দ্য হিমালয়ান টাইমস নেপালের সংবিধান সংশোধন নিয়ে দলগুলোর কথার লড়াই

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ০৭:৩৭, জানুয়ারি ২৭, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ১৮:০১, জানুয়ারি ২৮, ২০১৮

নেপালের সংবিধান সংশোধন নিয়ে প্রধান রাজনৈতিক দল ও জোটগুলোর মধ্যে এখনও কোনও মতৈক্য হয়নি। তারা এখনও কথার লড়াইয়ে ব্যস্ত আছে। দেশটির বৃহত্তম দল সিপিএন-ইউএমএল সংবিধান সংশোধনের জন্য প্রস্তুত আছে বলে জানিয়েছেন সভাপতি কেপি শরমা ওলি। তবে তার কথায় ভরসা পাচ্ছেন না দেশটির রাষ্ট্রীয় জনতা পার্টির নেতা রাজেন্দ্র মাহাতো। নেপালের শীর্ষ সংবাদপত্র দ্য হিমালয়ান টাইমস খবরটিকে শনিবার (২৭ জানুয়ারি) তাদের প্রধান শিরোনাম করেছে।

Capture

খবরে বলা হয়, কেপি শরমা ওলি এর আগে সংবিধান সংশোধনের বিরোধিতা করলেও পোখারা সফরের সময় বলেন, তিনি সংবিধান সংশোধনের জন্য প্রস্তুত। কিন্তু মাধেশি বাহিনী বিষয়টির বিরোধিতা করতে পারে। কারণ সংবিধান সংশোধন হলে তার নির্বাচনি স্লোগান থেকে বাদ পড়ে যেতে পারে বলে ভয় করছে। সে সময় তিনি বলেন, হিলস ও মাধেশকে বিভাজন করে এমন কোনও উদ্যোগ তিনি সমর্থন করবেন না।

তার কথার সূত্র ধরে দলটির আরেক নেতা সুবাস চন্দ্র নিমবাঙ্গ বলেন, ‘আমরা আগে সংবিধান সংশোধনের বিরোধিতা করেছি কারণ তখনও সংবিধান কার্যকর হয়নি। তখনও প্রাদেশিক পরিষদ বসেনি। তবে এখন পরিস্থিতি পরিবর্তন হয়েছে। এখন প্রয়োজন ও যু্ক্তিসংগতভাবে সংবিধান সংশোধন করা যেতে পারে।’

তবে নেপালের রাষ্ট্রীয় জনতা পার্টির নেতা রাজেন্দ্র মাহাতো বলেন, যদি সিপিএন-ইউএমএল সংবিধান সংশোধনে রাজি থাকে তাহলে তারা পার্লামেন্টে এনিয়ে প্রস্তাব দিবেন আর তা পাস করার উদ্যোগ নেবেন। তিনি বলেন, মাধেশি দলগুলো সংবিধান সংশোধন বিষয়ে তেমন কোন ঝামেলা করবে না। ‘তবে ইউএমএল-ই সংবিধান সংশোধনের পথ আটকে রেখেছে।’ তিনি আরও বলেন, ইউএমএল সংবিধান সংশোধনের উদ্যোগ নিলে মাধেশি দলগুলো নিশ্চিতভাবে সমর্থন দেবে। 

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘ইউএমএল একটা বলে কিন্তু অন্যটা। আমরা পালাতে চাই না। আমরা প্রতারিতও হতে চাই না।’ তিনি আরও বলেন, জাতীয় পরিষদ নির্বাচনের জন্য তারা বামপন্থীদের সঙ্গে জোট গড়ার চেষ্টা করছেন। কিন্তু সংবিধান সংশোধনই প্রতিবন্ধক হয়ে আছে।

 

/আরএ/

লাইভ

টপ