বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি ইনকোয়ারারের সম্পাদকীয়তে ফিলিপাইনের অর্থব্যবস্থার কড়া সমালোচনা

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১২:৩৫, মার্চ ১৯, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১২:৩৫, মার্চ ১৯, ২০১৬

সম্পাদকীয়তে প্রশ্ন তোলা হয়েছে, আপাতদৃষ্টিতে এটা মনে হতে পারে, রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং কর্পোরেশনের ব্রাঞ্চ ম্যানেজার দিগুইতোই এই ঘটনার মূল হোতা, কিন্তু আসলেই কি তাই? নাকি তিনি প্রত্যক্ষ অথবা পরোক্ষভাবে ঊর্ধ্বতনদের সহায়তা পেয়েছিলেন? ইনকোয়ার বলছে, এমন হতে পারে যে কোনও একক ব্যক্তি এই চুরির ঘটনা ঠেকিয়ে দিয়েছেন, আবার এমনও হতে পারে কেবল একজন ঘুমোচ্ছিলেন বলে অথবা ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থায় দুর্বলতা থাকার কারণে এমনটা হয়েছে। সম্পাদকীয়তে মন্তব্য করা হয়েছে, যদি ব্যাংকের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা ব্যবস্থায় দুর্বলতা থাকে তাহলে সেই দায় ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক এবং সেখানকার অ্যান্টি মানি লন্ডারিং কাউন্সিলকে (এএমএলসি) নিতে হবে। কেননা ব্যাংকগুলোর অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা ব্যবস্থার দেখভাল করার দায়িত্ব এই দুই প্রতিষ্ঠানের।

সম্পাদকীয়তে বলা হয়েছে, কালো টাকা ও অর্থপাচার রোধে ২০০১ সালে অ্যান্টি মানি লন্ডারিং আইন করা হলেও বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনায় ওই আইন অ্যাসিড টেস্টে ফেল করেছে। এ ঘটনায় ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক (বিএসপি) এবং অ্যান্টি মানি লন্ডারিং কাউন্সিল যথাযথ সময়ে যথাযথ অবস্থান নিতে ব্যর্থ হয়েছে বলে মন্তব্য করা হয়েছে সম্পাদকীয়তে। এতে বলা হয়েছে, ফিলিপাইনের পুরো অর্থব্যবস্থা অ্যাসিড টেস্টে ব্যর্থ হয়েছে।

এই ঘটনার পর ছোট-বড় সব ব্যাংক, ব্যাংকের সিইও থেকে অধস্তন, ক্যাসিনো, মানি চেঞ্জার, অর্থ ব্যবস্থার নিয়ন্ত্রক সংস্থা হিসেবে বিশেষত কেন্দ্রীয় ব্যাংক এবং  অ্যান্টি মানি লন্ডারিং কাউন্সিল সবাইকে নিজেদের দুর্বলতা নিয়ে ভাবার তাগিদ দেওয়া হয়েছে সম্পাদকীয়তে। অর্থ ব্যবস্থায় সংস্কার আনার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে এতে। সূত্র: ইনকোয়ারার

/বিএ/

লাইভ

টপ