ডন এ কি সত্যিই সার্জিক্যাল স্ট্রাইক ছিলো?

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ১৬:৩৮, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৬ | সর্বশেষ আপডেট : ১৬:৪০, সেপ্টেম্বর ৩০, ২০১৬

d 30 sep

বৃহস্পতিবার রাতে ভারত-পাকিস্তান নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর সংঘর্ষে দুই পাকিস্তানি সেনার প্রাণহানি হয়। ভারত একে জঙ্গিবিরোধী সার্জিক্যাল স্ট্রাইক আখ্যা দিলেও এই দাবি মানেনি পাকিস্তান। এ নিয়ে আজকের একটি শিরোনাম করেছে পাকিস্তানি সংবাদ মাধ্যম ডন।

ডনের সংবাদে বলা হয়, এমনকি ভারতের অনেক রাজনৈতিক নেতারাও এই তথাকথিত সার্জিক্যাল স্ট্রাইক মেনে নেননি। ভারতীয় রাজনীতিবিদ সীতারাম ইয়েচুরি এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে বলেছেন এই অভিযানের কোন বিস্তারিত তথ্য জনগণের সামনে প্রকাশ করা হয়নি।

ভারতের দাবি ও পাকিস্তানের উল্টো দাবি উভয় রাষ্ট্রের নাগরিককেই বিভ্রান্ত করছে। এ কি সত্যিই সার্জিক্যাল স্ট্রাইক ছিলো নাকি সব সময়কার মতো নিয়ন্ত্রণ রেখা লঙ্ঘনের ঘটনাই ছিলো এ বিষয়ে কারোরই স্পষ্ট ধারণা তৈরি হচ্ছে না।

পাকিস্তান সেনা বাহিনীর ইন্টার সার্ভিস পাবলিক রিলেশনের মিডিয়া উইং এর প্রধান লেফটেন্যান্ট জেনারেল বাজওয়া দাবি করেন, ভারতের সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের দাবি মিথ্যা প্রচারণা ছাড়া কিছুই নয়।

তিনি আরও বলেন, ভারত নিজ নাগরিকদের স্তোক দেওয়ার জন্য সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের বুলি আওড়ে যাচ্ছে।

এ বিষয়ে একমত হয়ে অবসরপ্রাপ্ত এয়ার মার্শাল শাহজাদ চৌধুরী বলেন, ‘সার্জিক্যাল স্ট্রাইক ঘটে থাকে অকস্মাৎ এবং অস্ত্রোপচারের মতো দক্ষতা নিয়ে। এতে আশেপাশে কোন কিছু ক্ষতিগ্রস্ত হয় না। ভারত জা করেছে তা নিয়ন্ত্রণ রেখা লঙ্ঘন, সার্জিক্যাল স্ট্রাইক নয়।

তিনি আরও বলেন, সার্জিক্যাল স্ট্রাইক সাধারণত আকাশ পথে হয়ে থাকে, ভারতের মতো স্থলপথে নয়।

নিরাপত্তা বিশ্লেষক হাসান আসকারি বলেন, ‘এটা সম্ভব নয় যে ভারতীয় সেনাবাহিনী কাঁটাতার পার হয়ে পাকিস্তানে ঢুকেছে ও সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালিয়ে বের হয়ে গেছে। প্রকৃতপক্ষে তারা নিয়ন্ত্রণ রেখার ওপার থেকেই গুলি চালিয়েছে।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার সকালে ভারতীয় সেনাবাহিনীর পক্ষ থেকে দাবি করা হয়, বুধবার রাতে নিয়ন্ত্রণ রেখা পেরিয়ে ভারতের সেনারা সন্ত্রাসী ঘাঁটিগুলোতে সার্জিক্যাল স্ট্রাইক চালিয়েছে। ওই অভিযানে ৯ পাকিস্তানি সেনা ও ৩৫ থেকে ৪০ জঙ্গি নিহত হয়েছে বলেও দাবি করা হয়। সার্জিক্যাল স্ট্রাইক দিয়ে এমন সামরিক অভিযানকে বোঝানো হয়, যে অভিযানে সুনির্দিষ্ট লক্ষ্যবস্তুর বাইরে আশপাশের অবকাঠামো কিংবা জনসাধারণ হামলার শিকার হয় না বলে দাবি করা হয়। ঘটনার পর থেকে দুই সেনা সদস্য নিহত হওয়ার খবর নিশ্চিত করে পাকিস্তান দাবি করে আসছে এটি সার্জিক্যাল স্ট্রাইক ছিল না, সীমান্ত সংঘর্ষ বা আন্তঃসীমান্ত গোলাগুলির ঘটনা ছিল। পাকিস্তান ভূখণ্ডে এ ধরনের অভিযান চালানো হলে একই কায়দায় এর জবাব দেওয়ারও হুঁশিয়ারি দেওয়া হয় পাকিস্তানের পক্ষ থেকে। 

লাইভ

টপ