behind the news
Rehab ad on bangla tribune
Vision Refrigerator ad on bangla Tribune

প্রায় এক শতাব্দী পর নিখোঁজ মার্কিন জাহাজের রহস্য উন্মোচন

বিদেশ ডেস্ক২০:২৯, মার্চ ২৪, ২০১৬

৯৫ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া জাহাজের নাবিকেরাযুক্তরাষ্ট্র নৌবাহিনীর জাহাজ ইউএসএস কনেসটোগা যখন নিখোঁজ হয় তখন ছিল শান্তির সময়। জাহাজটি ১৯২১ সালের ২৫ মার্চ ক্যালিফোর্নিয়ার গোল্ডেন গেট থেকে যাত্রা করে একটি গাধাবোট ও ৫৬ জন নাবিক নিয়ে ভোজবাজির মত উধাও হয়ে যায়। ঘটনাটি ৯৫ বছর আগের। সেই গোল্ডেন গেটের সেতুর এখন আর কোন চিহ্নও নেই। তবে হারিয়ে যাওয়া ওই জাহাজের ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পাওয়ার তথ্যটি আনুষ্ঠানিকভাবে ঘোষিত হয়েছে বুধবার। যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনী ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ এ তথ্য প্রকাশ করেছে। এর মধ্য দিয়ে শতাব্দীকাল আগে হারিয়ে যাওয়া জাহাজটির রহস্য উদঘাটন করা সম্ভব হলো।
ইউএসএস কনেসটোগার ধ্বংসাবশেষ প্রথম খুঁজে পাওয়া যায় ২০০৯ সালে। সান ফ্রান্সিসকোর ২০ মাইল পশ্চিমে এই ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পায় গ্রেটার ফারালোনস ন্যাশনাল মেরিন স্যাংচুয়ারি। এরপর সেই ভাঙ্গা জাহাজের অংশ পরীক্ষানিরীক্ষা করে ২০১৪ বিশেষজ্ঞরা ঘোষণা করেন ওই ধ্বংসাবশেষ ইউএসএস কনেসটোগারই অংশ।
ন্যাশনাল ওশনিক অ্যান্ড অ্যাটমসফিয়ারিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের ডেপুটি অ্যাডমিনিস্ট্রেটর ম্যানসন ব্রাউন বলেন, ‘প্রায় এক শতাব্দীর অনিশ্চয়তার পর ইউএসএস কনেসটোগা উধাও হয়ে যাওয়ার রহস্য উদঘাটন হলো।’
ইউএসএস কনেসটোগা গোল্ডেন গেট থেকে আমেরিকান সামোয়া হয়ে পারল হারবার যাচ্ছিলো, কিন্তু কখনই হাওয়াই পৌঁছায়নি। আকাশ ও জলপথে পর্যাপ্ত খোঁজাখুঁজির পর ১৯২১ সালে উদ্ধার অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা করা হয়। পরে ন্যাশনাল ওশনিক অ্যান্ড অ্যাটমসফিয়ারিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের এক দল ২০০৯ সালের সেপ্টেম্বরে একটি হাইড্রোগ্রাফিক সার্ভে করে ও জাহাজটির ধ্বংসাবশেষ আবিষ্কার করে।

হাইড্রোগ্রাফিক ছবিতে জাহাজটির ধ্বংসাবোশেষ

ব্রাউন বলেন, ‘আশা করি নিখোঁজ নাবিকদের পরিবারগুলো এতে কিছুটা হলেও সান্ত্বনা খুঁজে পাবেন। আমরা নৌবাহিনীর সঙ্গে একযোগে ওই নাবিকদের সম্মানে এই ধ্বংসাবশেষ সংরক্ষণ করার চেষ্টা করবো।’

বিশ্লেষকদের ধারণা জাহাজটি ঝড়ের কবলে পড়ে ফারালন দ্বীপের খাঁড়িতে আশ্রয় নেওয়ার চেষ্টা করেছিল। পানির তলার একটি ভিডিওতে দেখা গেছে জাহাজটি সমুদ্রবক্ষে প্রায় অবিকৃত অবস্থায়ই রয়েছে। শুধু সময়ের সঙ্গে সঙ্গে ক্ষয় হয়ে গেছে কাঠের ডেক ও মাস্তুলগুলো। সূত্র সিএনএন, দ্য গার্ডিয়ান

/ইউআর/বিএ/              

Ifad ad on bangla tribune

লাইভ

Nitol ad on bangla Tribune
টপ