কলম্বিয়ার শান্তি প্রতিষ্ঠায় অর্থ সহায়তার আশ্বাস ওবামার

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৩:০৩, ফেব্রুয়ারি ০৫, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:০৬, ফেব্রুয়ারি ০৫, ২০১৬

কলম্বিয়ার বিদ্রোহী গোষ্ঠী ফার্ক আর দেশটির সরকারের মধ্যকার শান্তিচুক্তির বাস্তবায়নে যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে ৪৫ কোটি ডলার সহায়তা চাইবেন বলে আশ্বাস দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। হোয়াইট হাউজে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট জুয়ান ম্যানুয়েল সান্তোসকে তিনি এই আশ্বাস দেন। ওবামা জানান প্রস্তাবিত তহবিলের মধ্য দিয়ে শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নের পাশাপাশি  মাইন নিষ্ক্রিয়করণ এবং মাদকবিরোধী ও মানব উন্নয়নমূলক প্রকল্প পরিচালনার পরিকল্পনা রয়েছে।

৫০ বছরের বিরোধের অবসান ঘটিয়ে গত বছর একটি শান্তিচুক্তির ব্যাপারে কলম্বিয়ার সরকার ও ফার্কের মধ্যে সমঝোতা হয়। শান্তিচুক্তি স্বাক্ষরের জন্য ২০১৬ সালের ২৩ মার্চকে ডেডলাইন হিসেবে ঘোষণা করেন ম্যানুয়েল সান্তোস।

কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট সান্তোস ও মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামা

বৃহস্পতিবার সান্তোসকে শান্তিচুক্তি বাস্তবায়নে সহায়তার আশ্বাস দিয়ে ওবামা বলেন, ‘আপনার দেশের শান্তি প্রতিষ্ঠায় পাশে থাকবে যুক্তরাষ্ট্র। কলম্বিয়ায় দীর্ঘদিন ধরে চলা সংঘাতের নিরসন করার ক্ষেত্রে এটি এক অবিশ্বাস্য রকমের প্রতিশ্রুতির ক্ষণ।’

এদিকে ফার্ক বিদ্রোহী গোষ্ঠীর মধ্যে শান্তিচুক্তির ব্যাপারে চূড়ান্ত সমঝোতা হলেও দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তর বিদ্রোহী গোষ্ঠী ইএলএনর সঙ্গে আলোচনা এগিয়ে নিতে পারেনি কলম্বিয়া সরকার। মাত্র ১৪ শ যোদ্ধাবিশিষ্ট বিদ্রোহী এ গোষ্ঠীটি এখনও নিজেদের উপস্থিতির জানান দিয়ে যাচ্ছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়, ইএলএন বিদ্রোহী গোষ্ঠীর সদস্যরা এখনও বেসামরিকদের অপহরণ করছে, সেনা সদস্যদের আটক করছে এবং হামলা চালিয়ে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের হত্যা করছে। বিবিসির এক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, ফার্ক বিদ্রোহী গোষ্ঠীর সঙ্গে সমঝোতার মধ্য দিয়ে সংঘাতের অবসান হয়েছে বলে মনে করা হলেও ইএলএনকে অবহেলা করার সুযোগ নেই।

ফার্ক যোদ্ধা

২০১২ সালে কিউবায় ফার্কের সঙ্গে কলম্বিয়া সরকারের শান্তি আলোচনা শুরু হয়। ২০১৫ সালে দুপক্ষের মধ্যে শান্তিচুক্তির ব্যাপারে সমঝোতা হয়। চুক্তি অনুযায়ী, ১৯৬৪ সালে প্রতিষ্ঠিত গোষ্ঠী ফার্ক তাদের সশস্ত্র লড়াই থামিয়ে বৈধ রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় অংশ নেবে। কলম্বিয়ার পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের জন্য একটি মিশন পাঠাতে গত সপ্তাহে জাতিসংঘের কাছে আবেদন জানায় ফার্ক ও কলম্বিয়া সরকার। সান্তোসের মতে, ‘সংঘাত পরবর্তী অবস্থা সামলানো অনেক কঠিন।’ সূত্র: বিবিসি

/এফইউ/বিএ/

লাইভ

টপ