behind the news
Rehab ad on bangla tribune
Vision Refrigerator ad on bangla Tribune

কিশোর অপরাধের বিচার: ভারতের পথ বনাম যুক্তরাষ্ট্র

ফাহমিদা উর্ণি২০:২৩, ডিসেম্বর ২৩, ২০১৫

গুরুতর অপরাধে ১৬-১৮ বছর বয়সীদের প্রাপ্তবয়স্কদের মতোই বিচারের মুখোমুখি করার অনুমোদন দিয়ে ভারতের পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষ রাজ্যসভায় জুভেনাইল বিল পাসের পর তা নিয়ে চলছে বিতর্ক। একদিকে নতুন আইনের সমর্থকদের দাবি, কিছু পশ্চিমা দেশ যেখানে কিশোর অপরাধীদের প্রাপ্তবয়স্কদের মতো করেই বিচার করছে সেখানে ভারতেও আইনটি চালু করতে কোন প্রশ্ন ওঠা ঠিক নয়। অন্যদিকে কিশোর অপরাধবিষয়ক গবেষকদের দাবি, যেখানে যুক্তরাষ্ট্রই তাদের আইন পরিবর্তন থেকে সরে আসছে সেখানে ভারত একরকম উল্টো পথেই হাঁটছে।
মঙ্গলবার ধর্ষণ কিংবা হত্যার মতো গুরুতর মামলায় ১৬ বছর কিংবা এর বেশি বয়সী কিশোরদের প্রাপ্তবয়স্কদের মতো করেই বিচার করার অনুমোদন দিয়ে বিল পাস করে ভারতের রাজ্যসভা। গত মে মাসে বিলটি পার্লামেন্টের নিম্ন কক্ষ লোকসভায় অনুমোদিত হয়েছিল। বিলটিকে আনুষ্ঠানিকভাবে আইনে পরিণত করতে এখন শুধু ভারতের রাষ্ট্রপতির স্বাক্ষরের অপেক্ষা। নতুন আইনটি কিশোরদের গুরুতর অপরাধ থেকে বিরত রাখবে বলে বলে মনে করেন এর সমর্থকরা। অন্যদিকে সমালোচকদের মতে, ভারত এ আইনের মধ্য দিয়ে জাতিসংঘের শিশু অধিকারবিষয়ক কনভেনশনকে লঙ্ঘন করবে। এমনকি যুক্তরাষ্ট্রের গবেষণা প্রতিষ্ঠান থেকেও আইনটি ভালো ফল বয়ে আনবে না বলে সতর্ক করা হচ্ছে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম স্ক্রল ডট ইন-এর এক প্রতিবেদনে বলা হয়, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে কিশোর অপরাধ নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ২৩টি অঙ্গরাজ্যে অন্তত ৪০টি আইন প্রণয়ন করা হয়েছে। আর এসব আইনে প্রাপ্ত বয়স্কদের মতো বিচার ব্যবস্থা থেকে কিশোরদের দূরে রাখার চেষ্টা করা হয়েছে। ১৮ বছরের কম বয়সীদের অপরাধী বলে বিবেচনা করা হয়ে থাকে-যুক্তরাষ্ট্রের এমন ১৪টি অঙ্গরাজ্যের মধ্যে ৫টি গত ৬ বছরে আবারও ১৮ বছরের সীমায় ফেরত এসেছে।  এসব অঙ্গরাজ্য হল- ম্যাসাচুসেটস, ইলিনয়, নিউ হ্যাম্পশায়ার, মিসিসিপি এবং কানেকটিকাট। কেবল ১৮ বছরে ফেরত যাওয়াই নয়, প্রাপ্তবয়স্কের বয়সসীমা ২১ করার কথা ভাবছে অঙ্গরাজ্যগুলো। আর বাকি ৯টি অঙ্গরাজ্যের ৮টিই ১৮ বছরের বয়সসীমায় ফেরত যেতে চাইছে।

কিশোর অপরাধ বিবেচনায় ভারতকে যুক্তরাষ্ট্রের ভুল থেকে শিক্ষা নেওয়ার পরামর্শ দিলেন মার্কিন গবেষণা প্রতিষ্ঠান ক্যাম্পেইন ফর ইয়ুথ ফর জাস্টিসের নির্বাহী কর্মকর্তা মার্সি মিসট্রেট। তিনি বলেন,‘কিশোরদের প্রাপ্তবয়স্ক হিসেবে বিচার করার নীতিতে ব্যর্থ হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। আমরা আমাদের ভুল থেকে শিক্ষা নেওয়ার জন্য ভারতকে উদ্বুদ্ধ করব।’      

যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে বিদ্যমান আইন এবং সেগুলোর সংশোধনী নিয়ে গবেষণা করে থাকে ক্যাম্পেইন ফর ইয়ুথ ফর জাস্টিস। ১৯৯০ সালে কিশোর অপরাধ বেড়ে যাওয়ার পর যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি অঙ্গরাজ্যের ৪৭টিতেই অপরাধীদের দোষী সাব্যস্ত করার জন্য বয়সসীমা ১৮ থেকে কমিয়ে আনা হয়। তবে বিভিন্ন গবেষণায় দেখা যায় গত কয়েক বছরে কিশোর অপরাধের মাত্রা আরও বেড়েছে। আর সে কারণে কিশোরদের প্রাপ্তবয়স্কদের মতই বিচারের নিয়মের বিরোধিতা করে ক্যাম্পেইন শুরু করে ইয়ুথ জাস্টিস।

ওয়াশিংটন ডিসি থেকে ফোনে স্ক্রল ডট ইনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মার্সি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে যেসব কিশোরকে প্রাপ্তবয়স্ক হিসেবে বিচার করা হয়েছে এবং জেলে রাখা হয়েছে তাদের মধ্যে আত্মহত্যার প্রবণতা দেখা গেছে। তার দাবি, সংশোধন কেন্দ্রে রাখা হলে তাদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য পরিবর্তন আসতে পারে।

মঙ্গলবার ‘জুভেনাইল জাস্টিস’ নামের বিলটি ভারতের পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষ রাজ্যসভায় পাস হয়। দেশটির বর্তমান আইন অনুযায়ী, যাদের বয়স ১৮ বছরের নিচে তাদেরকে সাজা হিসেবে সর্বোচ্চ তিন বছরের জন্য সংশোধন কেন্দ্রে রাখা যায়। কিন্তু নতুন আইনে ১৬ বছরের বেশি বয়সী কিশোররা প্রাপ্তবয়স্ক হিসেবেই বিবেচিত হবে।

২০১২ সালে দিল্লিতে চলন্ত বাসে মেডিকেল শিক্ষার্থী ‘নির্ভয়া’ কে সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনায় কিশোর অপরাধ বিবেচনায় এক ধর্ষককে তিন বছরের সাজা দেওয়ার পর আইনটি পরিবর্তনের দাবি জোরালো হয়ে ওঠে। তবে নতুন আইনটি ২০১২ সালের সে অপরাধীর ওপর এখন আর প্রয়োগ করার সুযোগ নেই। পরবর্তীতে এ ধরনের গুরুতর ঘটনায় অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে নতুন আইন ব্যবহার করা যাবে। রাজ্যসভায় বিলটি পাসের সময় নির্ভয়ার মা-বাবাও উপস্থিত ছিলেন।

‘নির্ভয়া' ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় সাজা পাওয়া ৫ জনের মধ্যে ওই কিশোর অপরাধী সবচেয়ে ছোট। বাকি চারজনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়া হলেও সংশোধন কেন্দ্রে রাখা হয় ওই কিশোরকে। ঘটনায় জড়িত আরেক আসামি বিচার চলাকালে কারাগারেই মারা যান।

রবিবারই তিন বছরের শাস্তির মেয়াদ সম্পূর্ণ হয় ওই কিশোর অপরাধীর। মেয়ের মৃত্যুর তিন বছর পর সমস্ত কুণ্ঠা ত্যাগ করে নির্ভয়ার আসল নাম জ্যোতি সিং বলে জানান তার মা আশা। কিশোর অপরাধীর মুক্তির বিরুদ্ধে ক্ষোভ জানিয়ে বলেন, ‘এ কেমন কী বিচার!’ সে দিন চিৎকার করে তিনি বলেছিলেন, ‘আমি জানি না ওর (কিশোর অপরাধীর) বয়স ১৬ না ১৮। শুধু জানি, ও একটা নৃশংস অপরাধ করেছে। আর এমন অপরাধীর কোনও বয়সসীমা হতে পারে না।’ 

/এফইউ/বিএ/

Ifad ad on bangla tribune

লাইভ

Nitol ad on bangla Tribune
টপ