ছবিতে ব্রাজিলের ঐতিহ্যবাহী সাম্বা নাচের কার্নিভাল

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২৩:৪৯, ফেব্রুয়ারি ০৭, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:৪৯, ফেব্রুয়ারি ০৭, ২০১৬

জিকা ভাইরাসের সংক্রমণের আশঙ্কার মধ্যেই রবিবার ব্রাজিলে শুরু হয়েছে দেশটির ঐতিহ্যবাহী সাম্বা নাচের উৎসব কার্নিভাল। ব্রাজিলের এ কার্নিভাল বিশ্বের বৃহত্তম বেকানাল উৎসব হিসেবে পরিচিত। এ উৎসবে রাতভর দেশটির রাস্তায় রাস্তায় চলে উদাম নাচ ও পানাহার। সাম্বার তালে রাস্তায় রাস্তায় নাচতে নেমেছে দেশটির কয়েক লাখ মানুষ। সঙ্গে যোগ দিয়েছে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ছুটে আসা মানুষরা। ধারণা করা হচ্ছে, এবার প্রায় ৫০ লাখ মানুষ অংশগ্রহণ করছে।

ভাই ভাই সাম্বা স্কুলের উৎসব উদযাপন। স্কুলের পক্ষ থেকে ফুটবলসহ ফরাসি সংস্কৃতি তুলে ধরা হয়।

 

রেভেলার্স প্যারেডে মসিডেড আলেগ্রে সাম্বা স্কুলের নাচ

বিশেষজ্ঞরা আশঙ্কা করছেন, কার্নিভালে অংশ নেওয়া অনেকেই শরীরে জিকা ভাইরাস নিয়ে ফিরবে এবং তা আরও ছড়িয়ে পড়বে। মশার মাধ্যমে কার্নিভালে জড়ো হওয়া উৎসবকারীদের মাধ্যমে আমেরিকাজুড়ে ভাইরাসটির ছড়িয়ে পড়বে আরও দ্রুত। ছড়াবে দৈহিক মিলনেও।

সাও পাওলোতে কার্নিভাল প্যারেডে অংশ নেওয়া ইম্পেরিও ডি কাসা ভার্দে সাম্বা স্কুলের নাচের দল

 

যে সুইস ভাই-ভাই স্কুলের সাম্বা নাচ

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জিকা ভাইরাসের সংক্রমণের ফলে বিশ্বব্যাপী জরুরি অবস্থা জারি করেছে। তবে ব্রাজিলে এ কার্নিভ্যালকে ঘিরে মনেই হচ্ছে না এটা ভয়ংকর কিছু। অথচ এই ব্রাজিলেই সবচেয়ে বেশি ছড়িয়ে পড়েছে ভাইরাসটি।

জিকা ভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কার মধ্যে উৎসব করায় এক প্রতিবাদীও রাস্তায় নামলেন ব্যতিক্রমী এই পোশাক পরে

কার্নিভাল প্যারেডে ইনকা সংস্কৃতি নিয়ে হাজির হয় একটি দল

ব্রাজিলের সমাজ বিজ্ঞানী ও কলাম লেখক লুইজ সিমাস জানান, এই ছুটির দিনটি ব্রাজিলের সবচেয়ে পবিত্র দিন। মানুষের বিভিন্ন সমস্যা ভুলে যেতে দিনটি সহযোগিতা করে। তিনি বলেন, জিকা ভাইরাস সংক্রমণের সময়েও এই উৎসব পালন করাকে বিদেশিরা এটাকে অদ্ভুত মনে করতে পারে। কিন্তু রিও’র ইতিহাসে দেখা যায়, যখন কঠিন সময় আসে তখন কার্নিভালের প্রয়োজনীয়তা আরও বেড়ে যায়।

ফরাসি কমিক চরিত্র নিয়ে হাজির হয়েছিল আরেকটি দল

 

ফরাসি সংস্কৃতি অনুকরণে এমন সাজে নেমে সাম্বায় মেতেছিল একটি দল

 

ছবি: মেইল অনলাইন।

/এএ/

লাইভ

টপ