দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে আবারও দুর্নীতির অভিযোগ, আরও একটি নতুন হুমকি

Send
বিদেশ ডেস্ক
প্রকাশিত : ২২:৫২, ডিসেম্বর ০৩, ২০১৮ | সর্বশেষ আপডেট : ২৩:০০, ডিসেম্বর ০৩, ২০১৮

রবিবার (২ ডিসেম্বর) দুর্নীতির তৃতীয় অভিযোগেও ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুকে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযুক্ত করার পক্ষে মত দিয়েছে দেশটির পুলিশ। তাদের দাবি, প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযোগ আনার জন্য প্রয়োজনীয় যথেষ্ঠ তথ্য-প্রমাণ তাদের হাতে রয়েছে। বিশ্লেষকরা মনে করেন, তিন তিনবারের মতো দুর্নীতি ও প্রতারণার অভিযোগ ওঠায় প্রভাব পড়তে পারে নেতানিয়াহুর রাজনৈতিক ভবিষ্যতের ওপর। তার সরকারের এমনিতেই সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে মাত্র এক সদস্যের কারণে। এ বিষয়ে মার্কিন সংবাদপত্র ‘দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস’ ০৩ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মুদ্রিত সংখ্যার একটি শিরোনাম করেছে, ‘থার্ড গ্রাফট কেস ইজ নিউ থ্রেট ফর নেতানিয়াহু।’

রবিবার তাকে যে অভিযোগে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযুক্ত করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে, তা হচ্ছে: নেতানিয়াহু ২০১৪-২০১৭ মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে যোগাযোগ মন্ত্রণালয়ও তার কাছে রেখেছিলেন। এলোভিচ নামের এক সহযোগীকে ব্যবসায়িক সুবিধা পাইয়ে দিতে তিনি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার অপব্যবহার করেছিলেন। তার বিনিময়ে অর্থ ও বাড়তি প্রচারণা নিয়েছেন। সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী ইয়েস স্যাটেলাইটের অংশীদার ছিলেন। আবার একই প্রতিষ্ঠানের অংশীদার ছিল ইসরায়েলের সবেচেয়ে বড় টেলিকমিউনিকেশন প্রতিষ্ঠান বাজেক। ২০১০ সালে এলোভিচ হঠাৎ করে বেজেকের সিংহভাগের মালিক হয়ে যান। অথচ তার প্রচুর পরিমাণে ঋণ ছিল।

একদিকে তিনি যেমন তিনি যেমন বাজেকের বেশিরভাগ শেয়ার কিনে নিলেন তেমনি তার অংশীদারিত্ব থাকা ইয়েস টেলিকম বেজেকের কাছে বিক্রি করে দিলেন প্রচুর দামে। ইসার‍্যেলের পুলিশ তদন্তে বলেছে, ইয়েস স্যাটেলাইটকে কিনতে যে অর্থ বেজেক দিয়েছে তা ওই প্রতিষ্ঠানটির প্রকৃত মূল্যের কয়েক গুণ বেশি। নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি ক্ষমতা খাটিয়ে ওই কাজটি করিয়েছেন।

অন্যদিকে বেজেক টেলিকম ওয়ালা নিউজ নামের একটি সংবাদপত্রেরও মালিক। নেতানিয়াহুর কাছ থেকে সুবিধা পাওয়া এলোভিচের নির্দেশে সংবাদপত্রটি নেতানিয়াহু ও তার স্ত্রী পক্ষে সংবাদ পরিবেশন করতে থাকে। একই সঙ্গে তাদের বিরুদ্ধে সমালোচনামূলক সংবাদ প্রকাশ বন্ধ করে দেয় ওয়েবসাইটটি। কোনও কোনও ক্ষেত্রে তারা সমালোচনামূলক সংবাদ পাল্টে দেওয়ার ঘটনাও ঘটিয়েছে। পুলিশ নিশ্চিত হয়েছে, সরকারি স্বার্থ ক্ষুণ্ন করেই নেতানিয়াহু নিজের জন্য বাড়তি প্রচারণা লাভের ষড়যন্ত্র করেছিলেন এবং সহযোগীকে বিশাল অঙ্কের অবৈধ অর্থ পাওয়ার সুযোগ করে দিয়েছিলেন। পুলিশ ওই অর্থের মধ্যে তিন কোটি ২০ লাখ ডলার উদ্ধার করেছে।

এখন সিদ্ধান্ত নেওয়ার পালা দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেলের। তিনি চাইলে নেতানিয়াহুকে আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযুক্ত করা হবে। আর সেজন্য লেগে যেতে পারে প্রায় এক মাস। কিন্তু নেতানিয়াহুর নিয়োগ করা অ্যাটর্নি জেনারেল কী খোদ প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহুকেই অভিযুক্ত করার সিদ্ধান্ত দেবেন? যদি দেন তাহলে তা হবে ইসরায়েলের জন্য নতুন এক ইতিহাস। দেশটির ইতিহাসে প্রধানমন্ত্রী পদে থাকা আর কেউ কখনও আনুষ্ঠানিকভাবে অভিযুক্ত হননি।

নেতানিয়াহু তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ বরাবরের মতোই অস্বুইকার করে আসছেন। রবিবার ছিল ইহুদিদের হানুকাহ নামের ধর্মীয় উৎসবের দিন। নেতানিয়াহু লিকুদ পার্টির অফিসে সমবেত কর্মীদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘কি চমৎকার উপহার দিলো তারা আমদেরকে। আজ আমরা অন্ধকারের বিরুদ্ধে আলোর জয় উদযাপন করছি এবং আলোই সবসময় জিতবে।’ যদিও তিন তিনটি দুর্নীতির অভিযোগে তার ভাবমূর্তি যথেষ্ঠ ক্ষুণ্ন হয়েছে।

/এএমএ/

লাইভ

টপ