জম্মু ও কাশ্মির ভ্রমণে বিধিনিষেধ উঠে যাচ্ছে আজ

Send
জার্নি ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৩:৩০, অক্টোবর ১০, ২০১৯ | সর্বশেষ আপডেট : ১৩:৩৫, অক্টোবর ১০, ২০১৯

জম্মু ও কাশ্মিরহিমালয় পার্বত্য অঞ্চলে অবস্থিত জম্মু ও কাশ্মিরে পর্যটকদের ওপর ভ্রমণে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছিল। আজ বৃহস্পতিবার (১০ অক্টোবর) থেকে তা তুলে নেওয়া হচ্ছে। জম্মু ও কাশ্মির প্রশাসন কর্তৃক প্রকাশিত এক সরকারি বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য রয়েছে।

জম্মু ও কাশ্মিরের গভর্নর সত্যপাল মালিক জানিয়েছেন, এই উপত্যকায় ভ্রমণপ্রেমীদের আবারও স্বাগত জানানো হচ্ছে।

জম্মু ও কাশ্মিরের মুখ্য সচিব আর উপদেষ্টাদের সঙ্গে চলমান পরিস্থিতি ও নিরাপত্তা পর্যালোচনা বৈঠকের পর ভ্রমণে বিধিনিষেধ প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেন গভর্নর। গত ছয় সপ্তাহে অঞ্চলটির বিভিন্ন অংশে নিরাপত্তাজনিত বিধিনিষেধ তুলে নেওয়া হয়েছে।
জম্মু ও কাশ্মীর উপত্যকার গ্রীষ্মকালীন রাজধানী শ্রীনগর এবং শীতকালীন রাজধানী জম্মু। কাশ্মীর উপত্যকা প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য বিখ্যাত। জম্মু অঞ্চলে অনেক মন্দির থাকায় এটি হিন্দুদের কাছে একটি পবিত্র তীর্থক্ষেত্র।
জম্মু ও কাশ্মিরে স্বাভাবিক জীবন ফিরিয়ে আনার দিকেই এখন মনোযোগী গভর্নর। তাই নিরাপত্তা পর্যালোচনায় উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ অন্যান্য সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পুনরায় চালু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

এছাড়া গণপরিবহন পুনরায় চালু, পর্যটন অভ্যর্থনা কেন্দ্রে আরও কাউন্টার যুক্ত করা, জম্মু ও কাশ্মিরের প্রতিটি জেলায় ২৫টি ইন্টারনেট কিয়স্ক প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

গত ২ আগস্ট নিরাপত্তাজনিত কারণে অমরনাথ যাত্রার তীর্থযাত্রী ও অন্যান্য পর্যটকদের অনতিবিলম্বে কাশ্মির ছেড়ে যাওয়ার পরামর্শ দেয় জম্মু ও কাশ্মির প্রশাসন। এর তিন দিন পর ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সরকার সংসদের উভয় কক্ষে ব্যাপক সমর্থন নিয়ে ভারতীয় সংবিধানের জম্মু ও কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা ধারা ৩৭০ ও ধারা ৩৫ক বাতিল করে দুটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল বানান। এগুলো হলো জম্মু ও কাশ্মীর আর লাদাখ। এতদিন এটি ছিল স্বতন্ত্র রাজ্য।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

/জেএইচ/
টপ