behind the news
Rehab ad on bangla tribune
Vision Refrigerator ad on bangla Tribune

হিলারির ইমেইল নিয়ে পর্যালোচনা স্থগিত

বিদেশ ডেস্ক১৫:৩৪, এপ্রিল ০২, ২০১৬

সাবেক মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটনের ইমেইলের ক্লাসিফায়েড তথ্যগুলো ঠিক মতো সামলানো হয়েছিল কিনা সে ব্যাপারে অভ্যন্তরীণ পর্যালোচনার পরিকল্পনাটি স্থগিত করেছে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতর। এফবিআইয়ের অনুরোধে সাড়া দিয়ে পরিকল্পনাটি স্থগিত করা হয়। এফবিআইয়ের কাজ এখনও শেষ হয়নি উল্লেখ করে শুক্রবার মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র এলিজাবেথ ট্রুডো এ ঘোষণা দেন।

আসছে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাটদের হয়ে প্রার্থিতার দৌড়ে এগিয়ে থাকা হিলারি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালে ২০০৯-২০১৩ সাল পর্যন্ত ব্যক্তিগত সার্ভার থেকে ইমেইল আদান-প্রদান করেছিলেন। দীর্ঘ সময় ধরে আদান-প্রদান করা ইমেইলগুলোতে রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ অনেক বিষয়েরও উল্লেখ ছিল। প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে প্রার্থিতা চাওয়ার পর হিলারির ইমেইল ইস্যু জোরালো হয়ে ওঠে। বিরোধীদের অভিযোগ,অনিরাপদ সিস্টেম ব্যবহার করে যুক্তরাষ্ট্রের নিরাপত্তাকে হুমকির মুখে ফেলেছেন হিলারি। তবে ব্যক্তিগত সার্ভার ব্যবহারের কথা স্বীকার করলেও হিলারির দাবি, তিনি ভুল কিছু করেননি। যুক্তরাষ্ট্রের প্রাদেশিক তদন্ত সংস্থা ঘটনাটির তদন্ত করছে।

হিলারি ক্লিনটন

গত ২৯ জানুয়ারি মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার অনুরোধে হিলারির ২২টিরও বেশি ইমেইলকে অতি গোপনীয় বলে ঘোষণা করে যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতর। হিলারির অন্য হাজার হাজার ইমেইলের মতো করে এ ২২টি ইমেইল প্রকাশ করা হবে না বলে ঘোষণা দেওয়া হয়। সে সময় মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের তরফে ঘোষণা দেওয়া হয় যে হিলারির ব্যক্তিগত সার্ভার ব্যবহার করে পাঠানো ইমেইলের তথ্যগুলো ক্লাসিফায়েড করা হয়েছিল কিনা তা জানতে অভ্যন্তরীণ পর্যালোচনা করা হবে। তবে শুক্রবার পররাষ্ট্র দফতরের তরফে জানানো হয়, পর্যালোচনার সিদ্ধান্তটি স্থগিত করা হচ্ছে। গত ফেব্রুয়ারিতে এ ব্যাপারে এফবিআইয়ের সঙ্গে আলোচনার পর তদন্ত সংস্থাটি পর্যালোচনা স্থগিতের অনুরোধ জানায় বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

হিলারি

মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র এলিজাবেথ ট্রুডো বলেন, ‘এফবিআই আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেছে এবং বলেছে আমাদের স্ট্যান্ডার্ড অনুসরণ করা উচিত। এফবিআইয়ের কাজ শেষ না হওয়ায় অভ্যন্তরীণ পর্যালোচনার কাজ স্থগিত করা হচ্ছে। এফবিআইয়ের কাজ শেষ হওয়ার পরই আমরা আমাদের পরবর্তী পদক্ষেপ নিব।’

সরকারের নিয়ন্ত্রিত চ্যানেল ছাড়া ক্লাসিফায়েড তথ্য আদান-প্রদানের ওপর নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। এ ধরনের অনিরাপদ চ্যানেলের মাধ্যমে অতি গোপনীয় ইমেইল ফাঁস হওয়াকে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি বলে মনে করে মার্কিন সরকার। সূত্র: রয়টার্স, দ্য গার্ডিয়ান

/এফইউ/বিএ/

লাইভ

Nitol ad on bangla Tribune
টপ