behind the news
IPDC  ad on bangla Tribune
Vision  ad on bangla Tribune

পাঞ্জাবের নারী সুরক্ষা আইনের বিরোধিতায় পাকিস্তানের জামায়াত

বিদেশ ডেস্ক২০:৩৫, এপ্রিল ০৩, ২০১৬

পাঞ্জাবে পাস হওয়া সহিংসতাবিরোধী নারী সুরক্ষা আইন-২০১৫ এর বিরোধিতা করে জাতীয় সংসদে নতুন আইন প্রস্তাব করবে পাকিস্তানের ইসলামি রাজনৈতিক দলগুলো। পাকিস্তান জামায়াতে ইসলামির নেতা লিয়াকত বালুচের নেতৃত্বে ২৪ সদস্যের স্টিয়ারিং কমিটি এ আইন প্রস্তাব করছে। রবিবার পাকিস্তানের সংবাদমাধ্যম ডনের এক খবরে বিষয়টি জানা গেছে।

শনিবার মনসুরাতে ৩৫টি ইসলামি দলের নিজাম-ই-মুস্তাফা সম্মেলন শেষে জামায়াত নেতা লিয়াকত বালুচ বলেন, ‘ইসলামের আলোকে পাকিস্তানের নারীদের ক্ষমতায়ন ও সুরক্ষার জন্য এই নতুন আইন প্রস্তাব করা হয়েছে। এই আইনের মধ্য দিয়ে পাঞ্জাব সরকারের গৃহীত ইসলামবিরোধী নারী সুরক্ষা আইন বাতিল হবে।’

বালুচ জানান, স্টিয়ারিং কমিটির সদস্যরা পাঞ্জাবের নারী আইন গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করেছেন। এরপর তারা এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছেন যে, আইনটিতে সংশোধন প্রয়োজন। তিনি বলেন, সরকারের সামনে একটাই বিকল্প আছে, আগের আইনটি বাতিল করে আমাদের প্রস্তাবিত আইনটি পাস করা।

সম্মেলনে ঘোষণা দেওয়া হয়, পাঞ্জাবের নারী সুরক্ষা আইন বাতিলের বিষয়ে কোনও সমঝোতা হবে না। এটা বাতিলে আন্দোলন গড়ে তোলা হবে। সম্মেলনে যৌথ ঘোষণায় পাঞ্জাবের নারী সুরক্ষা আইনকে ‘মুসলিম পরিবার রীতিকে আক্রমণ’ করেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

সম্মেলনের ঘোষণায় আরও বলা হয়েছে, পাকিস্তানের নারীরা ‘সম্পূর্ণভাবে’ পাঞ্জাবে পাস হওয়া আইনটিকে প্রত্যাখ্যান করেছে। এটাকে শরিয়াহ বিরোধী বলেও উল্লেখ করা হয়েছে। সংবিধান অনুসারে শরিয়াহ লঙ্ঘন করার কোনও আইনি সুযোগ নেই।

এর আগে গত মাসে ইসলামি দলগুলো সরকারকে পাঞ্জাবের নারী আইন বাতিলের দাবি জানিয়ে ১৯৭৭ সালের মতো আন্দোলন গড়ে তোলার হুমকি দেয়।

ফেব্রুয়ারি মাসের শেষ সপ্তাহে পাঞ্জাবে উইমেন’স প্রটেকশন অ্যাক্ট (নারীর সুরক্ষাবিষয়ক আইন) নামে নতুন একটি আইন পাস হয়। আইনের আওতায়, পারিবারিক ও মানসিক নির্যাতন এবং যৌন নিপীড়ন থেকে নারীকে আইনি সুরক্ষা দেওয়ার কথা বলা হয়। একইসঙ্গে বিনামূল্যে নির্যাতনের অভিযোগ জানাতে একটি রিপোর্টিং হটলাইন তৈরি এবং নারীদের জন্য আশ্রয়কেন্দ্র প্রতিষ্ঠার কথাও বলা হয় নতুন আইনে। সূত্র: ডন।

/এএ/বিএ/

Global Brand  ad on Bangla Tribune

লাইভ

IPDC  ad on bangla Tribune
টপ