ঢাকা-দিল্লি রুটে বিমানের ফ্লাইট চালু ১৩ মে, টিকিটে ১৫ শতাংশ ছাড়

Send
বাংলা ট্রিবিউন রিপোর্ট
প্রকাশিত : ২১:১৫, এপ্রিল ২৩, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:১৯, এপ্রিল ২৩, ২০১৯

বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বোয়িং ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজঢাকা-দিল্লি-ঢাকা রুটে আবারও বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ফ্লাইট চালু হচ্ছে আগামী ১৩ মে। ভারতের রাজধানীতে সপ্তাহে সোম, বৃহস্পতি ও শনিবার যাত্রীসেবা দেবে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী এই সংস্থা। দেশি-বিদেশি সব এয়ারলাইনসের মধ্যে একমাত্র বিমানই এই রুটে সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করতে যাচ্ছে। মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিমানের মহাব্যবস্থাপক (জনসংযোগ) শাকিল মেরাজ জানিয়েছেন, ১৬২ আসনের বোয়িং ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ দিয়ে ঢাকা-দিল্লি-ঢাকা রুটে সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করা হবে। এতে আছে ১২টি বিজনেস ক্লাস আসন ও ১৫০টি ইকোনমি ক্লাস।

এই রুটের উদ্বোধন উপলক্ষে ১৫ শতাংশ ছাড় দেওয়া হবে প্রতি টিকিটে। আগামী ৩০ মে’র মধ্যে যারা টিকিট কাটবেন, তাদের জন্য থাকছে এই সুযোগ। বিমানের সব সেলস সেন্টার, ট্রাভেল এজেন্ট, বিমান ওয়েবসাইট, বিমান কল সেন্টার (০১৭৭৭৭১৫৬১৩-৬) থেকে ঢাকা-দিল্লি-ঢাকা রুটের টিকিট কেনা যাবে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে সোম, বৃহস্পতি ও শনিবার বিকাল ৩টায় বিমানের ফ্লাইট ছেড়ে যাবে। দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে স্থানীয় সময় বিকাল ৫টা ২০ মিনিটে পৌঁছাবে বিমানটি। অন্যদিকে উল্লিখিত তিন দিন দিল্লির স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসবে বিমানের একটি ফ্লাইট। তিন ঘণ্টা পর এটি ঢাকায় অবতরণ করবে রাত ৯টা ২০ মিনিটে।

ঢাকা-দিল্লি-ঢাকা রুটে রিটার্ন টিকিট একমাস মেয়াদে ইকোনমি ক্লাসের ক্ষেত্রে ট্যাক্স ব্যতীত সর্বনিম্ন ৩০০ মার্কিন ডলার ও একবছর মেয়াদে টিকিটের ক্ষেত্রে ট্যাক্স ব্যতীত সর্বনিম্ন ৩২০ মার্কিন ডলার ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্রায় পাঁচ বছর ঢাকা-দিল্লি রুটে বিমান বাংলাদেশের যাত্রীসেবা বন্ধ ছিল। দীর্ঘদিন চলার পর ২০১৪ সালের ২৩ আগস্ট থেকে সরকারি এই সংস্থা আর দিল্লির উদ্দেশে তাদের কোনও ফ্লাইট চালায়নি।

১৯৭২ সালের ৪ জানুয়ারি বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের যাত্রা শুরু হয়। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এটি প্রতিষ্ঠা করেন। বিমান বাহিনীর উপহার দেওয়া ডিসি-৩ উড়োজাহাজ দিয়ে প্রথম ফ্লাইট চলে তাদের। বিমানের এয়ারলাইন কোড ‘বিজি’। এর উড়োজাহাজগুলো হলো কিউ-৪০০, ৭৩৭-৮০০ ও ৭৭৭-৩০০ইআর, ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার।

বর্তমানে বিমান বহরে রয়েছে ১৩টি উড়োজাহাজ। এর মধ্যে দুটি হলো বোয়িংয়ের তৈরি ৭৮৭-৮ ড্রিমলাইনার (আকাশবীণা ও হংসবলাকা)। আরও দুটি ড্রিমলাইনার আগামী সেপ্টেম্বরে যোগ হবে বহরে। ২০০৮ সালে বোয়িং কোম্পানির সঙ্গে ২১০ কোটি মার্কিন ডলারের ক্রয় চুক্তির অধীনে ১০টি উড়োজাহাজ কেনার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে বিমান। এরমধ্যে ৮টি ইতোমধ্যে বিমান বহরে যুক্ত হয়েছে।

জানা গেছে, বহরের ১৩টি উড়োজাহাজ দিয়ে বর্তমানে ১৫টি আন্তর্জাতিক ও ৭টি অভ্যন্তরীণ গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনা করছে বিমান। নিজস্ব আকাশযানের পাশাপাশি লিজেও উড়োজাহাজ সংগ্রহ করে সংস্থাটি। এ বছর দুটি বোয়িং ৭৩৭-৮০০ উড়োজাহাজ লিজ নেবে তারা।

/সিএ/জেএইচ/
টপ