‘প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনার মাধ্যমে পর্যটনের বিকাশ হতে পারে বাংলাদেশে’

Send
জার্নি রিপোর্ট
প্রকাশিত : ১৫:১৪, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৫:২০, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৯

এলিজা বিনতে এলাহীহেরিটেজ ট্যুরিজমের মাধ্যমে পৃথিবীর অনেক দেশ বিপুল রাজস্ব পাচ্ছে। বাংলাদেশেও সেই সম্ভাবনা অফুরান মনে করেন ট্রাভেলার এলিজা বিনতে এলাহী। প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনাগুলোকে কাজে লাগিয়ে পর্যটনের বিকাশ হতে পারে বলে মনে করেন তিনি। এর মাধ্যমে একইসঙ্গে সেগুলো সংরক্ষিত থাকবে ও আয়ের ক্ষেত্র তৈরি হবে। শনিবার (৯ ফেব্রুয়ারি) বাংলা ট্রিবিউন ফেসবুক লাইভে তিনি বলেন, ‘আমাদের দেশে পর্যটন নিয়ে কাজ করার অনেক ক্ষেত্র আছে। অনেক কিছুর উন্নয়ন হতে পারে।’

ইতোমধ্যে ঢাকা, ময়মনসিংহ, রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের ৩৩টি জেলার প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনাগুলোর ভিডিও, ফটোগ্রাফি ও লেখালেখির মাধ্যমে ডকুমেন্টেশন করেছেন এলিজা। স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেছেন। প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা নিয়ে বিভিন্ন লেখক ও প্রত্নতাত্ত্বিক অধিদফতরের বই থেকে তথ্য সংগ্রহ করছেন।

২০১৬ সালে বলধা গার্ডেন দিয়ে বাংলাদেশ ভ্রমণ শুরু হয় এলিজার। ১৭টি জেলায় ঘুরেছেন তিনি। তখন এই উদ্যোগের নাম রাখেন কোয়েস্ট: অ্যা হেরিটেজ জার্নি অব বাংলাদেশ। তার কথায়, ‘এটা আমার অনুসন্ধান, খোঁজা, জানা। নিজের জ্ঞান আহরণের জন্য ঘুরছি। সেজন্য কোয়েস্ট নামটি বেছে নিয়েছি।’

নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগ ইউনিভার্সিটি অব অ্যাপ্লায়েড সায়েন্সে পড়াশোনা করতে যান এলিজা। সেখানে তার গবেষণার বিষয় ছিল ‘বাংলাদেশের পর্যটন শিল্প বিকাশে হেরিটেজ ট্যুরিজমের গুরুত্ব’। ২০১৮ সালের শেষের দিকে দেশে ফেরেন। এরপর থেকে নিয়মিত দেশের প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনাগুলো ঘুরে দেখছেন।

রাজবাড়ী ও পাবনার প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনাগুলো অযত্নে পড়ে থাকতে দেখেছেন এলিজা। এক্ষেত্রে সিরাজগঞ্জের নবরত্ন মন্দিরের কথা আলাদাভাবে বললেন তিনি, ‘যদিও এটি অত জনপ্রিয় নয়। ভেতরটা বেশ পরিচ্ছন্ন। সেখানে একজন কেয়ারটেকার রাখা হয়েছে। তার কাজ কী ধরনের মানুষ প্রতিদিন আসে তা জরিপ করা। জানা যায়, মাসে আড়াই হাজার থেকে তিন হাজার দর্শনার্থীর সমাগম হয়। নওগাঁ জেলায় জগদ্দল বিহারেও প্রত্নতত্ত্ব অধিদফতর থেকে জরিপের জন্য একজন কেয়ারটেকার রাখা হয়েছে। প্রতি মাসে গড়ে দুই হাজার দর্শনার্থী আসেন। এগুলো আশানুরূপ ব্যাপার।’

এলিজার আশা, ‘আমার উদ্যোগের মাধ্যমে বিভিন্ন মানুষ বাংলাদেশের হেরিটেজ সম্পর্কে জানবেন, কর্তাব্যক্তিরা এগিয়ে আসবেন, পর্যটকরাও সচেতন হবেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের পাওয়া প্রতিক্রিয়ায় বুঝেছি, নিজের জেলার মানুষজনই অনেক স্থাপনার কথা জানে না। আমরা সাধারণত বেড়ানোর জন্য সাজেক, কক্সবাজার, সিলেটের চা-বাগানে বেড়াতে যাই। তাই প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা ঘুরে দেখতে উদ্বুদ্ধ করতে চাই সবাইকে। এর মাধ্যমে বিদেশি পর্যটকদেরও আকর্ষণ করা যায়।’

এলিজা বিনতে এলাহী১৯৯৯ সালে নেপালে প্রথম বিদেশ ভ্রমণে যান এলিজা। ইতোমধ্যে ৪৬টি দেশে বেড়িয়েছেন তিনি। এশিয়া ভ্রমণের অভিজ্ঞতা নিয়ে ২০১৬ ও ২০১৭ সালে বেরিয়েছে তার দুটি তথ্যবহুল প্রকাশনা “এলিজা’স ট্রাভেল ডায়েরি” ও “এলিজা’স ট্রাভেল ডায়েরি-২”। প্রতিটি জেলার প্রত্নতাত্ত্বিক স্থাপনা নিয়ে আলাদাভাবে বই লেখার পরিকল্পনা আছে তার।

এলিজা বিনতে এলাহী পেশায় বাংলাদেশের ইউনিভার্সিটি অব সাউথ এশিয়ার বিজনেস বিষয়ক সহকারী অধ্যাপক। আপাতত শিক্ষা ছুটিতে আছেন তিনি। এই সুযোগে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এবার যাবেন সিলেটে।





/জেএইচ/
টপ