সোমবার টোকিওতে মিয়ানমারের ডি ফ্যাক্টো নেত্রী ও রাষ্ট্রীয় উপদেষ্টা অং সান সু চি’র সঙ্গে এক বৈঠকে তিনি এই আহ্বান জানান। মিয়ানমারের সংবাদমাধ্যম ইরাবতী এখবর জানিয়েছে।

জাপানের সম্রাট নারোহিতোর অভিষেক অনুষ্ঠানে যোগ দিতে জাপান সফরে রয়েছেন সু চি। মঙ্গলবার এই অনুষ্ঠান আয়োজিত হবে।

সু চি’র সঙ্গে বৈঠকে শিনজো অ্যাবে বলেছেন, আমরা আশা করি স্বতন্ত্র তদন্ত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে রাখাইন রাজ্যে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগের বিষয়ে যথাযথ পদক্ষেপ নেবে মিয়ানমার সরকার ও সেনাবাহিনী।

জবাবে সু চি জানিয়েছেন, তিনি এই ইস্যু যথাযথভাবে চিহ্নিত করতে চান। প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে তিনি কোনও দ্বিধা করবেন না।

২০১৭ সালের আগস্টে রাখাইনের কয়েকটি নিরাপত্তা চৌকিতে হামলার পর পূর্বপরিকল্পিত ও কাঠামোগত সহিংসতা জোরালো করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধারার সহিংসতা ও নিপীড়ন থেকে বাঁচতে নতুন করে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ৭ লাখেরও বেশি মানুষ। এদের সঙ্গে রয়েছেন ১৯৮২ সাল থেকে নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচার জন্যে বাংলাদেশে পালিয়ে আশ্রয় নেওয়া আরও প্রায় ৩ লাখ রোহিঙ্গা। সব মিলে বাংলাদেশে থাকা রোহিঙ্গার সংখ্যা ১০ লাখের বেশি।

পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক চাপের মুখে ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে বাংলাদেশ-মিয়ানমার প্রত্যাবাসন চুক্তি সম্পন্ন হয়। একই বছরের ৬ জুন নেপিদোতে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন নিয়ে মিয়ানমার ও জাতিসংঘের সংস্থাগুলোর মধ্যেও সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ইস্যুতে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরের পর দীর্ঘদিন পার হলেও এর আওতায় কোনও শরণার্থী নিজ দেশে ফিরে যায়নি। মানবাধিকার গ্রুপগুলো দাবি করে আসছে, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের নিরাপদে বসবাসের মতো পরিস্থিতি তৈরি হয়নি।

রোহিঙ্গা প্রত্যর্পণের বিষয়ে জাপানের প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাস্তূচ্যুত মানুষদের প্রত্যর্পণের জন্য উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি অত্যাবশ্যক।

রোহিঙ্গা প্রত্যর্পণের বিষয়ে মধ্যস্থতা করছেন জাপানের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী তারো কানো। জুলাই মাসে তিনি বাংলাদেশ ও মিয়ানমার সফর করেছে।  

/এএ/

লাইভ

টপ