ইরানের জন্য নতুন যুগের সূচনা: রুহানি পারমাণবিক চুক্তি বাস্তবায়ন ও নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে বিশ্বনেতাদের প্রশংসা

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৯:৫২, জানুয়ারি ১৭, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৯:৫২, জানুয়ারি ১৭, ২০১৬

যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্বের ছয় পরাশক্তির সঙ্গে স্বাক্ষরিত পারমাণবিক চুক্তি সঠিকভাবে বাস্তবায়ন ও তার পরিপ্রেক্ষিতে ইরানের ওপর থেকে আন্তর্জাতিক অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারকে স্বাগত জানিয়েছেন বিশ্বনেতারা। আর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারকে ইরানের জন্য নতুন যুগের সূচনা হিসেবে উল্লেখ করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি।

শনিবার অস্ট্রিয়ার ভিয়েনায় জাতিসংঘের আনবিক শক্তি সংস্থা (আইএইএ) ঘোষণা দেয়, ইরান পারমাণবিক চুক্তি যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করেছে। এরপর ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্র নীতি বিষয়ক প্রধান ফেডেরিকা মোগেরিন ও ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মাদ জাওয়াদ জারিফ ঘোষণা দেন তেহরানের ওপর আরোপিত সব নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়েছে।

ভিয়েনায় এ ঘোষণা দেওয়ার পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা ইরানের বিরুদ্ধে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের বিষয়ে একটি নির্বাহী আদেশে সই করেছেন বলে হোয়াইট হাউজের পক্ষ থেকে নিশ্চিত করা হয়েছে।

জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি মুন চুক্তি বাস্তবায়ন ও নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের প্রশংসা করে বলেছেন, ‘এই অর্জন প্রমাণ করেছে যে, আন্তর্জাতিক উদ্বেগ নিরসন করার সর্বশ্রেষ্ঠ উপায় হচ্ছে সংলাপ ও ধৈর্যশীল কূটনীতি।’

মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি বলেছেন, ‘পারমাণবিক চুক্তি বাস্তবায়নের মাধ্যমে একটি ক্রান্তিকাল পেরিয়ে আজ উল্লেখযোগ্য উন্নতিতে পৌঁছাল।’

ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফিলিপ হ্যামন্ড এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘বহু বছরের দৃঢ় কূটনৈতিক পদক্ষেপ এবং কঠিন কৌশলগত কাজের মাধ্যমে আজ সব প্রচেষ্টা ফলপ্রসূ হয়েছে।’

ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী লরা ফ্যাবিয়াস শান্তি ও নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠায় এটাকে একটি গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা হিসেবে উল্লেখ করেছেন।

জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রাংক ওয়াল্টার স্টেইনমেয়ার নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের ঘটনাকে কূটনীতির জন্য ঐতিহাসিক সফলতা বলে উল্লেখ করেছেন। এটা মধ্যপ্রাচ্যে সিরিয়া যুদ্ধ অবসানের ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে পারে বলে জানান তিনি। 

যুক্তরাষ্ট্রের আসন্ন নির্বাচনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ প্রার্থী ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনও ইরানের সঙ্গে চুক্তি বাস্তবায়ন হওয়ায় প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার প্রশংসা করেছেন।

তবে ইসরায়েলে দাবি করেছে, চুক্তি বাস্তবায়ন করলেও ইরান পারমাণবিক বোমা বানানোর উচ্চাকাঙ্ক্ষী পরিকল্পনা বাতিল করেনি।

আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ায় পর ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি বলেছেন, এতে করে বিশ্বের সঙ্গে তেহরানের সম্পর্কের নতুন যুগের সূচনা হয়েছে। রবিবার সকালে জাতির উদ্দেশে দেওয়া এক ভাষণে তিনি এ কথা বলেন।

রুহানি বলেন, ‘আমরা বিশ্বের দিকে বন্ধুত্বের হাত বাড়িয়েছি। এখন সব ধরনের শত্রুতা, সন্দেহ, চক্রান্তকে পিছনে ফেলে বিশ্বের সঙ্গে ইরানের সম্পর্কের নতুন অধ্যায়ের সূচনা ঘটেছে।’

যুদ্ধবাজ ইসরায়েল ও মার্কিন কট্টরপন্থীরা নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে খুশি হয়নি বলে দাবি করেন রুহানি।

আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ায় ইরানের সামনে হাজার কোটি ডলারের বাণিজ্য উন্মুক্ত হবে। সেই সঙ্গে মুক্ত হবে তাদের তেলের বাজার। প্রায় দুই বছর ধরে আলোচনার পর গত বছর জুলাইয়ে বিশ্ব ছয় শক্তি যু্ক্তরাষ্ট্র, জার্মানি, চীন, রাশিয়া, যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সের সঙ্গে পরমাণু বিষয়ে একটি চুক্তিতে উপনীত হয় ইরান। চুক্তির রূপরেখা এমনভাবে করা হয়েছে যাতে করে ইরান পারমাণবিক বোমা বানাতে না পারে। চুক্তি অনুসারে, ইরান নিজের স্বল্প সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম কমাতে রাজি হয়েছে। যার অর্থ সেন্ট্রিফিউজের পরিমাণ কমানো, যা সমৃদ্ধ ইউরেনিয়াম ব্যবহারে কাজে লাগে। চুক্তির মূল বিষয় ছিল,  ইরান যাতে আগামী ১০ বছরে বোমা তৈরির জন্য যথেষ্ট উপাদান মজুত করতে পারবে না। সূত্র: বিবিসি, গার্ডিয়ান।

/এএ/বিএ/

লাইভ

টপ