‘বানানের ভুলে’ অপারেশন থিয়েটারে প্রাণ হারালেন রোগী

বিদেশ ডেস্ক১৮:২৮, ফেব্রুয়ারি ০৩, ২০১৬

সামান্য এক বানান ভুলের কারণে প্রাণ দিতে হলো যুক্তরাজ্যের এক নারীকে। ঘটনাটি যুক্তরাজ্যের ওয়েস্ট লন্ডনের হ্যারোতে অবস্থিত নর্থউইক পার্ক হাসপাতালের। ৮৫ বছরের অবসরপ্রাপ্ত কুপারের অপারেশন চলছিলো সেখানে। জরুরি মুহূর্তে রক্ত নিয়ে তৈরি হয় বিপত্তি। কিন্তু সামান্য রক্তের জন্য কেন প্রাণ হারাতে হলো কুপারকে?
আসলে অপারেশন টেবিলে মারা যাওয়া কুপারের আসল নাম ছিল ছিল ইরমগার্ড কুপার। কিন্তু রক্ত সরবরাহের সময় ভুল করে তার নাম উচ্চারণ করা হয়েছিলো ইরনগার্ড। এতেই তৈরি হয় বিপত্তি। এই নাম শুনে হাসপাতালের রক্ত সরবরাহকারীকে ফিরিয়ে দেওয়া হয় ডাক্তারদের তরফ থেকে। আর রক্তের অভাবেই একপর্যায়ে অপারেশন টেবিলে প্রাণ হারান ওই রোগী।
এই ঘটনার তদন্তে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের অব্যবস্থাপনার বিষয়টি উঠে এসেছে। দেখা গেছে, প্রথমত নামের উচ্চারণে ভুল করা হয়েছে। দ্বিতীয়ত জরুরি মুহূর্তে রক্ত সরবরাহের কোনও ব্যবস্থা না রেখেই অপারেশন শুরু করা হয়েছে। হাসপাতালের তদন্তে দেখা গেছে, রক্ত জমাট বাধা, রক্তপাত এবং রক্ত দিতে দেরি করায় কুপারের মৃত্যু হয়েছে।
সম্প্রতি উত্তর লন্ডনের করোনার আদালতে বিষয়টি নিয়ে শুনানি হয়েছে। বিচারক অ্যান্ড্রিউ ওয়াকার জরুরি মুহূর্তে রক্ত সরবরাহে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের ব্যর্থতার প্রমাণ পেয়েছেন। কুপার পরিবারের আইনজীবী রেনু ডালি আদালতে জানান, প্রথম ভুল ছিল রক্তের নমুনায় রোগীর নামের ভুল উচ্চারণ। দ্বিতীয় ভুলটি ছিল সার্জন ও অ্যানাস্টেসিস্টদের মধ্যকার সমন্বয়ের ঘাটতি। হাসপাতাল প্রধান নির্বাহী জ্যাকুলিন ডোচার্টি এ ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

কুপার জার্মানি থেকে আসা। ৬২ বছর পূর্বে বিয়ে করেছিলেন র‌্যামন্ড কুপারকে। তাদের এক মেয়ে। নাম লরেইন বুকার। মেয়ে জানিয়েছেন, তার মা যাওয়ার পর থেকে বাবা রাতেই দুঃস্বপ্ন দেখেছেন। তিনি বলেন, ‘হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ যদি প্রতারণামূলক এ কাজ না করত তাহলে মায়ের মৃত্যু এভাবে হতো না।’ লরেইন বুকার আরও জানান, তার মাকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে নেওয়া হয়েছিল। সেখানে তিনি দেখতে পান রক্তের মধ্যে ডুবে রয়েছে তার মায়ের শরীর। সূত্র: টেলিগ্রাফ, গার্ডিয়ান।

/এএ/বিএ/

লাইভ

টপ