সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে প্রকৃতির রূপে মুগ্ধ ভ্রমণপিপাসুরা

Send
হিমাদ্রি শেখর ভদ্র, সুনামগঞ্জ
প্রকাশিত : ১৯:৫০, জুন ০৬, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২০:০৫, জুন ০৬, ২০১৯

যাদুকাটা নদীসুনামগঞ্জের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র তাহিরপুর উপজেলায় টাঙ্গুয়ার হাওর, যাদুকাটা নদী, বারেক টিলা মেঘালয় পাহাড় ও নীলাদ্রি লেকে এখন দেশি-বিদেশি পর্যটকদের ভিড়। ঈদের দ্বিতীয় দিনে বৃহস্পতিবার (৬ জুন) এসব পর্যটন স্পট দেখতে সপরিবারে আসেন শত শত ভ্রমণপিপাসু।

তবে লাউড়েরগড় সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না করায় যানবাহন চলাচলের অনুপযোগী থাকায় পর্যটকদের অনেক ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে। এছাড়া নিরাপত্তার অভাব, অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা, মানসম্মত আবাসিক হোটেলের অভাব ও স্বাস্থ্যসম্মত রেস্তোরাঁ না থাকায় এখানে দীর্ঘ সময় বেড়ানো সম্ভব হচ্ছে না।

সুনামগঞ্জ থেকে টাঙ্গুয়ার হাওরের দূরত্ব সড়ক পথে ৪৫ কিলোমিটার আর নৌ-পথে ৭০ কিলোমিটার। নৌ-পথে টাঙ্গুয়ার হাওর, বারেক টিলা, যাদুকাটা নদী ও মেঘালয় পাহাড়ে যেতে লাগে ৫ থেকে ৬ ঘণ্টা। আর সড়ক পথে যেতে প্রয়োজন ২ ঘণ্টা। তাই দর্শনীয় স্থানগুলো ভ্রমণের জন্য দেশ-বিদেশের পর্যটকরা বেছে নেন সড়ক পথ।

ভ্রমণপিপাসুদের জন্য তাহিরপুরে মোটরসাইকেল চালকরালাউড়েরগড় সড়কটি ৪০ কিলোমিটার দীর্ঘ হলেও ১০ কিলোমিটার জায়গা যানবাহন চলাচলের সম্পূর্ণ অনুপযোগী। দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না করায় এতে সৃষ্টি হয়েছে শত শত খানাখন্দ। এ কারণে বেড়েছে মোটরসাইকেলের ভাড়া ও খরচ। এছাড়া আবাসন সংকট, নিরাপত্তার অভাবসহ বিভিন্ন দুর্ভোগ তো আছেই।

কয়েকজন এলাকাবাসী বাংলা ট্রিবিউনকে জানান, তাহিরপুরে শীতকালে পর্যটক সমাগম বেশি হলেও বর্ষাকালে তাদের সংখ্যা খুব কম থাকে। যোগাযোগ ব্যবস্থা বেহাল থাকায় স্থানীয়রাই এসব স্পটে খুব একটা যেতে চায় না।

যাদুকাটা নদীসিলেটের জিন্দাবাজার এলাকা থেকে প্রথমবারের মতো যাদুকাটা নদী দেখতে এসেছেন মিরাজ মাহমুদ। রাস্তাঘাট নাজুক থাকায় বারেক টিলা, যাদুকাটা নদী ও শহীদ সিরাজ লেকে আসতে অনেক ভোগান্তিতে পড়ার কথা জানালেন তিনি। যদিও প্রকৃতির রূপসৌন্দর্যের কাছে তা ম্লান মনে হয়েছে তার!

হাওরের রূপ দেখে মুগ্ধ ছাতকের ইসলামপুর থেকে আসা দ্বীন মোহাম্মদ বলেন, ‘এখানে থাকা-খাওয়ার পর্যাপ্ত সুবিধা থাকলে সপরিবারে বেড়াতে আসতাম।’

তাহিরপুরের পাহাড়-টিলাপ্রতি ঈদে পরিবার নিয়ে তাহিরপুরে বেড়াতে আসেন জামালগঞ্জ উপজেলার কামলাবাজ গ্রামের শাহীন আহমদ। কিন্তু প্রতিবারই বেহাল সড়কের জন্য দুর্ভোগে পড়তে হয় তাকে।

পাহাড় দেখতে নরসিংদী থেকে তাহিরপুরে এসেছেন আসাদ মিয়া। তার মন্তব্য, ‘এমন মনোমুগ্ধকর পর্যটন এলাকার রাস্তাঘাট উন্নত করে পর্যটনবান্ধব পরিবেশ রাখতে পদক্ষেপ নেওয়া উচিত সরকারের।’

যাদুকাটা নদীতাহিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান করুণা সিন্ধু চৌধুরী বাবুলের দাবি, রাস্তাঘাট উন্নয়নের কাজ চলছে। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বারেক টিলা, শহীদ সিরাজ লেক, যাদুকাটা নদী, টাঙ্গুয়ার হাওরকে নিয়ে একটি ইকো-ট্যুরিজম প্রকল্পের কাজ শুরু হবে শিগগিরই।’

/জেএইচ/
টপ