ইউনেস্কোর নতুন ২৯টি বিশ্ব ঐতিহ্য

Send
জার্নি ডেস্ক
প্রকাশিত : ২১:০৪, জুলাই ১১, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ২১:০৮, জুলাই ১১, ২০১৯

দক্ষিণ ফরাসি ভূমি ও সাগরজাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি সংস্থা ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্য কমিটি নতুন ২৯টি প্রাকৃতিক, সাংস্কৃতিক, ঐতিহাসিক ও প্রত্নতাত্ত্বিক স্থানকে তালিকাভুক্ত করেছে। আজারবাইজানের রাজধানী বাকুতে বার্ষিক সভায় ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ কমিটির ভোটে ২০১৯ সালের জন্য এগুলো চূড়ান্ত হয়।

নতুন তালিকায় এশিয়ার চীন আর ইউরোপের পর্তুগাল ও চেক রিপাবলিকের দুটি করে স্থান আছে। এশিয়ার অন্যান্য দেশের মধ্যে ভারত, ইন্দোনেশিয়া, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, মিয়ানমার ও লাওসের একটি করে স্থান রয়েছে তালিকায়।
এ বছর বিপদাপন্ন হয়ে পড়ায় বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা থেকে বাংলাদেশের সুন্দরবনকে বাদ দেওয়া হয়েছে। এশিয়ার মধ্যে আরও বাদ পড়েছে নেপালের কাঠমান্ডু ভ্যালি।

এখন পর্যন্ত ইউনেস্কোর তালিকাভুক্ত হলো বিশ্বের ১ হাজার ১২১টি অসাধারণ স্থান। ১৯৭৮ সাল থেকে বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকা তৈরি শুরু হয়।

চেক রিপাবলিকের ক্লাদরুবি নাদ লাবেম গ্রামে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ব্যবহৃত ঘোড়ার গাড়ির ঘোড়া প্রজনন ও প্রশিক্ষণের ল্যান্ডস্কেপইউনেস্কোর দৃষ্টিতে নতুন বিশ্ব ঐতিহ্য
অস্ট্রেলিয়া: বিলুপ্ত আগ্নেয়গিরি বাজ বিমের ল্যান্ডস্কেপ
আজারবাইজান: ঐতিহাসিক শাকি ও খান’স প্যালেস
বাহরাইন: দিলমান সমাধিক্ষেত্র
ব্রাজিল: সংস্কৃতি ও জীববৈচিত্র্যের শহর পারাচি ও ইলিয়া গ্রাঞ্জ বে
বুরকিনা ফাসো: প্রাচীন লোহা-ধাতুময় স্থান
কানাডা: রাইটিং-অন-স্টোন প্রভিনশিয়াল পার্ক/অয়িশিনাইপি
চীন: লিয়াঙচু শহরের প্রত্নতাত্ত্বিক ধ্বংসাবশেষ
চীন: অতিথি পাখির অভয়ারণ্য ইয়ালু সাগর-বোহাই সাগরের উপকূল
চেক রিপাবলিক: ক্লাদরুবি নাদ লাবেম গ্রামে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ব্যবহৃত ঘোড়ার গাড়ির ঘোড়া প্রজনন ও প্রশিক্ষণের ল্যান্ডস্কেপ
চেক রিপাবলিক/জার্মানি: এজগেবার্জ/ক্রুশনোহরি খনি অঞ্চল
ফ্রান্স: দক্ষিণ ফরাসি ভূমি ও সাগর
জার্মানি: আগসবার্গ ওয়াটার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম
আইসল্যান্ড: বাহনায়োকুত ন্যাশনাল পার্ক
ভারত: রাজস্থানের জয়পুর সিটি
ইন্দোনেশিয়া: সাওয়ালুনতো শহরের অম্বিলিন কয়লা খনি
ইরান: হাইরক্যানিয়ান বন
ইরাক: ব্যাবিলনের প্রত্নতাত্ত্বিক ধ্বংসাবশেষ
ইতালি: ভালদোবিয়াদেনে হিলস অব প্রসেক্কো দি কনেলিয়ানো
জাপান: মোজু-ফুরুইচি কোফান গ্রুপ-প্রাচীন সমাধি
দক্ষিণ কোরিয়া: সোওয়ান-নব্য কনফুশিয়ান একাডেমিস
লাওস: চিয়েঙ কুয়াঙের প্লেইন অব জারস-প্রাগৈতিহাসিক যুগের প্রস্তর
মিয়ানমার: বাগান মন্দির
পোল্যান্ড: শেমিয়স্কিতে প্রাগৈতিহাসিক যুগের ডোরাকাটা পাথরের খনি অঞ্চল
পর্তুগাল: তাপাদা শহরের রয়েল বিল্ডিং অব মাফরা-প্রাসাদ, গির্জা, মঠ, চের্কো গার্ডেন ও হান্টিং পার্ক
পর্তুগাল: ব্রাগা শহরের গুড যীশু অব দ্য মাউন্ট আশ্রয়স্থল
রাশিয়া: স্কফ স্কুল অব আর্কিটেকচারের গির্জা
স্পেন: প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান রিস্কো কায়দো ও গ্র্যান কানারিয়ার পবিত্র পর্বতমালা
যুক্তরাজ্য: জডরেল ব্যাংক ডিসকভারি সেন্টার
যুক্তরাষ্ট্র: ফ্রাঙ্ক লয়েড রাইটের দ্য টোয়েন্টিয়েথ-সেঞ্চুরি আর্কিটেকচার

ব্যাবিলনের প্রত্নতাত্ত্বিক ধ্বংসাবশেষসূত্র: সিএনএন

/জেএইচ/
টপ